ঢাকা, বুধবার, ১১ কার্তিক ১৪২৮, ২৭ অক্টোবর ২০২১, ১৯ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

অপার মহিমার রমজান

যেসব কারণে রোজা না রাখার অনুমতি আছে

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১২২২ ঘণ্টা, জুন ১, ২০১৭
যেসব কারণে রোজা না রাখার অনুমতি আছে রমজানের রোজা রাখা ফরজ। পবিত্র কোরআন এবং হাদিসে এ বিষয়ে স্পষ্ট নির্দেশনা রয়েছে

রমজানের রোজা রাখা ফরজ। পবিত্র কোরআন এবং হাদিসে এ বিষয়ে স্পষ্ট নির্দেশনা রয়েছে।

এ নির্দেশনা প্রত্যেক প্রাপ্তবয়স্ক নারী-পুরুষের জন্য। তবে কিছু কিছু বিষয় আছে যেগুলোর কারণে রমজান মাসে রোজা না রাখার সুযোগ আছে।

 

কোরআন হাদিসের আলোকে ইসলামি স্কলাররা এর বর্ণনা দিয়ে বলেছেন-

১. অসুস্থতার কারণে রোজা রাখার শক্তি না থাকলে বা রোগ বেড়ে যাওয়ার আশঙ্কা থাকলে। (পরে কাজা করে নেবে)। এ বিষয়ে কোরআনে কারিমে ইরশাদ হয়েছে, ‘যে কেউ রমজান মাস পাবে, সে যেন রোজা পালন করে। আর যে ব্যক্তি রোগাক্রান্ত বা সফরে থাকে সে যেন অন্য সময়ে তা আদায় করে নেয়। ’ -সূরা বাকারা: ১৮৫

২. গর্ভবর্তী মহিলা রোজা রাখলে যদি নিজের বা সন্তানের জীবনের ব্যাপারে আশঙ্কা করে।  

৩. যে মহিলা নিজ বা অন্যের বাচ্চাকে দুধ খাওয়ান, তিনি রোজা রাখলে যদি বাচ্চার কষ্ট হবে মনে করেন, তাহলে রোজা না রেখে পরে কাজা করতে পারবেন।

৪. শরয়ি মুসাফির (কমপক্ষে ৪৮ মাইল ভ্রমণ করেছেন যিনি) তার জন্য রোজা না রাখার অনুমতি আছে। তবে কষ্ট না হলে রোজা রাখা উত্তম। অবশ্য নিজের বা সঙ্গীদের কষ্ট হলে রোজা না রাখাই উত্তম।

৫. যদি রোজা রেখে সফর শুরু করে, তাহলে সে রোজা পূর্ণ করা জরুরি। আর যদি খেয়ে সফর থেকে বাড়ির দিকে রওয়ানা হয়, তাহলে বাকি দিন খাওয়া-পানাহার বাদ দেওয়া উত্তম। আর যদি না খেয়ে শুরু করে এরপর বাড়ি পৌঁছানোর পরও রোজার নিয়ত করার সময় থাকে, তাহলে রোজার নিয়ত করে নেবে।

৬. কেউ কাউকে রোজা রাখলে হত্যার হুমকি দিল বা কোনোভাবে রোজা না রাখার ওপর বাধ্য করলো- তাহলে রোজা না রেখে পরে কাজা করে নিতে পারেন।

৭. ক্ষুধা বা পিপাসা যদি এত বেশি হয় যে, কোনো দ্বীনদার অভিজ্ঞ ডাক্তার প্রাণনাশের আশঙ্কা করেন, তাহলে রোজা ভাঙা যাবে। তবে পরে কাজা করে নিতে হবে।

৮. মহিলাদের ঋতুকালীন সময়ে বা সন্তান ভূমিষ্ঠ হওয়ার পরবর্তী অসুস্থকালীন সময়ে রোজা রাখা যাবে না। তবে পরে কাজা করে নিতে হবে।

রমজানে এসব কারণ ছাড়া এমনিতে অনেকে অসুস্থ বনে যান। এটি খুবই দুঃখজনক। নিশ্চয় আল্লাহতায়ালা সব রকম চালাকি বুঝতে পারেন।

উল্লেখ্য, যাদের জন্য রোজা ভাঙার অনুমতি আছে, তাদের উচিৎ প্রকাশ্যে কোনো কিছু না খেয়ে রমজানের সম্মান ধরে রাখা।

ইসলাম বিভাগে লেখা পাঠাতে মেইল করুন: [email protected]

বাংলাদেশ সময়: ১৮২২ ঘণ্টা, জুন ০১, ২০১৭
এমএইউ/

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa