ঢাকা, বুধবার, ২৬ শ্রাবণ ১৪২৯, ১০ আগস্ট ২০২২, ১১ মহররম ১৪৪৪

তারার ফুল

‘বাজার করতে গিয়ে ছাড় পেলে ভালো লাগে’

জান্নাতুল মাওয়া, প্রদায়ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০০০ ঘণ্টা, এপ্রিল ৬, ২০১৬
‘বাজার করতে গিয়ে ছাড় পেলে ভালো লাগে’ নাফিসা কামাল ঝুমুর- ছবি: নূর- বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

মাত্র একটি এসএমএসের মাধ্যমে করে ফেলতে পারবেন আপনার পুরো মাসের সদাই। ভাবছেন স্বপ্ন? স্বপ্ন হলেও তা বাস্তবে রূপ দিতে বৈশাখী টিভিতে শুরু হতে যাচ্ছে বিডিং শো ‘স্বপ্ন সদাই’।

অনুষ্ঠানের মূল আকর্ষণ হলো এসএমএস এর মাধ্যমে সারামাসের সদাই করা।

অনুষ্ঠানটিতে সঞ্চালিকার আসনে থাকবেন নাফিসা কামাল ঝুমুর। বৃহস্পতিবার (৭ এপ্রিল) রাত ১১টায় সরাসরি সম্প্রচার করা হবে এর প্রথম পর্ব। এর অতিথি ক্রিকেটার মোহাম্মদ আশরাফুল। এ নিয়ে বাংলানিউজের সঙ্গে কথা বলেছেন উপস্থাপিকা নাফিসা কামাল ঝুমুর।

বাংলানিউজ : ‘স্বপ্ন সদাই’ অনুষ্ঠানে কেনা-বেচার প্রক্রিয়াটি কীভাবে সম্পন্ন হবে?
নাফিসা কামাল ঝুমুর : 
এসএমএস-এর মাধ্যমে এ অনুষ্ঠানে কেনা-বেচার প্রক্রিয়াটি সম্পন্ন হবে। অনুষ্ঠানের প্রতিটি পর্বকে ভাগ করা হবে ৪-৫টি প্যাকেজে। এখানে যেসব পণ্য থাকবে সেগুলোর দাম জানতে চাওয়া হবে। দর্শকরা তাদের উত্তর ফোন বা এসএমএসের মাধ্যমে জানাতে পারবে পাঁচ মিনিটের মধ্যে। এই সময়ের মধ্যে যে সঠিক উত্তর দিতে পারবে তার ঘরেই যাবে পুরো মাসের বাজার।

বাংলানিউজ : এসএমএসে পুরো মাসের সদাই! কীভাবে সম্ভব?
ঝুমুর :
অনুষ্ঠানটিতে থাকবে সাত থেকে দশ হাজার টাকা মূল্যের নিত্য প্রয়োজনীয় সব পণ্য। যেসব জিনিস আমদের দৈনন্দিন প্রয়োজন। যেমন- চাল, ডাল, তেল, লবণ, বিভিন্ন টয়লেট্রিজ ইত্যাদি। এ গুলো সবই পাওয়া যাবে ‘স্বপ্ন সদাই’-এ। এই অনুষ্ঠানের সকল পণ্যই থাকবে স্বপ্ন বাজারের পক্ষ থেকে।

বাংলানিউজ : আপনি কখনও এসএমএসের মাধ্যমে পুরস্কার জিতেছেন?
ঝুমুর :
না, এভাবে কখনও পুরস্কার জিতিনি। তবে এ অনুষ্ঠান নিয়ে আমি খুব আগ্রহী। যেহেতু আমি এভাবে কিছু ‍জিতিনি তাই আমি সামনে থেকে দেখতে উৎসুক, কীভাবে দর্শকরা জেতে এবং পুরো মাসের বাজার পায়।

বাংলানিউজ : আপনার বাজার করার অভিজ্ঞতা কেমন?
ঝুমুর :
নিজে বাজার করতে ভালো লাগে আমার, তাই প্রায়ই বাজারে যাই। এ ছাড়া বিভিন্ন পদ রান্নার প্রতি আমার আগ্রহ আছে। এজন্য বাজারে গিয়ে নিজে পছন্দ করে জিনিসপত্র কিনি। বিভিন্ন সুপার শপে ঘুরে ঘুরে বাজার করার মধ্যে আলাদা মজা আছে।

বাংলানিউজ : ছেলেদের তুলনায় মেয়েদের বাজারে আগ্রহ বেশি না কম?
ঝুমুর :
  এখন তো বাজার করার আগ্রহ ছেলেদের চেয়ে মেয়েদের বেশি। আগে ছেলেরা শুক্রবারে বাজারে যেত, সারামাসের বাজার করত। কিন্তু এখন ঘরের সব কাজের মতো বাজারের ব্যাপারেও মেয়েরা সচেতন। পাশাপাশি মেয়েরা ছেলেদের তুলনায় দরদামেও পটু। তারা প্রয়োজনীয় সবকিছুই এখন পেয়ে যান সুপার শপগুলোতে। তাই বাজার করা এখন আর কঠিন কিছু নয়। আর ‘স্বপ্ন সদাই’-এর মতো অনুষ্ঠান থাকলে তো ঘরে বসেই বাজার করা সম্ভব।

বাংলানিউজ : বাজারে যাওয়ার মজা কোথায়?
ঝুমুর
: বাজার করতে গিয়ে ছাড় পেলে ভালো লাগে। আমি বেশিরভাগ সময়ই স্বপ্ন সুপার শপ থেকে বাজার করি। সেজন্য নিয়মিত ক্রেতা হিসেবে মাঝে মধ্যে মূল্যছাড় পেয়ে যাই। এজন্যও আমার বাজার করতে ভালো লাগে বলতে পারেন (হাসি)।

বাংলাদেশ সময় : ১৯০৭ ঘণ্টা, এপ্রিল ০৫, ২০১৬
জেএম/জেএইচ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa