ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ২৩ মে ২০২৪, ১৪ জিলকদ ১৪৪৫

তারার ফুল

‘কপালে ফর্সা ছেলে থাকলে খণ্ডাবে কে?’

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১২১০ ঘণ্টা, মে ২৬, ২০১৬
‘কপালে ফর্সা ছেলে থাকলে খণ্ডাবে কে?’ মাহিয়া মাহি, ছবি: বিনোদ-বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

সানাইয়ের সুর বেজেই চলেছে। কিন্তু কনে কোথায়? তবে একটু দেরিতেই এলেন রূপসী সেই নায়িকা।

মুহুর্তেই নিজের আলোয় মুগ্ধ করে দিলেন। লাল টুকটুকে শাড়িতে যেন বহুবারই তাকে দেখা গিয়েছে। তবে এবারের সাজে ভিন্নতা রয়েছে। আর এই ভিন্নতাই বুঝিয়ে দিয়েছে অভিনয় আর বাস্তব কখনও এক নয়। কনের পরপরই এলেন বর। বিয়ের আসরে বুধবার (২৫ মে) সন্ধ্যায় নতুন বরকে সঙ্গে নিয়ে সাক্ষাৎকার দিয়েছেন জনপ্রিয় চিত্রনায়িকা মাহিয়া মাহি। কথা বলেছেন জান্নাতুল মাওয়া-

বাংলানিউজ: এতো তাড়াতাড়ি বিয়ে করলেন?
মাহিয়া মাহি:
পারিবারিকভাবেই বিয়েটা করলাম। তাছাড়া মিডিয়ায় নানা রকম গুজবও রটতে শুরু করেছিলো। এজন্য পরিবার থেকেও মাঝে মধ্যে মিডিয়ায় কাজের ব্যাপারে বারণ করা হচ্ছিলো। আর আমার মা বলছিলেন, ‘এখন আপাতত কাজ বাদ দিয়ে পড়ালেখাটা শেষ করো। পারলে বিয়েটাও করে ফেলো। ’ আমি মাকে বললাম, ‘আমি বিয়েও করবো, মিডিয়াতে কাজও করবো আর পড়ালেখাও শেষ করবো। ’

বাংলানিউজ: আপনি বলেছিলেন, আপনার বর দেখতে কালো হবে…
মাহি:
(হেসে) আমার বরাবরই কালো ছেলে পছন্দ ছিলো। এমনকি আমি নিজেও সবাইকে বলেছি আমি কালো ছেলে বিয়ে করবো। কিন্তু কপালে ফর্সা ছেলে থাকলে খণ্ডাবে কে? আমি অপুকে নিজে পছন্দ করেছি। আমার সঙ্গে পরিবারও তাকে সাদরে গ্রহণ করেছে।

বাংলানিউজ: শ্বশুরবাড়ি থেকে মিডিয়ায় কাজের ব্যাপারে আপত্তি আছে?
মাহি:
 আমার শ্বশুর বা শ্বাশুরির কোনো সমস্যা নেই। বরং তারা অনেক স্মার্ট আর আধুনিক। তবে কাজের পরিমাণ একটু কমিয়ে ফেলবো। এখন থেকে বছরে ভালো মানের একটি চলচ্চিত্র করবো।  আমার বিশ্বাস, দর্শক সেটিই গ্রহণ করবেন।  

বাংলানিউজ: বিয়ে তো হয়ে গেলো। পরিবর্তন টের পাচ্ছেন?
মাহি:
আলাদা শুধু একজায়গাতেই মনে হচ্ছে। এতোদিন একা থাকতাম। আজ আমার পাশে চশমাপড়া বোকা-সোকা একজন ভদ্রলোক বসে আছেন। বিয়ে হয়ে গেছে আর এতো সাংবাদিক আমার মুখোমুখি, অবাকই লাগছে।

বাংলানিউজ: বিয়ের জন্য মনে মনে নিশ্চয়ই প্রস্তুতি ছিলো?
মাহি:
হঠাৎ করেই আমার বিয়েটা হয়ে গেলো। মাত্র ৭দিন আগে আমার বিয়ের কথা পাকা হয়েছে। অপুর পরিবার ও আমার পরিবার মিলে এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে। ধরতে গেলে আমি সেভাবে শপিংও করতে পারিনি।  ভাবতাম যে, নিজেকে একটা পর্যায়ে তুলে ধরতে পারলে জীবনের এই বড় সিদ্ধান্তটিও নেবো। আমি মনে করি আজ সেই জায়গাতে আছি।

বাংলানিউজ: আপনার জনপ্রিয়তা কমে যেতে পারে বলে আশঙ্কা করছেন?
মাহি:
আজ বা কাল বিয়ে তো করতেই হতো। আমি যদি সত্যিকারের ভালো অভিনেত্রী হয়ে থাকি তবে আমার দর্শক আমাকে সবসময়ই ভালোভাবেই গ্রহণ করবেন। এটা কোনো বিষয়ই নয়। এমন তো নয় যে, বিয়ে হয়েছে বলে দর্শক আমার ছবি দেখবেন না। এমনটা হলে আমি অভিনয় ছেড়ে দিয়ে সিলেট গিয়ে ভাত রান্নাবান্না করবো (হাসি)।

বাংলানিউজ: ভক্তদের উদ্দেশে কিছু বলুন।
মাহি:
ভক্তদের জন্যই তো আমি মাহিয়া মাহি হতে পেরেছি। তাই আমার বিশ্বাস আপনারা সবসময় আমার পাশে থাকবেন। আমি বিয়ে করেছি বলে আমার ছেলে ভক্তদের মন খারাপ করারও কিছু নেই (হাসি)। ইতোমধ্যেই আমার ফেসবুকের ইনবক্সে বারবার মেসেজ আসছে ‘যা রে যাবি যদি যা’….(হাসি)। বিয়ে তো করতেই হতো। হঠাৎ করেই হয়ে গেলো সেজন্য বোধ হয় সবাই একটু বেশিই অবাক হয়ে গেছেন। আমার আর অপুর জন্য সবাই দোয়া করবেন।

বাংলাদেশ সময়: ১১৫০ ঘণ্টা, মে ২৬, ২০১৬
জেএম/এসও

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

তারার ফুল এর সর্বশেষ