ঢাকা, সোমবার, ৯ কার্তিক ১৪২৮, ২৫ অক্টোবর ২০২১, ১৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

ট্রাইব্যুনাল

আপিলে ফের মানবতাবিরোধীদের মামলা

| বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৪৫২ ঘণ্টা, অক্টোবর ৯, ২০১৭
আপিলে ফের মানবতাবিরোধীদের মামলা এটিএম আজহার, কায়সার ও আবদুস সুবহান

ঢাকা: দীর্ঘ এক বছরেরও বেশি সময় পর আপিল বিভাগে শুরু হচ্ছে মানবতাবিরোধী অপরাধে দণ্ডিতদের আপিল শুনানি। ইতোমধ্যে তিনটি আপিলের শুনানির জন্য দিনও ধার্য করেছেন আপিল বিভাগ।

এর মধ্যে জামায়াত নেতা এটিএম আজহার এবং জাতীয় পার্টির সাবেক মন্ত্রী সৈয়দ মোহাম্মদ কায়সারের মামলায় আপিল শুনানির জন্য ১০ অক্টোবর এবং জামায়াত নেতা আবদুস সুবহানের মামলায় ১৬ অক্টোবর দিন ধার্য করা হয়েছে।
 
সর্বশেষ গত বছরের ৩০ আগস্ট জামায়াত নেতা মীর কাসেম আলীর রিভিউ খারিজ করেন আপিল বিভাগ।

এরপর আর কোনো মামলার শুনানি হয়নি আপিল বিভাগে।     
 
এক বছর পর ১৩ আগস্টের আপিল বিভাগের কার্য তালিকায় ওঠে আজহার এবং সৈয়দ কায়সারের আপিল মামলা। তিনদিন পর ওঠে সুবহানের আপিল মামলা।
 
সুবহান
২০১৫ সালের ১৮ ফেব্রুয়ারি মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে পাবনা জেলায় শান্তি কমিটির নেতা সুবহানকে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে মৃত্যুদণ্ডাদেশের রায় দেন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-২। ওই বছরের ১৮ মার্চ রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করেন সুবহানের আইনজীবীরা।
 
৮৯ পৃষ্ঠার মূল আপিলসহ ১১৮২ পৃষ্ঠার আপিল আবেদনে ৯২টি যুক্তি দেখিয়ে মৃত্যুদণ্ডাদেশ বাতিল করে সুবহানের খালাসের আরজি জানানো হয়েছে।
 
আজহার
২০১৪ সালের ৩০ ডিসেম্বর মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে রংপুর জেলা আলবদর বাহিনীর কমান্ডার এ টি এম আজহারুল ইসলামকে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে মৃত্যুদণ্ডের পাশাপাশি ৩০ বছরের কারাদণ্ডাদেশ দেন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-১।
 
২০১৫ সালের ২৮ জানুয়ারি ট্রাইব্যুনালের রায়ের বিরুদ্ধে আপিল বিভাগে আপিল করেন এ টি এম আজহার। ৯০ পৃষ্ঠার মূল আপিলসহ ২ হাজার ৩৪০ পৃষ্ঠার আপিলে ১১৩ যুক্তিতে নিজেকে নির্দোষ দাবি করে ফাঁসির রায় বাতিল ও খালাস চেয়েছেন তিনি।
 
কায়সার
২০১৪ সালের ২৩ ডিসেম্বর মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে নিজের নামে ‘কায়সার বাহিনী’ গঠন করে যুদ্ধাপরাধ সংঘটনকারী হবিগঞ্জ মহকুমার রাজাকার কমান্ডার ও শান্তি কমিটির সদস্য সৈয়দ মোহাম্মদ কায়সারকে সর্বোচ্চ সাজাসহ ২২ বছরের কারাদণ্ডাদেশ দেন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল-২।
 
পরের বছর ১৯ জানুয়ারি নিজেকে নির্দোষ দাবি করে ফাঁসির সাজা বাতিল ও বেকসুর খালাসের আরজি জানিয়ে আপিল করেন কায়সার। ট্রাইব্যুনালের রায় বাতিলের পক্ষে মোট ৫৬টি যুক্তি দেখিয়েছেন তিনি।
 
আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল গঠনের পর প্রথম রায় আসে ২০১৩ সালের ২১ জানুয়ারি ফরিদপুরের পলাতক রাজাকার আবুল কালাম আজাদ ওরফে বাচ্চু রাজাকারের বিরুদ্ধে। এরপর সর্বশেষ রায় হয় চলতি বছরের ১৯ এপ্রিল কিশোরগঞ্জের মোসলেম প্রধানসহ দুইজনের বিরুদ্ধে।
 
২৮ মামলার মধ্যে যে ছয় মামলায় আসামিরা আপিল করেননি সেগুলো হলো, বাচ্চু রাজাকার, আশরাফ-মঈনুদ্দিন, খোকন রাজাকার, ইদ্রিস আলী সরদার, ইঞ্জিনিয়ার আব্দুল জব্বার ও হাছান আলীর মামলা।
 
তবে দণ্ড বাড়াতে পলাতক জব্বারের বিরুদ্ধে আপিল করেছে রাষ্ট্রপক্ষ।
 
আপিলের পর নিষ্পত্তি হয়েছে, জামায়াত নেতা আব্দুল কাদের মোল্লা, গোলাম আযম, মতিউর রহমান নিজামী, আলী আহসান মুজাহিদ, কামারুজ্জামান, মীর কাসেম আলী ও বিএনপি নেতা সাকা চৌধুরী এবং এম এ আলীমের।
 
এর মধ্যে গোলাম আযম ও আলীম ছাড়া ছাড়া বাকিদের মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হয়েছে। আপিল শুনানিকালে এ দুইজন মারা যাওয়ায় তাদের আপিল সমাপ্ত করা হয়।
 
এছাড়া ট্রাইব্যুনালে ফাঁসির দণ্ডপ্রাপ্ত জামায়ত নেতা দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদীর আপিলে আমৃত্যু কারাদণ্ড হয়। এর বিরুদ্ধে রাষ্ট্র ও আসামিপক্ষের রিভিউ আবেদনও ইতোমধ্যে খারিজ হয়ে গেছে।

খালাফ হত্যার আপিলের রায় মঙ্গলবার

বাংলাদেশ সময়: ২০৫০ ঘণ্টা, অক্টোবর ০৯, ২০১৭
ইএস/আইএ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa