ঢাকা, সোমবার, ২৩ মাঘ ১৪২৯, ০৬ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ১৪ রজব ১৪৪৪

ইসলাম

ইজতেমার আখেরি মোনাজাতে আসছে নতুন মুখ

মুফতি এনায়েতুল্লাহ, বিভাগীয় সম্পাদক, ইসলাম | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৩ ঘণ্টা, জানুয়ারি ১০, ২০১৫
ইজতেমার আখেরি মোনাজাতে আসছে নতুন মুখ

নিয়ম করে বেশ কয়েক বছর ধরে বিশ্ব ইজতেমার আখেরি মোনাজাত পরিচালনা করতেন দিল্লির নিজামুদ্দিন মসজিদের খতিব ও তাবলিগ জামাতের অন্যতম শীর্ষ মুরুব্বি মাওলানা জোবায়েরুল হাসান।

গতবারও ইজতেমার শেষ পর্বে তিনি ১৮ মিনিটব্যাপী আখেরি মোনাজাত করেন।

সেবারের মোনাজাতে তিনি বিশ্বমানবতার শান্তি ও কল্যাণে আল্লাহর নৈকট্য লাভের আশায় প্রার্থনা করেন। অশ্রুসিক্ত হয়ে তিনি আল্লাহর দরবারে দোয়া কবুলের জন্য আবেদন জানানোর পাশাপাশি ক্ষমা প্রার্থনা করেন জীবনের ভুল-ত্রুটির জন্য।

‘আমিন আমিন’ ধ্বনিতে তার সঙ্গে মোনাজাতে শরিক হন লাখো মুসল্লি। কিন্তু এবার আর তার ভরাট কণ্ঠের মোনাজাত- ‘ইয়া আল্লাহ, তু হামে মাফ ফরমা’ শোনা যাবে না। কারণ তাবলিগের এই শীর্ষ মুরুব্বি গত বছরের ১৮ মার্চ দীর্ঘ রোগভোগের নয়াদিল্লির ড. রাম মনোহর লোহিয়া হাসপাতালে মারা যান।

মাওলানা জোবায়েরুল হাসান ছিলেন তাবলিগ জামাতের তৃতীয় আমির মাওলানা এনামুল হাসানের ছেলে। তিনি দিল্লির মারকাজের আমির ও আন্তর্জাতিক তাবলিগ জামাতের শূরার সদস্য ছিলেন।

মাওলানা জোবায়েরুল হাসানের মৃত্যুতে তাবলিগ জামাত হারিয়েছে তাদের একজন সুযোগ্য আমিরকে। আর মুসলিম উম্মাহ হারিয়েছে একজন প্রখ্যাত ইসলামী চিন্তাবিদকে। দ্বীনের দাওয়াতকে আপামর জনগণের কাছে পৌঁছে দিতে তার আবদান চিরস্মরণীয় হয়ে থাকবে।

ব্যক্তিগত জীবনে তিনি ছিলেন উন্নত অনুকরণীয় জীবনের অধিকারী। নম্রতা, বিনয় ও সহিষ্ণুতা ছিল তার স্বভাবজাত। তিনি ছিলেন সর্বজন শ্রদ্ধেয় এমন এক ব্যক্তিত্ব, যার আবেগময়ী মোনাজাত ও বক্তব্য শুনে মোহাবিষ্ট থাকতো লাখো ধর্মপ্রাণ মুসলমান।

বিশ্ব ইজতেমায় বেশ কয়েকবার আম বয়ান, সুন্নতি বিয়ের পর বয়ান তিনি নিয়মিতভাবে করতেন। চলতি ইজতেমায় তার কথা ভীষণভাবে মনে পড়ছে। তিনি ১৯৯৬ সাল থেকে ইজতেমায় আখেরি মোনাজাত পরিচালনা করে আসছিলেন।

তিন ছেলে ও তিন মেয়ের জনক মাওলানা জোবায়েরুল হাসান মারা যাওয়া এবার বিশ্ব ইজতেমার আখেরি মোনাজাত পরিচালনা করবেন নতুন কেউ। কিন্তু কে মোনাজাত করবেন সে বিষয়ে এখনও কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি।

ধারণা করা হচ্ছে, এবার ইজতেমার আখেরি মোনাজাত পরিচালনা করবেন তাবলিগের অন্যতম প্রবীণ ও শীর্ষ মুরুব্বি মাওলানা সাদ। তিনিও ভারতের বাসিন্দা। মাওলানা সাদ ইজতেমার সময় বেশ কয়েকবার আম বয়ান করে থাকেন।

তবে আখেরি মোনাজাতের আগে হেদায়েতি বয়ান অনেকটা তার জন্যই নির্ধারিত। সে হিসেবে অনেকেই মনে করছেন তিনিই এবার ইজতেমার আখেরি মোনাজাত পরিচালনা করতে পারেন। মাওলানা সাদের দাদা মাওলানা ইউসুফ আলীও তাবলিগের কাজে নিয়োজিত ছিলেন। মাওলানা সাদ তাবলিগের সাথীদের কাছে অতিপ্রিয় ব্যক্তিত্ব। তার বক্তব্য সব মহলে সমাদৃত।

রেবাবার সকাল সাড়ে ১০টা থেকে ১১টার মধ্যে বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্বের আখেরি মোনাজাত।

বাংলাদেশ সময়: ২০১৪ ঘণ্টা, জানুয়ারি ১০, ২০১৪

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa