ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৪ মাঘ ১৪২৯, ০৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ১৫ রজব ১৪৪৪

ইসলাম

গোঁফে পানি লাগলেই ওই পানি হারাম হয় না

ইসলাম ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ০৮৫৫ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ১, ২০১৬
গোঁফে পানি লাগলেই ওই পানি হারাম হয় না ছবি: প্রতীকী

সাধারণ মানুষের মাঝে গোঁফ রাখার প্রচলন রয়েছে। স্বাভাবিকভাবে গোঁফ রাখা নিয়ে কোনো প্রশ্ন নেই। কিন্তু গোঁফ বড় করে রাখা ইসলামে নিষিদ্ধ। হাদিসে হজরত রাসূলুল্লাহ (সা.) ইরশাদ করেছেন, ‘তোমরা দাড়ি লম্বা করো, মোচ খাটো করো।’ –সহিহ বোখারি: ৫৮৯৩

সাধারণ মানুষের মাঝে গোঁফ রাখার প্রচলন রয়েছে। স্বাভাবিকভাবে গোঁফ রাখা নিয়ে কোনো প্রশ্ন নেই।

কিন্তু গোঁফ বড় করে রাখা ইসলামে নিষিদ্ধ।

হাদিসে হজরত রাসূলুল্লাহ (সা.) ইরশাদ করেছেন, ‘তোমরা দাড়ি লম্বা করো, মোচ খাটো করো। ’ –সহিহ বোখারি: ৫৮৯৩

বর্ণিত হাদিসের আলোকে বলা চলে, গোঁফ রাখা হারাম কিংবা মাকরুহ নয়। আবার এটা রাখতেই হবে এমনও নয়। কিন্তু গোঁফ রাখলে তা কেটে ছোট করে রাখতে হবে। এটাই ইসলামের বিধান। এর অন্যথা কাম্য নয়।

গোঁফ নিয়ে সমাজে কিছু ভ্রান্তি রয়েছে। যেমন, কিছু মানুষের ধারণা, পানি পান করতে গিয়ে যদি গোঁফে পানি লেগে যায় তাহলে ওই পানি পান করা হারাম বা নাপাক হয়ে যায়। এটি একটি ধারণা-প্রসূত কথা, যা একেবারেই ভুল।  

হাদিসে দাড়ি লম্বা করা ও মোচকে খাটো করার কথা দ্বারা পানি হারাম বা নাপাক হওয়া প্রমাণিত হয় না।

গোঁফ মোচ তো নাপাক কিছু নয়। মোচ খাটো করার নির্দেশ আর মোচে পানি লাগলে তা পান করা হারাম হওয়া বা নাপাক হওয়া সম্পূর্ণ আলাদা বিষয়।

বাংলাদেশ সময়: ১৪৫২ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ০১, ২০১৬
এমএইউ/ 

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa