ঢাকা, শুক্রবার, ২৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩০, ০৯ জুন ২০২৩, ২০ জিলকদ ১৪৪৪

আইন ও আদালত

পানীয়-নারীতে অজ্ঞান শাকিব, ভয়ে দেন মোটা চাঁদা

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৯১২ ঘণ্টা, মার্চ ২৩, ২০২৩
পানীয়-নারীতে অজ্ঞান শাকিব, ভয়ে দেন মোটা চাঁদা ছবি: নাজমুল আহসান তালুকদার

ঢাকা: হত্যার হুমকি ও চাঁদা দাবির অভিযোগে অস্ট্রেলিয়াপ্রবাসী ‘প্রযোজক’ মোহাম্মদ রহমত উল্লাহর বিরুদ্ধে মামলা করেছেন ঢাকাই সিনেমার নায়ক শাকিব খান। বৃহস্পতিবার (২৩ মার্চ) বেলা সোয়া ১১টার দিকে ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আরফাতুল রাকিবের আদালতে মামলাটি করেন তিনি।

আদালত তার জবানবন্দি গ্রহণ করে মোহাম্মদ রহমত উল্লাহকে আগামী ২৬ এপ্রিল আদালতে হাজির হতে সমন জারি করেছেন।

মামলার এজাহারে সূত্রে জানা গেছে, শিবা আলী খানের পরিবর্তে বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত অস্ট্রেলিয়ান এক নারীর সঙ্গে শাকিবকে অভিনয়ের প্রস্তাব দেন নিজেকে প্রযোজক দাবি করা রহমত উল্লাহ। সেটি প্রত্যাখ্যান করায় কৌশলে ওই নারীকে তার ঘরে পাঠানো হয়। চিত্রনায়ক এ সময় অজ্ঞান ছিলেন। এরপরই ভিডিও প্রকাশের ভয় দেখিয়ে নায়কের কাছে বড় অংকের চাঁদা দাবি করেন রহমত।

মামলার আর্জিতে শাকিব বলেছেন, চার বছর আগে ‘অপারেশন অগ্নিপথ’ সিনেমায় অভিনয় করতে চুক্তিবদ্ধ হন শাকিব। সিনেমায় তার বিপরীতে নায়িকা হওয়ার কথা ছিল শিবা আলী খানের। শুটিংয়ের জন্য ২০১৬ সালের ৩০ আগস্ট অস্ট্রেলিয়া যান শাকিব। কিন্তু ভিসা জটিলতার কারণে শিবা আলী খান অস্ট্রেলিয়ায় যেতে পারেননি। এ সময় বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত অস্ট্রেলীয় এক নারীকে নায়িকা বানানোর প্রস্তাব দেন প্রযোজক। তবে শাকিব তার ক্যারিয়ারের কথা চিন্তা করে বিষয়টি নাকচ করে দেন।

পরে আসামি রহমত উল্লাহ কৌশলে বাদীর সঙ্গে সম্পর্ক গড়ে তোলেন। সেই সূত্রে একদিন শুটিং শেষে শাকিবকে রিফ্রেশমেন্টের জন্য ক্লাবে নিয়ে যান। সেখানে ওই নারীসহ আরও দু-তিনজন অপরিচিত ব্যক্তিকে দেখেন শাকিব। পরে রহমত উল্ল্যাহসহ অন্যদের সঙ্গে ক্লাবে খাওয়া-দাওয়া ও বিভিন্ন পানীয় পান করেন। এক পর্যায়ে অসুস্থবোধ করেন শাকিব। তাই নিজ হোটেলে ফিরে যেতে চান। বিদায় নেওয়ার সময় তিনি রহমত উল্ল্যাহ ও অন্যদের খুঁজে পাননি। তাই গভীর রাতে অসুস্থ শাকিবকে ওই নারী হোটেলে দিতে আসেন।

এজাহারে শাকিব বলেছেন, তিনি অজ্ঞান হয়ে পড়লে ওই অবস্থায় হোটেলে হয়তো তারা কোনো আপত্তিকর কিছু করে ভিডিও করে রাখতে পারে বলে আশঙ্কা ছিল তার। পরে রহমত উল্লাহ এবং ওই নারী ভিডিও প্রকাশের ভয় দেখিয়ে তার কাছ থেকে এক লাখ অস্ট্রেলিয়ান ডলার চাঁদা দাবি করেন। চাঁদা না দিলে তার বিরুদ্ধে অস্ট্রেলিয়ায় মামলার হুমকি ও দেশে ফেরা বন্ধ করে দেওয়ার ভয় দেখান। ক্যারিয়ার ও মানসম্মানের ভয়ে তিনি বাংলাদেশি মুদ্রায় ৪০ লাখ টাকা রহমত উল্লাহকে দেন।

একপর্যায়ে চাঁদা দেওয়া বন্ধ করে দিলে আসামি রহমত উল্লাহ বিভিন্ন জায়গায় ইলেক্ট্রনিক মিডিয়া, প্রিন্ট মিডিয়া, বিভিন্ন ইউটিউব চ্যানেল, সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ও শাকিবের পরিবারের সদস্যদের কাছে মিথ্যাচার ও কুৎসা রটাতে থাকেন। এরপর ২০২৩ সালের ১৬ মার্চ রহমত উল্ল্যাহ চিত্রনায়ক শাকিব খানের কাছে এক লাখ ডলার চাঁদা দাবি করেন ও প্রাণনাশের হুমকি দেন।

এদিকে অস্ট্রেলিয়ায় নিজের বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রসঙ্গে শাকিব খান আর্জিতে বলেন, অস্ট্রেলিয়ান পুলিশ বাদীর কোনো অপরাধের প্রমাণ পায়নি। তবে তিনি ‘হানি ট্র্যাপে’ পড়েছেন উল্লেখ করে এসব চক্র সম্পর্কে পুলিশ তাকে সতর্ক করে দিয়েছিল।

উল্লেখ্য, গত ১৫ মার্চ বিকেলে সশরীরে বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতিতে হাজির হয়ে শাকিব খানের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ করেন রহমত উল্ল্যাহ। অভিযোগে বলা হয়, ২০১৭ সালে অস্ট্রেলিয়ায় অপারেশন অগ্নিপথ সিনেমার শুটিংয়ের সময় এক নারী সহ-প্রযোজককে ‘ধর্ষণ’ করেন শাকিব খান। পরে তিনি দেশে পালিয়ে আসেন। এরপরই বিষয়টি নিয়ে বিনোদন জগতে ব্যাপক আলোচনা-সমালোচনা শুরু হয়।

বাংলাদেশ সময়: ১৯০৮ ঘণ্টা, মার্চ ২৩, ২০২৩
কেআই/এমজে

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa