ঢাকা, রবিবার, ১৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ২৮ নভেম্বর ২০২১, ২২ রবিউস সানি ১৪৪৩

আইন ও আদালত

স্ত্রীকে লিখে দিলেন জমি, চাকরি ফিরে পাচ্ছেন সেই স্বামী 

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০২৮ ঘণ্টা, অক্টোবর ২৬, ২০২১
স্ত্রীকে লিখে দিলেন জমি, চাকরি ফিরে পাচ্ছেন সেই স্বামী 

ঢাকা: যৌতুকের দাবিতে রাজশাহীর এক ফায়ারম্যানের নামে নির্যাতন মামলা করেছিলেন স্ত্রী। সেই মামলা চূড়ান্ত ধাপে এসে আপিল বিভাগে শুনানির জন্য উঠে।

ওই শুনানিতে আপোষের জন্য আবেদন করেন স্বামী। এই আবেদনের পর আদালতের অভিপ্রায় অনুসারে তিনি স্ত্রীকে লিখে দেন জমি।

আর সেটি উপস্থাপনের পর মঙ্গলবার (২৬ অক্টোবর) সেই মামলা নিষ্পত্তি করে রায় দেন প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বে আপিল বেঞ্চ।

ফায়ারম্যানের পক্ষে আইনজীবী ছিলেন রুহুল কুদ্দুস কাজল ও রাষ্ট্রপক্ষে ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল বিশ্বজিত দেবনাথ শুনানি করেন।  

ওই মামলার পর চাকরি থেকে বরখাস্ত হয়েছিলেন ফায়ারম্যান । পরে দেশের সর্বোচ্চ আদালতে হাজির হয়ে অঙ্গীকার করেছিলেন স্ত্রীকে আর নির্যাতন করবেন না। সেই অঙ্গীকারের প্রেক্ষিতে আদালতের অভিপ্রায় অনুসারে স্ত্রীকে লিখে দিয়েছিলেন আট শতাংশ জমি। সেই কাগজপত্রও দাখিল করেন আদালতে। পাশাপাশি আদালতে হাজির হয়ে সুখী দাম্পত্য জীবনের প্রতিশ্রুতি দেওয়ায় এখন চাকরি ফেরত পেতে যাচ্ছেন সেই ফায়ারম্যান স্বামী।  

আদালত বলেছেন, আমরা চাই আপনারা দুইজন (স্বামী-স্ত্রী) ভালোভাবে থাকুন। এতে সবচেয়ে লাভবান হবে আপনাদের সন্তান। সে বাবা ও মা দুইজনকেই একসঙ্গে কাছে পাবে। সঠিকভাবে বেড়ে উঠতে পারবে।

এই মামলায় রাজশাহী আদালতে স্বামীর সাজা হয় এবং চাকরি থেকে বরখাস্ত হন। পরে স্বামী হাইকোর্টে আপিল করেন। হাইকোর্ট আপিল মঞ্জুর করে  ওই নারীর স্বামীকে খালাস দেন।  

হাইকোর্টের ওই খালাসের রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করে রাষ্ট্রপক্ষ। অন্যদিকে মামলা খারিজ চেয়ে আপিল বিভাগে একটি আপোষের আবেদন দেন স্বামী।

গত ২৫ সেপ্টেম্বর ওই মামলার শুনানিকালে আপিল বিভাগে হাজির হয়ে স্ত্রী বলেন, আমার একটা সন্তান আছে, আমি চেয়েছিলাম স্বামী যেন আমার সঙ্গে ভালো আচরণ করেন। কিন্তু সে তা করেনি। যেহেতু আর নির্যাতন করবে না বলছে সেজন্য সন্তানের মুখের দিকে তাকিয়ে আপোষের সিদ্ধান্তে পৌঁছেছি।

তখন আপিল বিভাগ বলেন, আপোষের পরও যদি আপনাকে নির্যাতন করে তখন কি করবেন? জবাবে ওই নারী বলেন, তাহলে সেটা আমার নসিব। এখন তাকে বিশ্বাস করা ছাড়া আমার আর কিছু করার নাই। আমি আমার স্বামীকে নিয়ে বাঁচতে চাই। তখন আদালত ওই স্বামীকে উদ্দেশ্যে করে বলেন, আপনার স্ত্রীকে দুর্বল মনে করবেন না। আমরা চাই সংসারটা টিকুক। একে অপরের সঙ্গে ভালো ব্যবহার করবেন। একজন বলছেন এক হাতে তালি বাজে না। আমরা চাই আগামীতে যেন কোনো হাতেই আর তালি না বাজে। সেই ধারাবাহিকতায় মঙ্গলবার মামলাটি আদেশের জন্য কার্যতালিকায় আসে। আদালতে স্বামী ও স্ত্রী দুইজনেই হাজির ছিলেন।  

বাংলাদেশ সময়: ১৮৩৫ ঘণ্টা, অক্টোবর ২৬, ২০২১
ইএস/এএটি

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa