ঢাকা, বুধবার, ১৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ২৯ মে ২০২৪, ২০ জিলকদ ১৪৪৫

অফবিট

দূষণ ঠেকাতে অভিনব পদক্ষেপ: বাসের ভাড়া প্লাস্টিক!

অফবিট ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৮৫৬ ঘণ্টা, আগস্ট ২১, ২০১৯
দূষণ ঠেকাতে অভিনব পদক্ষেপ: বাসের ভাড়া প্লাস্টিক! বাসের টিকিট মিলছে প্লাস্টিকের বোতল বা কাপ দিয়ে। ছবি: সংগৃহীত

একটা সময় ভাঙ্গারি ব্যবসায়ীদের কাছে প্লাস্টিক, লোহা-লক্কড় দিয়ে গ্রামাঞ্চলে মুখরোচক বিভিন্ন খাবার পাওয়া যেতো। এখনো পাওয়া যায় অনেক গ্রামে। কিন্তু প্লাস্টিকের বোতল-কাপ দিয়ে বাস ভাড়া শোধ করা যাবে, এ ব্যাপারটি কি অভিনব নয়?

পরিবেশ দূষণরোধে এমন অভিনব পদক্ষেপই নিয়েছে ইন্দোনেশিয়ার সুরাবাইয়া শহরের কর্তৃপক্ষ। সেখানে দশটি প্লাস্টিকের কাপ বা পাঁচটি মাঝারি মাপের বোতল অথবা তিনটি বড় বোতল দিলেই মিলছে এক ঘণ্টা ফ্রি বাস রাইডের টিকিট।

অবশ্য বোতল বা কাপগুলো হতে হবে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন।

একটি ব্যস্ত বাস টার্মিনালে দেখা যায়, হাতে ব্যাগভর্তি প্লাস্টিকের বোতল-কাপ নিয়ে দাঁড়িয়ে আছেন ডজনখানেক যাত্রী। কারণ হিসেবে জানা গেলো, এখানে পরিত্যক্ত প্লাস্টিকের বিনিময়ে পাওয়া যাচ্ছে ফ্রি বাস রাইডের টিকিট। সাড়া ফেলেছে কর্তৃপক্ষের এ পদক্ষেপ।  ছবি: সংগৃহীতআন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমের খবরে বলা হয়, সমুদ্র দূষণের দিক দিয়ে বিশ্বে দ্বিতীয় দ্বীপরাষ্ট্র ইন্দোনেশিয়া। কর্তৃপক্ষ চায়, ২০২৫ সালের মধ্যে তারা এই দূষণ ৭০ শতাংশ কমিয়ে আনবে। আর তা সম্ভব হবে প্লাস্টিক বর্জ্য পুনঃপ্রক্রিয়াজাতকরণ ও মানুষকে সচেতন করে তোলার মাধ্যমে।

সুরাবাইয়া শহরে প্রায় ২৯ লাখ মানুষের বসবাস। এখানে প্রতি সপ্তাহে প্লাস্টিক বর্জ্য দিয়ে ফ্রি টিকিট সংগ্রহ করেন প্রায় ১৬ হাজার যাত্রী। পরিবেশ সুরক্ষায় এটাকে চমৎকার সিদ্ধান্ত হিসেবে দেখা হচ্ছে।

কর্তৃপক্ষ জানায়, প্রতি মাসে প্রায় ছয় টনের মতো প্লাস্টিক বর্জ্য এভাবে সংগ্রহ করা হচ্ছে।

নূরহায়াতি আনওয়ার নামে এক বাসিন্দা প্রতিসপ্তাহে একবার এ টিকিট সংগ্রহ করে ভ্রমণ করেন। সঙ্গে থাকে তার তিন বছরের ছেলে শিশু। নূরহায়াতির মতে, এখন মানুষ অফিসে বা বাসায় প্লাস্টিকের বোতল-কাপ ফেলে না দিয়ে বরং সংগ্রহে রাখার চেষ্টা করে। আমরা জানি প্লাস্টিক বর্জ্য পরিবেশের জন্য মোটেও ভালো কিছু নয়। সুরাইবায়া শহরের মানুষেরা বিষয়টি উপলব্ধি করতে পারছেন।

প্রায় ১৭ হাজার দ্বীপ নিয়ে গঠিত ইন্দোনেশিয়ার বাকি অঞ্চলগুলো প্লাস্টিক বর্জ্য নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করে যাচ্ছে।

২০১৬ সালে অ্যালেন ম্যাকআর্থার ফাউন্ডেশন সতর্ক করে এক প্রতিবেদনে বলেছিল, ২০৫০ সালের মধ্যে সাগরে মাছের চেয়ে বেশি হবে প্লাস্টিক বর্জ্য। বছরে প্রায় আট মিলিয়ন টন প্লাস্টিক বর্জ্য সমুদ্রে ফেলা হয়। যা প্রতি মিনিটি একটি করে বর্জ্য বোঝাই ট্রাক সমুদ্রে নিক্ষেপ করার মতো। যদি যথাযথ পদক্ষেপ নেওয়া না হয় তবে ২০৩০ সালে এটি বেড়ে হবে দু’টি ট্রাক আর ২০৫০ সালে এ সংখ্যা গিয়ে দাঁড়াবে চারে।

বাংলাদেশ সময়: ১৪৫৫ ঘণ্টা, আগস্ট ২১, ২০১৯
এইচএডি/এইচএ/

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।