ঢাকা, সোমবার, ১১ কার্তিক ১৪২৭, ২৬ অক্টোবর ২০২০, ০৮ রবিউল আউয়াল ১৪৪২

অন্যান্য দল

পাটকল বন্ধের সিদ্ধান্ত প্রত্যাহারের দাবি এলডিপি’র

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৬০২ ঘণ্টা, জুলাই ২, ২০২০
পাটকল বন্ধের সিদ্ধান্ত প্রত্যাহারের দাবি এলডিপি’র ফাইল ছবি

ঢাকা: পাটকল বন্ধের সিদ্ধান্ত প্রত্যাহার করে কথিত গোল্ডেন হ্যান্ডশেক প্রক্রিয়ায় শ্রমিক বিদায়ের ঘোষণা বাতিলের দাবি জানিয়েছে ২০ দলীয় জোটের শরিক লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টির (এলডিপি) একাংশ।

বৃহস্পতিবার (২ জুলাই) পাটকল বন্ধ ও শ্রমিক ছাঁটাইয়ের ঘোষণার প্রতিবাদে গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে এ দাবি জানান এলডিপি’র একাংশের সভাপতি আবদুল করিম আব্বাসী ও মহাসচিব শাহাদাত হোসেন সেলিম।

নেতারা বলেন, করোনাকালে রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকল বন্ধ করে ৫০ হাজার শ্রমিককে কর্মহীন করা এবং লক্ষাধিক মানুষকে নতুন করে দারিদ্র্যের মধ্যে ঠেলে দেয়া
এই সরকারের চরম নিষ্ঠুরতার বহিঃপ্রকাশ।

একদিকে ৮-১০ লাখ পোশাক শ্রমিক চাকরি হারানোর শঙ্কায় আছে, প্রায় ৩ কোটি লোক নতুন করে দারিদ্র্যসীমায় নেমে এসেছে, তখন পাটকল শ্রমিক ও ওই অঞ্চলের মানুষদের অনিশ্চয়তার মধ্যে ঠেলে দেয়া কোনোভাবেই সহ্য করা যায় না।

নেতৃদ্বয় আরও বলেন, পাটমন্ত্রী লোকসানের কথা বলে শ্রমিকদের ওপর তার দায় চাপিয়ে দেশবাসীকে বিভ্রান্ত করার চেষ্টা করছেন। অথচ লোকসানের জন্য দায়ী বিজেএমসি নামক মাথাভারী প্রশাসন; যারা পাট ক্রয়ে দুর্নীতি, মৌসুমে পাট সরবরাহে অনিয়ম, অসময়ে বেশি দামে পাট ক্রয় এবং উৎপাদিত পাটপণ্য বিপণনে ব্যর্থতা দেখিয়েছে তাদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেয়া হয়নি।

এলডিপি নেতারা বলেন, লোকসানের প্রধান কারণ শ্রমিক নয়, কারণ হচ্ছে দুর্নীতি, কারখানাগুলো আধুনিকায়ন না করা, উৎপাদনশীলতা বৃদ্ধি না হওয়া। সেটার সমাধান না করে কারখানা বন্ধ করা কোনো সমাধান নয়। সরকার কি আমলাতন্ত্রের দুর্নীতি বন্ধ করতে পেরেছে? প্রতিটি নিয়োগে, প্রতিটি বদলিতে, প্রতিটি পদোন্নতিতে যে দুর্নীতি হয়, তা কি বন্ধ করতে পেরেছে? তাহলে তো সরকারকেই বন্ধ করে দিতে হয়। সুতরাং দুর্নীতির দোহাই দিয়ে সব দায় শ্রমিকের ওপর চাপানো চলবে না।

বাংলাদেশ সময়: ১৬০১ ঘণ্টা, জুলাই ০২, ২০২০
এমএইচ/এমজেএফ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa