ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩০, ০৮ জুন ২০২৩, ১৯ জিলকদ ১৪৪৪

রাজনীতি

'উন্নয়নের নামে মুষ্টিমেয় মানুষ আঙুল ফুলে কলাগাছ হচ্ছে'

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ০১০৫ ঘণ্টা, মার্চ ২৩, ২০২৩
'উন্নয়নের নামে মুষ্টিমেয় মানুষ আঙুল ফুলে কলাগাছ হচ্ছে'

ঢাকা: জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান ও বিরোধীদলীয় উপনেতা জিএম কাদের এমপি বলেছেন, বর্তমানে দেশে অবকাঠামোগত উন্নয়ন হচ্ছে। কিন্তু প্রকৃত উন্নয়ন হচ্ছে সব মানুষের জীবন মানের উন্নয়ন।

এটি শুধু পল্লীবন্ধুর দেশ পরিচালনার সময়ে হয়েছিলো। এখন গণমুখী উন্নয়ন হচ্ছে না। উন্নয়নের নামে মুষ্টিমেয় মানুষ আঙুল ফুলে কলাগাছ হচ্ছে। দেশের সাধারণ মানুষ এই উন্নয়নের স্বাদ পাচ্ছে না। দেশকে যদি দেহ ধরা হয় তাহলে বর্তমানে উন্নয়নের নামে রক্তশূন্য দেহে গয়না পরানো হচ্ছে।  

বুধবার (২২ মার্চ) বিকেলে ইনস্টিটিউশন অব ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্স (আইডিইবি) মিলনায়তনে হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের ৯৪তম জন্মদিন উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভায় সভাপতির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।  

তিনি বলেন, দেশের জীবনীশক্তি শুষে খাওয়া হচ্ছে। সঠিকভাবে তদন্ত করলে প্রচুর অনিয়ম, দুর্নীতি ও অপচয় এর প্রমাণ বেরিয়ে আসবে। সাধারণ মানুষ বর্তমান উন্নয়নের স্বাদ পাচ্ছে না। প্রতিদিন দেশের মানুষ দরিদ্র থেকে আরও দরিদ্র হচ্ছে। দেশের মানুষ উন্নয়নের স্বাদ থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। ওর্য়াল্ড ব্যাংকের তথ্য মতে দেশের  ১শো টাকা আয় হলে ধনী শ্রেণির আয় হয় ২৮ টাকা। আর সর্ব শতকরা ৫ ভাগ নিম্ন শ্রেণির আয় হয় মাত্র ২৩ পয়সা। উন্নয়নের নামে দেশে বৈষম্য সৃষ্টি করা হয়েছে। এটাকে আমরা উন্নয়ন বলতে পারি না।  

তিনি আরও বলেন, নতুন বাংলাদেশ গড়ার স্বপ্ন ছিলো পল্লীবন্ধুর। উন্নততর বাংলাদেশ গড়ার স্বপ্ন ছিলো তার । কল্যাণমূখী উন্নয়নের চেষ্টা করেছেন তিনি। কাঠামোগত ও সংস্কারগত উন্নয়ন করেছেন। সারাদেশে কাঠামোগত উন্নয়ন করেছেন যা এখনো মানুষের চোখে পড়ে।  

জিএম কাদের বলেন, ৩২ বছর ক্ষমতা রাইরে থেকেও জাতীয় পার্টি রাজনীতিতে টিকে আছে। দেশের মানুষ জাতীয় পার্টির দিকে তাকিয়ে আছে। মানুষের ভালোবাসায় সিক্ত ছিলেন পল্লীবন্ধু। তাই প্রতিপক্ষরা তাকে নানা অপবাদ দিয়েও সফল হয়নি। কোনো ষড়যন্ত্রই সফল হয়নি।  

অনুষ্ঠানে জাতীয় পার্টির সিনিয়র কো-চেয়ারম্যান ব্যারিস্টার আনিসুল ইসলাম মাহমুদ এমপি বলেছেন, বিচারপতি শাহাবুদ্দিন প্রতিশ্রুত ভঙ্গ করে পল্লীবন্ধুকে মন্ত্রী, এমপি সহ কারাগারে পাঠিয়েছিলেন। কোনো অধিকার পায়নি জাতীয় পার্টি।  

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সভাপতি বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী বলেছেন, যারা সেনাবাহিনী থেকে রাজনীতিতে এসেছেন, হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ ছাড়া আমি সবাইকে ঘৃণা করি। এরশাদ সাহেবকে শ্রদ্ধা করি ভালোবাসি শুধু এই কারণে, তিনি জেলে থেকেও ৫টি করে আসনে এমপি হয়েছেন দুই বার।  

সাবেক মন্ত্রী ও জাতীয় পার্টি জেপি মহাসচিব শেখ শহিদুল ইসলাম বলেছেন, পল্লীবন্ধু এরশাদ ছিলেন এক দূরদর্শী রাষ্ট্রনায়ক। রাজনৈতিক দর্শন ছিলো তার।  

জাতীয় পার্টি মহাসচিব মো. মুজিবুল হক চুন্নু এমপি বলেছেন, আওয়ামী লীগ ও বিএনপির মাঝে চরিত্রগত কোন তফাৎ নেই। ক্ষমতায় গেলে তারা দুর্নীতি, দুঃশাসন, টেন্ডারবাজি ও দলবাজি করে।  

জাতীয় পার্টির কো-চেয়ারম্যান এবিএম রুহুল আমিন হাওলাদার বলেছেন, পল্লীবন্ধু হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ মাটি ও মানুষের জন্য রাজনীতি করেছেন। পল্লীবন্ধু সব সময় গণমানুষের প্রত্যাশা পূরণ করতেই রাজনীতি করেছেন।  

জাতীয় পার্টির কো-চেয়ারম্যান কাজী ফিরোজ রশিদ এমপি বলেছেন, আওয়ামী লীগ ও বিএনপি দেশে লুটপাটের রাজনীতি কায়েম করেছে। কম বাজেটে গণমানুষের ভাগ্যের উন্নয়নে পল্লীবন্ধু যে দৃষ্টান্ত স্থাপণ করেছেন সেই রেকর্ড এখনও কেউ ভাঙতে পারেনি।  

জাতীয় পার্টির কো-চেয়ারম্যান সৈয়দ আবু হোসেন বাবলা এমপি বলেছেন, সেনা সদস্য থেকে রাজনীতির মাঠে যে সাফল্য দেখিয়েছেন পল্লীবন্ধ তা ইহিতাসে দৃষ্টান্ত হয়ে আছে। তিনি রাষ্ট্র ক্ষমতা গ্রহণ করে দেশকে অন্ধকার থেকে বাঁচিয়ে ছিলেন।  

বাংলাদেশ সময়: ০১০৫ ঘণ্টা, মার্চ ২৩, ২০২৩
জেএইচ

এসএমএকে/জেএইচ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa