ঢাকা, শনিবার, ৯ আশ্বিন ১৪২৯, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২২, ২৬ সফর ১৪৪৪

রাজনীতি

বিএনপিকে হারিকেন দিয়েও খুঁজে পাওয়া যাবে না: তথ্যমন্ত্রী

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৫৪৮ ঘণ্টা, আগস্ট ১২, ২০২২
বিএনপিকে হারিকেন দিয়েও খুঁজে পাওয়া যাবে না: তথ্যমন্ত্রী

রাজশাহী: তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, বিএনপি এখন ধানের শীষ বাদ দিয়ে মুসলিম লীগের প্রতীক হারিকেন ধরেছে। তাই কয়েকদিন পর মুসলিম লীগের মতো বিএনপিকেও আর হারিকেন দিয়ে খুঁজে পাওয়া যাবে না।

আর রাস্তা বন্ধ করে সমাবেশ করে আপনারা জাতিকে যতই বিভ্রান্ত করুন, লাভ হবে না। আন্দোলনে সরকার নয়, বিএনপিই ভেসে যাবে।

শুক্রবার (১২ আগস্ট) দুপুরে রাজশাহীর মোহনপুর সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৭তম শাহাদাতবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত শোক সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বলেন, গোটা পৃথিবীতেই এখন সংকট চলছে। রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে জ্বালানি তেলের মূল্য ৭০ থেকে ১০০ শতাংশ বেড়েছে। সে কারণে বাংলাদেশেও জ্বালানি তেলের দাম বেড়েছে। যখন পৃথিবীতে স্থিতিশীলভাবে দাম কমবে, তখন বাংলাদেশেও কমবে। তাই এ বৈশ্বিক মন্দায় তেলের দাম বাড়া নিয়ে কারও মাঠ গরম করার সুযোগ নেই। কিন্তু বিএনপিসহ কিছু দল ও প্রতিষ্ঠান জ্বালানি তেলের মূল্য নিয়ে দেশে বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে। এ মহলটি সব সময়ই বিভ্রান্তি ছড়ায়। পদ্মা সেতু থেকে যখন বিশ্বব্যাংক মুখ ফিরিয়ে নিলো তখন টিআইবি, সিপিডি এরা লাফিয়ে লাফিয়ে অনেক বক্তব্য দিয়েছে। বিএনপিও লাফিয়ে লাফিয়ে বক্তব্য রাখছিল আর বিএনপির সঙ্গে সিপিডি, টিআইবি এরাও লাফাচ্ছিল। আজকে জ্বালানি তেলের মূল্য সমন্বয় করা হয়েছে। আমাদের দেশে ডিজেলের মূল্য ১১৪ টাকা, কলকাতায় সেটি ১১৬ টাকা। অর্থাৎ তাদের চেয়ে এখনও দাম কম আছে।

তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী বলেন, আজকে সমগ্র দেশ বদলে গেছে। শুধু তাই নয় প্রতিটি মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন হয়েছে। এখানে একজন মানুষও ছেড়া কাপড় পরে নেই। আকাশ থেকেও কুড়ে ঘর দেখা যায় না। খালি পায়ে আর মানুষ দেখা যায় না। এগুলো কোনো যাদুর কারণে হয়নি। এটি হয়েছে একমাত্র প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিচক্ষণ নেতৃত্বের কারণেই।

প্রধানমন্ত্রী মাতৃকালীন ভাতা, স্বামী পরিত্যক্তা ভাতা ও বিধবা ভাতার প্রচলন করেছেন। আজকে সেই কারণে মা ও বোনদের ক্ষমতায়ন হয়েছে। এটি একমাত্র প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাই করেছেন। খালেদা জিয়াও প্রধানমন্ত্রী ছিলেন কিন্তু স্বামী পরিত্যক্ত ভাতা, মাতৃত্বকালীন ভাতা দেননি। সব উন্নয়নের কারণে আজকে বাংলাদেশ বদলে গেছে। মানুষ বলে চট্টগ্রাম উন্নত এলাকা। কিন্তু আমার মনে হচ্ছে রাজশাহী অঞ্চল চট্টগ্রামের তুলনায় অনেক উন্নত। রাজশাহী থেকে মোহনপুর আসার রাস্তা আগে ছিল দুই লেনের। বর্তমানে সেটি চার লেনে উন্নীত করা হচ্ছে।

ড. হাছান মাহমুদ বলেন, তারা গত কয়েকদিন ধরে যেভাবে কথাবার্তা বলছেন এটি জনগণকে বিভ্রান্ত করার শামিল। আমি আশা করবো তারা জনগণকে বিভ্রান্ত করার এ অপচেষ্টা থেকে বেরিয়ে আসবেন। যখন বিশ্ব বাজারে স্থিতিশীলভাবে জ্বালানি তেলের মূল্য কমবে তখন সরকার আবার মূল্য সমন্বয় করবে।

শোক সভায় বক্তব্যের শুরুতে বঙ্গবন্ধু ও তার পরিবারের শহীদ সদস্যদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জানিয়ে তথ্যমন্ত্রী বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের হত্যাকাণ্ড ইতিহাসে অন্যতম জঘন্যতম একটি হত্যাকাণ্ড। বঙ্গবন্ধু যখন যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশকে পুনর্গঠন করে সমৃদ্ধির দিকে নিয়ে যাচ্ছিলেন তখনই বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করা হয়েছিল। যারা বাংলাদেশ চায়নি তারা বাংলাদেশকে হত্যা করার উদ্দেশে ৭৫’র ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করেছিল। সেই খুনিচক্র বঙ্গবন্ধুর ছায়াকেও ভয় পেতে বলেই ১০ বছরের নিষ্পাপ শিশু রাসেলকে হত্যা করেছিল। বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ডের পর পাকিস্তানের সঙ্গে কনফেডারেশন করার, জাতীয় পতাকা, জাতীয় সংগীত পরিবর্তনের এবং রেডিও, টেলিভিশনসহ সব ক্ষেত্রে পাকিস্তানি ভাবধারা ফিরিয়ে আনার অপচেষ্টা হয়েছিল। তখন থেকে জাতি এক জায়গায় ঘুরপাক খেয়েছিল দীর্ঘ ২০ বছর। সেই অচলাবস্থা ভেঙেছেন বঙ্গবন্ধু কন্যা। ১৯৯৬ সালে আবার সরকার গঠন করার মধ্য দিয়ে ও ২০০৮ সালে সরকার গঠন করার মধ্য দিয়ে বাংলাদেশ সাড়ে ১৩ বছরে যেভাবে এগিয়ে গেছে আজকে বাংলাদেশ পৃথিবীর সামনে একটি গর্বিত রাষ্ট্র।

বিএনপিকে উদ্দেশ্য করে তথ্যমন্ত্রী বলেন, তারা দেশে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি সৃষ্টি করতে চায়, বাংলাদেশকে বিশ্বের বুকে সন্ত্রাসী দেশ হিসেবে প্রমাণ করতে চায়। তারা আরেকটি ১৫ আগস্ট সৃষ্টি করতে চায়। কিন্তু আওয়ামী লীগ একটি বৃহত্তম দল। এ দলের নেতাকর্মীরা বেঁচে থাকতে তাদের এ আশা কোনো দিন পূরণ হবে না।

মোহনপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট আব্দুস সালামের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ মফিজ উদ্দিন কবিরাজের পরিচালনায় এতে প্রধান বক্তা ছিলেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম। বিশেষ বক্তা ছিলেন রাজশাহী-৩ (পবা-মোহনপুর) আসনের সংসদ সদস্য মো. আয়েন উদ্দিন, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাবেক সংসদ সদস্য আব্দুল ওয়াদুদ দারা, সংসদ সদস্য সাইমুম সারওয়ার কমল। এছাড়া রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ডাবলু সরকারসহ জেলা ও উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

বাংলাদেশ সময়: ১৫৪৬ ঘণ্টা, আগস্ট ১২, ২০২২
এসএস/আরবি

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa