ঢাকা, বুধবার, ২০ আশ্বিন ১৪২৯, ০৫ অক্টোবর ২০২২, ০৮ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪

রাজনীতি

বুয়েটে ছাত্রলীগের প্রোগ্রামে সাধারণ শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ

ইউনিভার্সিটি করেসপন্ডেন্ট, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২২৪৯ ঘণ্টা, আগস্ট ১৩, ২০২২
বুয়েটে ছাত্রলীগের প্রোগ্রামে সাধারণ শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভ ছবি: কবির আবরার

ঢাকা: বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট) ছাত্রলীগের সাবেক নেতাদের শোক দিবসের আলোচনা সভাকে ঘিরে বিক্ষোভ প্রদর্শন করেছে সাধারণ শিক্ষার্থীরা।

শনিবার (১৩ আগস্ট) বুয়েট ক্যাফেটেরিয়া সংলগ্ন সেমিনারে এই সভা অনুষ্ঠিত হয়।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, আলোচনা সভার খবর পেয়ে সাধারণ শিক্ষার্থীরা ক্যাফেটেরিয়ার বাইরে বিভিন্ন প্ল্যাকার্ড হাতে অবস্থান নেয়। পরবর্তীতে সভাশেষে ছাত্রলীগের নেতারা যখন বের হয় তখন শিক্ষার্থীরা স্লোগান দিতে থাকে।

এসময় সাধারণ শিক্ষার্থীরা “সাংগঠনিক ছাত্ররাজনীতির পুনরুত্থানের আশংকা বুয়েটের সাধারণ শিক্ষার্থীদের বিবৃতি” শিরোনামে লিখিত বক্তব্য উপস্থাপন করে।

এতে বলা হয়, ১৯৭৫ সালে এই মাসের ১৫ তারিখ বাঙালি হারায় হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ সন্তান জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে। তার আদর্শ অনুসরণ করেই আমরা নিরন্তর কাজ করে চলেছি বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলাকে গড়ে তুলতে। তারই ধারাবাহিকতায় নিরাপদ এবং সন্ত্রাসমুক্ত শিক্ষাঙ্গন নিশ্চিত করা সকল শিক্ষার্থীর মৌলিক চাহিদার মধ্যে অন্যতম। অথচ দুঃখজনক হলেও সত্য যে, যে ছাত্ররাজনীতি একসময় দেশের ক্রান্তিলগ্নে অগ্রগণ্য ভূমিকা রেখেছিল, পরাধীনতার হাত থেকে মুক্ত করে জন্ম দিয়েছিল স্বাধীন বাংলাদেশের, সে ছাত্ররাজনীতি আজ ক্ষমতার অপব্যবহারে কলুষিত।

শিক্ষার্থীরা বলেন, বুয়েট ক্যাম্পাস প্রাঙ্গণে নিরীহ শিক্ষার্থীদের বারবার প্রাণ ঝরেছে লেজুড়বৃত্তিক ছাত্র সংগঠনগুলোর অপকর্মে। সর্বশেষ ২০১৯ সালের ৭ অক্টোবর তৎকালীন ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের নৃশংস অত্যাচারে আবরার ফাহাদ নিহত হন। এর প্রতিবাদে বুয়েটের সকল সাধারণ শিক্ষার্থীর অংশগ্রহণে আন্দোলনের পরিপ্রেক্ষিতে ২০১৯ সালের ১১ অক্টোবর বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ে সকল রাজনৈতিক সংগঠন এবং এর কার্যক্রম কর্তৃপক্ষের নির্দেশক্রমে নিষিদ্ধ করা হয়।

এ বিষয়ে কর্তৃপক্ষের বক্তব্য চেয়ে বলা হয়, বিশ্ববিদ্যালয়ের সুনির্দিষ্ট নীতিমালা থাকা সত্ত্বেও আজ ১৩ আগস্ট সেমিনার হল বুয়েট অডিটোরিয়াম কমপ্লেক্সে বাংলাদেশ ছাত্রলীগ, বুয়েটের সাবেক নেতৃবৃন্দদের আয়োজনে একটি ব্যানার দেখা যায়।  

উল্লেখ্য, ইতঃপূর্বে ২ জুলাই, ২০২২ তারিখ অত্র বিশ্ববিদ্যালয়ের কাজী নজরুল ইসলাম হলে আরিফ রায়হান দিপের স্মৃতিফলকে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের পক্ষ থেকে পুষ্পস্তবক অর্পণ এবং ৮ জুন ২০২২ তারিখ সাবেকুন নাহার সনি’র স্মৃতিফলকে বুয়েট ছাত্রলীগের সাবেক নেতৃবৃন্দের পক্ষ থেকে ব্যানার টানানো হয়। ছাত্ররাজনীতি নিষিদ্ধের সুস্পষ্ট নির্দেশনা থাকা সত্ত্বেও অত্র বিশ্ববিদ্যালয় প্রাঙ্গণে লেজুড়বৃত্তিক ছাত্র সংগঠনের বারবার নিজেদের উপস্থিতি জানিয়ে কার্যক্রম পরিচালনা করা এবং অনুষ্ঠান আয়োজনের অনুমতি পাওয়ায় বুয়েট কর্তৃপক্ষের সদিচ্ছা প্রশ্নবিদ্ধ হচ্ছে।

বাংলাদেশ সময়: ২২৪৮ ঘণ্টা, আগস্ট ১৩, ২০২২
এসকেবি/আরইউ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa