ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৯, ০১ ডিসেম্বর ২০২২, ০৬ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

বিদ্যুৎ ও জ্বালানি

বড়পুকুরিয়া খনি থেকে নির্ধারিত সময়ের আগেই কয়লা তোলা শুরু

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৮২৬ ঘণ্টা, জুলাই ২৭, ২০২২
বড়পুকুরিয়া খনি থেকে নির্ধারিত সময়ের আগেই কয়লা তোলা শুরু

দিনাজপুর: দেশে জ্বালানি সংকট বিবেচনায় নির্ধারিত সময়ের ১৮ দিন আগেই পরীক্ষামূলক উৎপাদন শুরু করেছে দিনাজপুরের বড়পুকুরিয়া কয়লা খনি কর্তৃপক্ষ। প্রায় তিন মাস পর আবার এ উৎপাদন কার্যক্রম শুরু হলো।

বুধবার (২৭ জুলাই) সকাল সাড়ে ৯টায় খনির নতুন ফেজ থেকে পরীক্ষামূলকভাবে কয়লা উত্তোলন শুরু করে কর্তৃপক্ষ। পেট্রোবাংলার চেয়্যারম্যান নাজমুল হাসান ভার্চ্যুয়ালি যুক্ত হয়ে এ কয়লা উত্তোলন উদ্বোধন করেন।  

আগামী চার থেকে পাঁচদিনের মধ্যেই এ খনিতে পূর্ণাঙ্গরূপে উৎপাদন শুরু হবে, যা থেকে প্রতিদিন ২৭০০ থেকে ৩০০০ মেট্রিকটন কয়লা উত্তোলন হবে বলে জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ।

মজুদ শেষ হয়ে যাওয়ায় ১৩১০ নম্বর ফেজ থেকে গত ৩০ এপ্রিল এ খনিতে কয়লা উত্তোলন বন্ধ হয়ে যায়। পরে ফেজটি পরিত্যক্ত ঘোষণা করা হলে পরিত্যক্ত ফেজের ব্যবহারযোগ্য যন্ত্রপাতি স্থানান্তর ও নতুন প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি বসিয়ে ১৩০৬ নম্বর ফেজ থেকে কয়লা উত্তোলন করার প্রক্রিয়া শুরু করে কর্তৃপক্ষ।  

নতুন ফেজ রক্ষণাবেক্ষণ ও উন্নয়ন করে কয়লা উত্তোলনে প্রায় আড়াই মাস সময় লাগবে বলে ওই সময়ে বলা হয়। পরে আগস্টের মাঝামাঝি সময়ে কয়লা উত্তোলনের সময়ও নির্ধারণ করে কর্তৃপক্ষ।

এ বিষয়ে বড়পুকুরিয়া কয়লা খনির ব্যবস্থাপনা পরিচালক সাইফুল ইসলাম সরকার বলেন, আমাদের আগস্টের মাঝামাঝি সময়ে উৎপদন শুরু করার পরিকল্পনা ছিল। তবে জাতীয় সংকট মোকাবিলা করার জন্য যে কোনোভাবে দ্রুত কয়লা উত্তোলন করার জন্য জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগের কর্মকর্তা ও পেট্রোবাংলা চেয়ারম্যানের নির্দেশ ছিল। সেই নির্দেশনা মোতাবেক চীনা ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান ও স্থানীয় শ্রমিকদের দিয়ে এবং কর্মকর্তা-কর্মচারীদের চেষ্টায় তা প্রায় ২০ দিন এগিয়ে নিয়ে আসা হয়েছে।

পেট্রোবাংলার চেয়ারম্যান নাজমুল হাসান জানান, বর্তমানে পরীক্ষামূলকভাবে কয়লা উত্তোলন শুরু হলো। ভূগর্ভের ভেতরে যন্ত্রপাতি বসিয়ে ট্রায়াল দেওয়া হচ্ছে। উৎপাদন শুরু করার পর বেশ কিছু রক্ষণাবেক্ষণের কাজ আছে। আগামী চার/পাঁচদিন সময় লাগবে, পুরোপুরি উৎপাদনের জন্য। আস্তে আস্তে উৎপাদন বাড়বে। আশা করা হচ্ছে, এখান থেকে প্রতিদিন ২৭০০ থেকে ৩০০০ মেট্রিকটন কয়লা উত্তোলন করা যাবে। বর্তমানে সংক্ষিপ্ত আকারে উত্তোলন হচ্ছে। এ ফেজে কয়লা মজুদ আছে চার লাখ টন। আর বর্তমানে উত্তোলনকৃত কয়লার মজুদ আছে ৪০ হাজার মেট্রিকটন।  

বাংলাদেশ সময়: ১৮২৪ ঘণ্টা, জুলাই ২৭, ২০২২
এসআই

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa