ঢাকা, শনিবার, ৭ বৈশাখ ১৪৩১, ২০ এপ্রিল ২০২৪, ১০ শাওয়াল ১৪৪৫

কর্পোরেট কর্নার

নাগরিক সম্পৃক্ততায় যুবকদের ক্ষমতায়নের লক্ষ্যে সেমিনার

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৯২২ ঘণ্টা, ফেব্রুয়ারি ১৯, ২০২৩
নাগরিক সম্পৃক্ততায় যুবকদের ক্ষমতায়নের লক্ষ্যে সেমিনার

ঢাকা: ইন্টারন্যাশনাল রিপাবলিকান ইনস্টিটিউট (আইআরআই) এবং ইউএসএআইডির সহযোগিতায় জাগো ফাউন্ডেশনের আয়োজিত সম্প্রতি জাতীয় নাগরিক সচেতনতা সেমিনার শেষ হয়েছে। একটি ট্রেনিং প্রোগ্রাম যার লক্ষ্য নাগরিক শিক্ষার প্রচার এবং তরুণদের তাদের সম্প্রদায়ের সঙ্গে জড়িত হওয়ার জন্য ক্ষমতায়ন করা।

নাগরিক শিক্ষার গুরুত্ব ও তরুণদের ক্ষমতায়নের জন্য কীভাবে এটিকে কাজে লাগানো যেতে পারে তা অন্বেষণ করতে সেমিনারটি বিভিন্ন পেশাজীবী, তরুণ নেতা ও নাগরিক শিক্ষা এবং নীতির ক্ষেত্রে বিশেষজ্ঞদেরসহ বিভিন্ন ব্যক্তিদের একত্রিত করেছে।

সেমিনারে ‘এলিভেটিং ইয়ুথ ভয়েস: অ্যা প্যানেল অন ইয়ুথ এমপাওয়ারমেন্ট থ্রু সিভিক এনগেজমেন্ট’ নামে একটি প্যানেল আলোচনা দেখানো হয়েছে যা সঞ্চালনা করেছেন জাগো ফাউন্ডেশনের ফান্ডরেইজিং অ্যান্ড গ্র্যান্টস ডিপার্টমেন্ট এর সহকারী পরিচালক এশা ফারুক। প্যানেলিস্ট হিসেবে ছিলেন আইআরআইয়ের বাংলাদেশ প্রোগ্রামের আবাসিক প্রোগ্রাম ডিরেক্টর ক্রেগ হালস্টেড, ইয়ুথ পলিসি ফোরাম, বাংলাদেশ ফেলোশিপ টিমের প্রধান সাদিয়া মাশারুফ ও নর্থ সাউথ ইউনিভার্সিটির ছাত্র আনান হাসনাত।

প্যানেলিস্টরা তাদের দক্ষতা এবং অন্তর্দৃষ্টি ভাগ করে নিয়েছিলেন যে, কীভাবে নাগরিক শিক্ষাকে দেশের ভবিষ্যৎ গঠনে যুবকদের ভূমিকা তুলে ধরে তরুণদের ক্ষমতায়নের জন্য ব্যবহার করা যেতে পারে। তারা সফল যুব-নেতৃত্বাধীন উদ্যোগের বাস্তব উদাহরণও ভাগ করে নিয়েছে, দর্শকদের কীভাবে তারা আরও সক্রিয় হতে পারে এবং তাদের সম্প্রদায়ে নিযুক্ত হতে পারে তা বিবেচনা করতে অনুপ্রাণিত করে।

প্যানেল আলোচনার পাশাপাশি সেমিনারে রাজশাহী বিভাগের একদল তরুণ-তরুণীর একটি নাটক পরিবেশনাও অন্তর্ভুক্ত ছিল, যার লক্ষ্য ছিল নাগরিক শিক্ষা ও যুবকদের সম্পৃক্ততা প্রচার করা। নাটকটি অংশগ্রহণকারীদের তাদের সম্প্রদায়ের মধ্যে আরও সক্রিয় এবং নিযুক্ত হতে অনুপ্রাণিত করে।

সেমিনারে একটি জাতীয় বিতর্কও ছিল, যেখানে বাংলাদেশের বিভিন্ন জেলা থেকে তরুণদের দুটি দল অংশগ্রহণ করেছিল। বিতর্কটি নাগরিক শিক্ষায় যুবকদের সম্পৃক্ততার প্রচারের গুরুত্ব এবং এটি কীভাবে আরও সচেতন এবং সক্রিয় নাগরিক তৈরি করতে সহায়তা করতে পারে তার ওপর দৃষ্টি নিবদ্ধ করে।

জাগো ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা ও নির্বাহী পরিচালক করভী রাকসান্দ বলেন, ‘আমাদের যুবকদের নাগরিক প্রক্রিয়ায় সক্রিয়ভাবে নিয়োজিত করার জন্য ক্ষমতায়ন করা শুধুমাত্র একটি কর্তব্য নয়, সবার জন্য একটি উন্নত ভবিষ্যৎ গড়ার জন্য একটি মৌলিক পদক্ষেপ। আসুন আমরা একত্রিত হই এবং আমাদের তরুণদের কণ্ঠস্বরকে উন্নীত করি, তাদের সম্প্রদায়ে এবং এর বাইরেও ইতিবাচক পরিবর্তন আনতে তাদের প্রয়োজনীয় প্ল্যাটফর্ম এবং নির্দেশনা দেই।

বাংলাদেশে আইআরআই রেসিডেন্ট প্রোগ্রাম ডিরেক্টর ক্রেগ হালস্টেড বলেন, সম্প্রদায় ও গণতন্ত্রের ভবিষ্যৎ স্বাস্থ্য, শক্তি এবং স্থিতিস্থাপকতার জন্য সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ দিকগুলোর মধ্যে একটি হলো সেমিনার, গোল টেবিল, আলোচনা এবং অন্যান্য ফোরামের আয়োজন ও সক্ষমতা বাড়াতে প্রশিক্ষণ আয়োজনের মাধ্যমে তরুণ প্রজন্মের ক্ষমতায়ন। বাস্তব অর্থে এ তিনটি গুরুত্বপূর্ণ দিকে আপনার উপস্থিতি থেকে আপনারা প্রত্যেকে যা করেন, শিখুন, গ্রহণ করুন এবং প্রয়োগ করুন তা আপনার দেশের গণতন্ত্রের ভবিষ্যৎ নিশ্চিত করতে এবং সুরক্ষিত করতে; জাতীয় নাগরিক সচেতনতা সেমিনারটি ছিল একটি ব্যাপক এবং সুসংহত প্রোগ্রাম যা অংশগ্রহণকারীদের
নাগরিক শিক্ষা এবং যুব ক্ষমতায়ন বিষয়ের সঙ্গে জড়িত হওয়ার বিভিন্ন সুযোগ দেয়।  

প্যানেল আলোচনা, নাটকের পারফরম্যান্স এবং জাতীয় বিতর্কের মাধ্যমে অংশগ্রহণকারীরা বিভিন্ন দিক থেকে বিষয়টি অন্বেষণ করতে এবং তরুণদের ক্ষমতায়নে নাগরিক শিক্ষা যে ভূমিকা পালন করে সে সম্পর্কে গভীরভাবে উপলব্ধি করতে সক্ষম হয়েছিল।

বাংলাদেশ সময়: ১৯২২ ঘণ্টা, ফেব্রুয়ারি ১৯, ২০২৩
আরআইএস

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।