ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১২ কার্তিক ১৪২৮, ২৮ অক্টোবর ২০২১, ২০ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

অর্থনীতি-ব্যবসা

এখনই বাংলাদেশকে বিশ্বব্যাপী তুলে ধরতে হবে

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০২৩ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ১২, ২০২১
এখনই বাংলাদেশকে বিশ্বব্যাপী তুলে ধরতে হবে প্রতীকী ছবি

ঢাকা: দেশের আর্থ-সামাজিক ও অবকাঠামোর বিস্ময়কর উন্নয়ন গত ১২ বছরে হয়েছে। এখনই বাংলাদেশের বিনিয়োগ আকর্ষণের জন্য দেশকে বিশ্বব্যাপী তুলে ধরতে হবে।

বর্তমান সময়ে আমাদের ইপিজেডগুলো বিশ্বমানের বিনিয়োগের জন্য প্রস্তুত রয়েছে। এ জন্য আগামী বিনিয়োগ সম্মেলনের মাধ্যমে অধিকতর বৈদেশিক বিনিয়োগ আকর্ষণে আমাদের কাজ করতে হবে।

এক অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষ (বেজা)-এর নির্বাহী চেয়ারম্যান শেখ ইউসুফ হারুন।  

রোববার (১২ সেপ্টেম্বর) বাংলাদেশ বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের মাল্টি পারপাস হলে ‘ডিকলারেশন ইভেন অব বাংলাদেশ ইন্টারন্যাশন্যাল ইনভেস্টমেন্ট সামিট-২০২১ অ্যান্ড মিট দ্যা প্রেস’ অনুষ্ঠানের আয়োজ করে বাংলাদেশ বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (বিডা)।  

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সচিব মো. তোফাজ্জল হোসেন মিয়া বলেন, প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে বিনিয়োগ বিকাশের জন্য আমরা কাজ করে যাচ্ছি। আমরা বিনিয়োগকারীদের জন্য বিশ্বমানের বিনিয়োগবান্ধব পরিবেশ তৈরি ও সুযোগ-সুবিধা বৃদ্ধি করেছি। এর ফলে বাংলাদেশ হয়ে উঠেছে অপার সম্ভাবনাময় লাভজনক বিনিয়োগের দেশ।  

অনুষ্ঠানে সম্মানিত অথিতির বক্তব্যে ফেডারেশন অফ বাংলাদেশ চেম্বার্স অফ কর্মাস অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রিজ (এফবিসিসিআই)-এর সভাপতি মো. জসিম উদ্দিন বলেন, এই আসন্ন বিনিয়োগ সম্মেলনের মধ্যমে যৌথ ও বিদেশি বিনিয়োগ বহু অংশে বৃদ্ধি পাবে। এর ফলে একই সঙ্গে দেশি বিনিয়োগকারীরাও লাভবান হবেন।  

সভাপতির বক্তব্যে বিডা’র নির্বাহী চেয়াম্যান মো. সিরাজুল ইসলাম বলেন, বাংলাদেশ সরকারের অন্যতম প্রধান বিনিয়োগ উন্নয়ন সংস্থা বিডা। বিশ্বব্যাংক গ্রুপের ইন্টারন্যাশনাল ফাইন্যান্স করপোরেশন (আইএফসি)-এর সহযোগিতায় বাংলাদেশ ইন্টারন্যাশনাল ইনভেস্টমেন্ট সামিট-২০২১ আয়োজন করা হবে।

তিনি আরও বলেন, বাংলাদেশ বিশ্বের অন্যতম দ্রুতবর্ধনশীল উদীয়মান বাজার ও উন্নয়নশীল অর্থনীতির দেশ। বাংলাদেশের এই দ্রুত বর্ধনশীল এবং স্থিতিশীল অর্থনীতিতে অফুরন্ত বিনিয়োগের সুযোগ প্রদর্শন করতেই সামিটের আয়োজন করা হচ্ছে। করোনা মহামারি পরিস্থিতিতে সামিটটি শারীরিক ও ভার্চ্যুয়াল দুই মাধ্যমেই অনুষ্ঠিত হবে। এটি কার্যকর জনসংযোগ, মতবিনিময় এবং অংশীদারিত্বের সুযোগ-সুবিধার মাধ্যমে উচ্চ বিকাশমান খাতগুলোতে বিনিয়োগ আকর্ষণে বিশেষ ভূমিকা রাখবে।

বিডা চেয়ারম্যান বলেন, সামিটে সংশ্লিষ্ট সরকারি কর্তৃপক্ষ, স্থানীয় এবং বিদেশি বিনিয়োগকারী, আন্তর্জাতিক উন্নয়ন সংস্থা, দেশি-বিদেশি বিনিয়োগ উন্নয়ন সংস্থা, দেশি-বিদেশি কূটনৈতিক মিশন, আন্তর্জাতিক বিশেষজ্ঞ, বিদেশি এবং স্থানীয় গণমাধ্যমের প্রতিনিধিগণ উপস্থিত থাকবেন।  

তিনি বলেন, প্রতিযোগিতামূলক বিনিয়োগ পরিবেশ শীর্ষক একটি প্লেনারি অধিবেশন আয়োজন করা হবে। অধিবেশনে ১২টি খাতভিত্তিক কারিগরি বিষয় নিয়ে আলোচন করা হবে। তথ্যপ্রযুক্তি ও চতুর্থ শিল্প বিপ্লব, তৈরি পোশাক শিল্প, ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিক পণ্য উৎপাদন শিল্প, কৃষি, চামড়া ও চামড়াজাত পণ্য, ঔষধ শিল্প ও স্বাস্থ্য, পরিবহণ ও লজিস্টিকস, বিদ্যুৎ/ জ্বালানি/ অবকাঠামো খাত, পুঁজিবাজার, আর্থিক খাত এবং ব্লু ইকোনমি নিয়ে আলোচনা করা হবে। এছাড়া দেশি ও বিদেশি বিনিয়োগ বৃদ্ধির জন্য দেশি-বিদেশি বিনিয়োগকারীদের মধ্যে সংযোগ ঘটিয়ে দেওয়া হবে এই সামিটের মাধ্যমে।

বাংলাদেশ সময়: ২০২২ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ১২, ২০২১
এমআইএস/জেএইচটি

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa