ঢাকা, শনিবার, ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৯, ১০ ডিসেম্বর ২০২২, ১৫ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

নির্বাচন

সিলেট বিভাগের ১১ উপজেলায় ৫৫৯ কেন্দ্র ঝুঁকিপূর্ণ

নাসির উদ্দিন, সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৯২৩ ঘণ্টা, মে ২৬, ২০১৬
সিলেট বিভাগের ১১ উপজেলায় ৫৫৯ কেন্দ্র ঝুঁকিপূর্ণ

সিলেট: পঞ্চমধাপে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে সিলেটসহ বিভাগের ১১ উপজেলায়। শনিবার (২৬ মে) অনুষ্ঠেয় নির্বাচনে উপজেলার ৫৫৯টি কেন্দ্রই ঝুঁকিপূর্ণ বলে জানিয়েছে পুলিশ।

সে অনুযায়ী নিরাপত্তা ব্যবস্থাও নিয়েছে প্রশাসন।

 

এদিন ১১টি উপজেলায় ৮৫টি ইউনিয়নে ৮২৪টি কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে।

ঝুঁকিপূর্ণ বা অতিগুরুত্বপূর্ণ কেন্দ্রের মধ্যে রয়েছে সিলেটে ১০৫, মৌলভীবাজারে ১৩০, হবিগঞ্জে ২১৭ এবং সুনামগঞ্জে ১০৭টি।

নির্বাচন হতে যাওয়া উপজেলাগুলোর মধ্যে রয়েছে- সিলেটের বালাগঞ্জ, ওসমানীনগর, মৌলভীবাজরের শ্রীমঙ্গল ও কমলগঞ্জ, হবিগঞ্জের লাখাই, নবীগঞ্জ, মাধবপুর ও বানিয়াচং, সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর, দিরাই ও শাল্লা। এর মধ্যে বানিয়াচংয়ে শুধু একটি ইউনিয়নে (সুজাতপুর) নির্বাচন হচ্ছে। এছাড়া সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুরে ৮টি ইউনিয়নের মধ্যে দু’টিতে নির্বাচন হচ্ছে না।

সিলেটের বালাগঞ্জ ও ওসমানীনগরে ১৩১ কেন্দ্রের মধ্যে ১০৫টি কেন্দ্র ঝুঁকিপূর্ণ হিসেবে বিবেচনা করা হয়েছে জানিয়ে সিলেটের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (মিডিয়া) সুজ্ঞান চাকমা বাংলানিউজকে বলেন, অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের লক্ষ্যে দুই উপজেলায় প্রায় দেড় সহস্রাধিক পুলিশ মোতায়েন করার সিদ্ধান্ত হয়েছে। নির্বাচনী মাঠ চষে বেড়াবে পুলিশের স্ট্রাইকিং ফোর্স। সেই সঙ্গে পর্যাপ্ত সংখ্যক বিজিবি, ৠাব ও আনসার সদস্যও নিরাপত্তার দায়িত্বে নিয়োজিত থাকবে।

সিলেট জেলা নির্বাচন অফিসার আজিজুল ইসলাম বাংলানিউজকে বলেন, বালাগঞ্জ ও ওসমানীনগরে ১৪ ইউনিয়নে ১৩১ কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। এর মধ্যে বালাগঞ্জে ৬টি ইউনিয়নে ৫৫টি কেন্দ্রে ২২০ কক্ষে ৭৫ হাজার ৫০৭ জন ভোটার ভোট দেবেন।

আর ওসমানীনগরে ৮টি ইউনিয়নে ৭৬ কেন্দ্রে ও ৩৪৫ কক্ষে ভোটগ্রহণ হবে। এ উপজেলায় মোট ভোটার ১ লাখ ২৬ হাজার ৮১৭ জন। এদিকে, জেলার দিরাই, শাল্লা ও জগন্নাথপুরে মোট ২০২টি কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে।

মৌলভীবাজার জেলা নির্বাচনী কর্মকর্তা ইস্তাফিজুল হক আকন্দ বাংলানিউজকে বলেন, জেলার শ্রীমঙ্গল উপজেলায় ৯ ইউনিয়নে ১০০টি কেন্দ্রে ও ৪শ’ ৭৭ কক্ষে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। এ উপজেলায় মোট ভোটার ১ লাখ ৯৩ হাজার ৫৬৭ জন। এছাড়া কমলগঞ্জ উপজেলার ৯টি ইউনিয়নের ৯৪ কেন্দ্রে ৪২৪ কক্ষে ভোটগ্রহণ হবে। এ উপজেলায় মোট ভোটার ১ লাখ ৫৮ হাজার ৭৮৮ জন।

মৌলভীবাজারের পুলিশ সুপার মো. শাহজালাল বাংলানিউজকে বলেন, এ দুই উপজেলায় ১৯৪ ভোটকেন্দ্রের মধ্যে ১৩০টি কেন্দ্র ঝুঁকিপূর্ণের আওতায় রাখা হয়েছে। তবে সুষ্ঠু নির্বাচনের লক্ষ্যে সহস্রাধিক পুলিশ মোতায়েন করার বিষয়টি নিশ্চিত করেন তিনি।

হবিগঞ্জে চার উপজেলায় ৩১টি ইউনিয়নে একইদিনে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। এর মধ্যে লাখাই উপজেলায় ৬টিতে, নবীগঞ্জে ১৩টি, মাধবপুরে ১১টি ও বানিয়াচং উপজেলার ১টি ইউনিয়নে ভোটগ্রহণ হবে।

হবিগঞ্জ জেলা নির্বাচন অফিসার বেলায়েত হোসেন চৌধুরী বাংলানিউজকে বলেন, লাখাই উপজেলার ৬টি ইউনিয়নে ৫৪টি কেন্দ্রে ও ২৪৮টি কক্ষে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। এ উপজেলায় ৯৮ হাজার ৪৮৬ জন ভোটার।

জেলার নবীগঞ্জে ১৩টি ইউনিয়নে ১৩২টি কেন্দ্রে ৫২৫ কক্ষে ২ লাখ ৯ হাজার ৭১৮ জন ভোটার ভোট প্রদান করবেন।  

মাধবপুরে ১১ ইউনিয়নে ১০২টি কেন্দ্রে ৫২৪টি কক্ষে ভোট দেবেন ১ লাখ ৯৫ হাজার ৯৫৪ জন ভোটার।

এছাড়া বানিয়াচংয়ের একটি ইউনিয়ন সুজাতপুরে ৯টি কেন্দ্রে ৪১টি কক্ষে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। এ ইউনিয়নের মোট ভোটার সংখ্যা ১৩ হাজার ৫০ জন বলে জানান নির্বাচনী এ কর্মকর্তা।

হবিগঞ্জের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (মিডিয়া) মাসুদুর রহমান মনির বাংলানিউজকে বলেন, এ উপজেলায় মোট ২৯৭টি কেন্দ্রের মধ্যে ২১৭টি ঝুঁকিপূর্ণের তালিকায় রয়েছে। নির্বাচনের দিন চার উপজেলায় ১ হাজার ৬শ’ ১৬ জন পুলিশ দায়িত্ব পালন করবেন। সেই সঙ্গে ৠাব, বিজিবি, আনসার সদস্যতো থাকছেই।

সুনামগঞ্জ জেলার দিরাই, শাল্লা ও জগন্নাথপুরে মোট ২০২টি কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। এ তিন উপজেলায় ১০৭টি কেন্দ্র ঝুঁকিপূর্ণ নির্ধারণ করেছে পুলিশ প্রশাসন।

জেলার বিশেষ শাখার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আনোয়ার হোসেন মৃধা বাংলানিউজকে বলেন, অবাধ, সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ নির্বাচন উপহার দিতে ১২ শতাধিক পুলিশ মোতায়েন করা হবে। সঙ্গে থাকবে র‌্যাব, পুলিশ ও আনসার সদস্যরা।

সুনামগঞ্জে জেলা নির্বাচনী কর্মকর্তা সাদেকুল ইসলাম বাংলানিউজকে বলেন, তিন উপজেলার মধ্যে দিরাইয়ে ৯টি ইউনিয়নে ৮৬ কেন্দ্রে ও ৩৯৭ কক্ষে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। এ উপজেলায় মোট ভোটার ১ লাখ ৪৬ হাজার ১৪৩ জন।

শাল্লা উপজেলায় ৪টি ইউনিয়নে ৩৯ কেন্দ্রে ও ২০৩টি কক্ষে ভোট দেবেন ৭৬ হাজার ৭৯৭ জন ভোটার। এছাড়াও প্রবাসী অধ্যুষিত জগন্নাথপুর উপজেলায় ৮টি ইউনিয়নের মধ্যে ৩ নং মিরপুর ও ৬ নং রানীগঞ্জ স্থগিত থাকায় ৬টিতে নির্বাচন হচ্ছে। এ উপজেলায় ৭৭টি কেন্দ্রে ও ৩১৫টি কক্ষে ১ লাখ ১ হাজার ৬৯ জন ভোটার ভোট দেবেন।

সিলেটের আঞ্চলিক নির্বাচনী কর্মকর্তা এসএম এজহারুল ইসলাম বাংলানিউজকে বলেন, ২৮ মে বিভাগের চার জেলায় ১১টি উপজেলার ইউনিয়ন পরিষদগুলোতে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

নির্বাচনকে অবাধ, সুষ্ঠু করতে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের দায়িত্ব পালনে নির্দেশনা দেওয়া।

বাংলাদেশ সময়: ১৯২০ ঘণ্টা, মে ২৬, ২০১৬
এনইউ/জেডএস

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa