ঢাকা, শুক্রবার, ১৮ ফাল্গুন ১৪৩০, ০১ মার্চ ২০২৪, ১৯ শাবান ১৪৪৫

ফুটবল

দারুণ জয়ে বসুন্ধরা কিংসের সাতে সাত

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট, স্পোর্টস | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৮৩২ ঘণ্টা, জানুয়ারি ২৮, ২০২৩
দারুণ জয়ে বসুন্ধরা কিংসের সাতে সাত

প্রিমিয়ার লিগে বসুন্ধরা কিংসের জয়রথ ছুটছেই। এবার শেখ রাসেল ক্রীড়াচক্রের বিপক্ষে দারুণ জয় তুলে নিল বর্তমান চ্যাম্পিয়নরা, যা আবার তাদের টানা সপ্তম জয়।

আজ শনিবার ঘরের মাঠ কিংস অ্যারেনায় রোমাঞ্চকর ম্যাচটিতে বসুন্ধরা ৩-১ গোলে হারিয়েছে শেখ রাসেলকে। ম্যাচে জোড়া গোল করেছেন কিংসের ব্রাজিলিয়ান ফরোয়ার্ড রবসন রবিনহো। আরেক গোল আসরর গফুরভের। শেখ রাসেলের হয়ে একটি গোল শোধ করেছেন এমফন উদোহ।

ম্যাচের শুরুতে অবশ্য আধিপত্য দেখিয়েছে শেখ রাসেল। কয়েকটি ভালো সুযোগও পেয়েছিল তারা। তৃতীয় মিনিটেই এমফনের বাড়িয়ে দেওয়া বল বক্সের ভেতরে বিপজ্জনক জায়গায় পেয়েছিলেন চার্লস দিদিয়ের। কিন্তু তিনি কিছু করে ওঠার আগেই দারুণভাবে ক্লিয়ার করে দেন রেজা খানজাদেহ।  

শুরুর আক্রমণ সামলে ধীরে ধীরে গুছিয়ে উঠতে শুরু করে কিংস। পঞ্চম মিনিটে পাল্টা আক্রমণ থেকে অল্পের জন্য গোলের দেখা পাননি রবিনহো। বক্সের ভেতর দুজনকে কাটিয়ে থেকে নেওয়া এই ব্রাজিলিয়ানের শট অল্পের জন্য পোস্টের বাইরে দিয়ে বেরিয়ে যায়। ছয় মিনিট পর রবিনহোর পাসে রাকিবের ক্রস দারুণ জায়গায় পেয়ে হেড নেন দরিয়েলতন। কিন্তু বল অল্পের জন্য বারের উপর দিয়ে বেরিয়ে যায়।

গোছানো আক্রমণ থেকে আরও একবার গোলের কাছাকাছি পৌঁছে গিয়েছিল কিংস। ৩৪তম মিনিটে গফুরভের বাড়িয়ে দেওয়া বলে দরিয়েলতনের নেওয়া হেড এবারও অল্পের জন্য লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়। ছয় মিনিট পর রবিনহোর নেওয়া শটও বারের উপর দিয়ে যায়।  

দুই মিনিট পর এগিয়ে যাওয়ার সুযোগ পেয়েছিল শেখ রাসেল। এবার ডানপ্রান্ত ধরে বল নিয়ে ছুটে বক্সের কাছে পৌঁছে ইব্রাহীমের নেওয়া শট রক্ষণে বাধা পেলে যায় বক্সের একদম সামনে থাকা হেমন্ত ভিনসেন্টের কাছে। জটলার মধ্যেই অনেকটা স্লাইডে নেওয়া তার শট উপরের বারে লেগে ফিরে আসে।  

ম্যাচের দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে বসুন্ধরা কিংসের আক্রমণে ব্যতিব্যস্ত থাকে শেখ রাসেলের রক্ষণ। মুহুর্মুহু আক্রমণের ফল আসে ৬৪তম মিনিটে। তিনজনকে কাটিয়ে বক্সে ঢুকে পড়েছিলেন রবিনহো। শট নেওয়ার ঠিক আগে তাকে ট্যাকল করে ফেলে দেন শেখ রাসেলের ডিফেন্ডার মনির আলম। পেনাল্টি কিকে লক্ষ্যভেদ করে কিংসকে এগিয়ে দেন রবিনহো।  

গোল হজম করে শেখ রাসেলের রক্ষণ কিছুটা এলোমেলো হয়ে পড়ে। এই সুযোগে আক্রমণের ধার বাড়ায় অস্কার ব্রুজোনের দল। ৭১তম মিনিটে এমনই এক আক্রমণ থেকে গোল আদায় করে নেন গফুরভ। শেখ রাসেলের উজবেক ডিফেন্ডার তিমুর তালিপভ বল ক্লিয়ার করতে গেলে বল চলে যায় বক্সের সামনে থাকা উজবেকিস্তানের ফরোয়ার্ডের পায়ে। সেই বল পেয়ে একজনকে কাটিয়ে শেখ রাসেলের গোলরক্ষক আশরাফুল ইসলাম রানাকে পরাস্ত করেন গফুরভ।  

দুই গোলে পিছিয়ে থাকা শেখ রাসেল শেষদিকে ম্যাচে ফিরতে মরিয়া চেষ্টা চালায়। ফলও আসে দ্রুতই। ৮২তম মিনিটে সানডে উদোহ দেখা পান কাঙ্ক্ষিত গোলের। বক্সের বাম প্রান্তে চার্লস দিদিয়েরের বাড়িয়ে দেওয়া বল নিয়ে আলতো টোকায় জালে জড়িয়ে দেন নাইজেরিয়ান ফরোয়ার্ড।  

ব্যবধান কমিয়ে অবশ্য বেশিক্ষণ স্বস্তিতে থাকতে পারেনি শেখ রাসেল। কারণ যোগ করা সময়ের শেষ মিনিটে বক্সের অনেকটা দূরে ফাউলের শিকার হন রবিনহো। আর দূরপাল্লার সেই ফ্রি-কিকে সরাসরি গোল করেন ব্রাজিলিয়ান তারকা। ঝাঁপিয়ে পড়েও ঠেকাতে পারেননি শেখ রাসেলের গোলরক্ষক আশরাফুল ইসলাম রানা। বল বারপোস্টে লেগে জালে ঢুকে যায়। ফলে বড় জয় নিয়েই মাঠ ছাড়ে কিংস।

লিগে এখন পর্যন্ত ৭ ম্যাচ খেলে সবক'টিতেই জয় তুলে নেওয়া বসুন্ধরা কিংস ২১ পয়েন্ট নিয়ে আছে সবার শীর্ষে। আর এক ম্যাচ কম খেলে ৭ পয়েন্ট অর্জন করা শেখ রাসেল আছে পঞ্চম স্থানে। ৭ ম্যাচে ১৫ পয়েন্ট নিয়ে দুইয়ে অবস্থান ঢাকা আবাহনীর। ৬ ম্যাচে ১২ পয়েন্ট নিয়ে তিনে আছে শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাব।

বাংলাদেশ সময়: ১৮৩২ ঘণ্টা, জানুয়ারি ২৮, ২০২৩
এমএইচএম

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।