ঢাকা, বুধবার, ২৫ মাঘ ১৪২৯, ০৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ১৬ রজব ১৪৪৪

ভারত

গুজরাটে মোদি ঝড়ে সাফ বিরোধীরা, আনন্দে কলকাতার বিজেপি

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৯৫৫ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ৮, ২০২২
গুজরাটে মোদি ঝড়ে সাফ বিরোধীরা, আনন্দে কলকাতার বিজেপি

কলকাতা: মোদি-শাহর কাছে ছিল এ এক প্রেস্টিজ ফাইট! কী হবে তাদের রাজ্যের বিধানসভার ফল? তা নিয়ে গোটা ভারতের আগ্রহ ছিল। অবশেষে বিপুলসংখ্যক আসন জিতে ফের ভারতের গুজরাট রাজ্যের সরকার গঠন করতে চলেছে বিজেপি।

 

খবর আসতেই কলকাতায় বিজেপির সদর দফতরে জড়ো হতে শুরু করেছেন সমর্থকরা। আবির মেখে, আতশবাজি জ্বলিয়ে, মিষ্টি বিতরণ করে উৎসবে মেতেছেন কলকাতার বিজেপি সমর্থকরা। মুখে তাদের একটাই স্লোগান- বার বার মোদি, ঘর ঘর মোদি।

গুজরাটের ৩৩টি জেলার ১৮২টি বিধানসভা আসনের নির্বাচন দুটি ধাপে ১ ডিসেম্বর ও ৫ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হয়েছিল। বৃহস্পতিবার ছিল গণনা। ১৮২ আসন বিশিষ্ট গুজরাট বিধানসভায় সরকার গঠন করার জন্য প্রয়োজন ছিল ৯২ আসন।  

বিজেপি নেতারা আগেই দাবি করেন, দেড়শর বেশি আসন পাবেন। ভোট পরবর্তী একাধিক বুথ ফেরত সমীক্ষাতেও দেখা গেছে, বিপুল সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে ফের ক্ষমতায় আসতে চলেছে বিজেপি। সেটাই সত্যি করল গুজরাটের মানুষ। বিপুল সংখ্যক আসন জিতে ফের গুজরাটে সরকার গঠন করতে চলেছে মোদিবাহিনী।

এবারে গুজরাটে ১৮২টি বিধানসভা আসনের বিজেপি, জাতীয় কংগ্রেস ও আম আদমি পার্টির ত্রিমুখী লড়াই হয়েছে। ফল প্রকাশ হতেই দেখা গেল মোদি ঝড়ে কংগ্রেসসহ বাকি বিরোধী দল কার্যত ধুয়ে মুছে সাফ হয়ে গেছে। যদিও নির্বাচন কমিশন সম্পূর্ণ ফল প্রকাশ করেনি, তবে এই মুহূর্তে ১৮২ আসনে বিজেপি এগিয়ে রয়েছে ১৫৮টি আসনে। কংগ্রেস কোনোক্রমে নিজেদের অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখতে সক্ষম হয়েছে। তারা এগিয়ে রয়েছে ১৬টি আসনে। পরিস্থিতি এমন জায়গায় যে জাতীয় কংগ্রেসের বিধানসভায় প্রধান বিরোধী দলের মর্যাদা মেলাও অনিশ্চিত।  

অন্যদিকে, প্রথমবার গুজরাটে লড়তে নেমে চারটি আসনে এগিয়ে রয়েছে আম আদমি পার্টি (আপ)। প্রচারের সময় সরকার গঠনের দাবি করলেও দুই সংখ্যাও পার করতে পারেনি কেজরিওয়ালের দল। অন্যান্যরা এগিয়ে চারটি আসনে। নির্বাচন কমিশন সূত্রে জানা গেছে, ভোট শতাংশে বিজেপির এগিয়ে যাওয়া আসনগুলোয় হার ৫৩ দশমিক ৬ শতাংশ, কংগ্রেস ২৬ দশমিক ৪৯ শতাংশ এবং আপ ১২ দশমিক ৮৫ শতাংশ। আপের স্বস্তি একটাই, বিরোধী ভোটের একটা বড় অংশে ভাগ বসাতে পেরেছে তারা।

গুজরাটে জয়ের নিরিখে অতীতের সব রেকর্ড ভেঙে দিলেন মোদি-শাহ। বিশেষজ্ঞদের মতে, প্রধানমন্ত্রী, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীসহ বিজেপির শীর্ষস্থানীয় নেতাদের লাগাতার প্রচার, প্যাটেল পদবীর একজনকে মুখ্যমন্ত্রী পদে বসানো, কংগ্রেসের বড় নেতা হার্দিক প্যাটেলকে দলে অন্তর্ভুক্তি, ধর্মীয় মেরুকরণ ইত্যাদি বিজেপিকে এই ঐতিহাসিক জয় এনে দিয়েছে। এ নিয়ে গুজরাটে সপ্তমবার ক্ষমতা ধরে রাখল বিজেপি।

সূত্রের খবর, এই জয়ের পর রাত আটটায় দিল্লির বিজেপি দফতর থেকে দলীয় কর্মী-সমর্থকদের বার্তা দেবেন প্রধানমন্ত্রী মোদি। বিজেপির টানা সপ্তমবারের জয় আরও একবার প্রমাণ করল একক ক্ষমতায় জাতীয় কংগ্রেস মোদিকে টক্কর দেওয়ার যোগ্যতা হারাচ্ছে। ২০২৪ সালে লোকসভা ভোটে তাদের অক্সিজেন পেতে মান-অভিমান ভুলে হাত ধরতে হবে পশ্চিমবঙ্গের মমতাসহ ভারতের আঞ্চলিক দলগুলোকে।

বাংলাদেশ সময়: ১৯৪৪ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ৮, ২০২২
ভিএস/আরএইচ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa