ঢাকা, সোমবার, ১৪ আষাঢ় ১৪২৯, ২৭ জুন ২০২২, ২৭ জিলকদ ১৪৪৩

তথ্যপ্রযুক্তি

যাত্রা শুরু করলো দেশীয় পণ্য ওয়ালটনের র‍্যাম

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ০২১৮ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ২৫, ২০১৯
যাত্রা শুরু করলো দেশীয় পণ্য ওয়ালটনের র‍্যাম

ঢাকা: প্রযুক্তিপণ্য উৎপাদনে একের পর এক সাফল্য দেখাচ্ছে বাংলাদেশ। মোবাইল ফোন, ল্যাপটপ, কম্পিউটার এবং এর বিভিন্ন যন্ত্রাংশ তৈরির পর এবার দেশেই উৎপাদিত হচ্ছে র‍্যাম (র‍্যানডম অ্যাকসেস মেমোরি)। কম্পিউটার ও ল্যাপটপের অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ এ যন্ত্রাংশ তৈরির মাধ্যমে দেশীয় প্রযুক্তিপণ্য উৎপাদন শিল্পে নতুন এক মাইলফলক সৃষ্টি করলো বাংলাদেশি টেক জায়ান্ট ‘ওয়ালটন’। র‍্যামের মতো উচ্চ প্রযুক্তির যন্ত্রাংশ তৈরির পর আগামীতে প্রসেসর উৎপাদনের বৃহৎ কর্মপরিকল্পনা হাতে নিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি।

মঙ্গলবার (২৪ ডিসেম্বর) রাজধানীর আগারগাঁওয়ের জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদ (এনইসি) অডিটোরিয়ামে আড়ম্বরপূর্ণ এক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে ওয়ালটন র‍্যামের উৎপাদন কার্যক্রম উদ্বোধন করা হয়। সেখান থেকে এক ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে গাজীপুরের চন্দ্রায় ওয়ালটন ডিজি-টেক ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেডে র‍্যাম উৎপাদন কার্যক্রম উদ্বোধন করেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল, ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার এবং তথ্য ও প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক।

এসময়  আরো উপস্থিত ছিলেন- ওয়ালটন ডিজি-টেক ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেডের চেয়ারম্যান এস এম রেজাউল আলম ও ব্যবস্থাপনা পরিচালক এস এম মঞ্জুরুল আলম অভি।

এছাড়া অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- ওয়ালটন গ্রুপের নির্বাহী পরিচালক মো. হুমায়ূন কবীর, কম্পিউটার বিভাগের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) প্রকৌশলী লিয়াকত আলী, ডেপুটি এক্সিকিউটিভ ডিরেক্টর ফিরোজ আলম, অ্যাডিশনাল ডিরেক্টর মিল্টন আহমেদসহ প্রশাসন ও ওয়ালটনের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।

দেশে তৈরি এ র‍্যাম মূলত নিজেদের তৈরি ল্যাপটপ ও কম্পিউটারে ব্যবহার করবে ওয়ালটন। পাশাপাশি খুচরা যন্ত্রাংশ হিসেবে উচ্চপ্রযুক্তির এ পণ্য অন্যান্য ডিজিটাল ডিভাইসেও ব্যবহার করা যাবে। দেশের চাহিদা মিটিয়ে ‘মেইড ইন বাংলাদেশ’ ট্যাগে ওয়ালটন র‍্যাম রপ্তানি হবে বিশ্বের বিভিন্ন দেশে।

২০১৮ সালের জানুয়ারিতে গাজীপুরের চন্দ্রায় ওয়ালটন ডিজি-টেক ইন্ডাস্ট্রিজ লিমিটেডে কম্পিউটার ও ল্যাপটপ কারখানা চালু করে ওয়ালটন। এর আগে ২০১৭ সালের অক্টোবরে দেশের প্রথম মোবাইল হ্যান্ডসেট উৎপাদন কারখানারও উদ্বোধন করে এ প্রতিষ্ঠান। দেশে কম্পিউটার কারখানা চালুর পর থেকেই দুই স্তরের মাদারবোর্ড বানাচ্ছিল ওয়ালটন। এর কয়েক মাস পর শুরু হয় মাল্টি লেয়ার মাদারবোর্ড তৈরি। বর্তমানে নিজস্ব কারখানায় ল্যাপটপ, কম্পিউটার, মোবাইল ফোনসহ বিভিন্ন প্রযুক্তিপণ্য উৎপাদন করছে ওয়ালটন।

ওয়ালটনের নির্বাহী পরিচালক ও কম্পিউটার বিভাগের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. লিয়াকত আলী জানান, উৎপাদিত এসব র্যাম ডিসেম্বর মাসেই ওয়ালটনের ল্যাপটপ ও কম্পিউটারের সঙ্গে প্রথমবারের মতো বাজারজাত করা হবে। র‍্যামের পর ডিজিটাল ডিভাইসের আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ যন্ত্রাংশ 'প্রসেসর' উৎপাদনের উদ্যোগ নিচ্ছে ওয়ালটন। দেশে যারা প্রযুক্তিপণ্য উৎপাদন করছে এটি তাদের জন্য নতুন এক আশার খবর। এ উদ্যোগ ‘মেইড ইন বাংলাদেশ’ মিশনে অন্যদেরও এগিয়ে যাওয়ার পথ দেখাবে।

বাংলাদেশ সময়: ২১১৬ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ২৪, ২০১৯ 
এমআইএস/এইচজে

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa