ঢাকা, রবিবার, ২ আষাঢ় ১৪৩১, ১৬ জুন ২০২৪, ০৮ জিলহজ ১৪৪৫

জাতীয়

মাদারীপুরে হিমাগারে মজুদ লাখ লাখ ডিম, সিন্ডিকেট করে বাড়ানো হয়েছে দাম!

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৪০০ ঘণ্টা, মে ১৭, ২০২৪
মাদারীপুরে হিমাগারে মজুদ লাখ লাখ ডিম, সিন্ডিকেট করে বাড়ানো হয়েছে দাম!

মাদারীপুর: মাদারীপুরে সিন্ডিকেট করে দাম বাড়াতে লাখ লাখ ডিম হিমাগারে রাখা হয়েছে। সেই সঙ্গে বাজারে সংকট দেখিয়ে সিন্ডিকেট করে ডিমের দাম হালিতে বাড়ানো হয়েছে ১২ থেকে ১৫ টাকা।

 

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ডিমের পর্যাপ্ত মজুদ রয়েছে। অথচ কৃত্রিম সংকট দেখিয়ে বাড়ানো হচ্ছে দাম। হালিতে গত এক সপ্তাহের ব্যবধানে ডিমের দাম বেড়েছে ১২-১৫ টাকা পর্যন্ত। শহরের বিসিক শিল্প নগরের ভেতরেই মাদারীপুর হিমাগার। পর্যাপ্ত জায়গা খালি থাকায় মার্চ মাস থেকে ডিম মজুদ শুরু করেন মৌসুমি ব্যবসায়ীরা। অভিযোগ উঠেছে, শহিদুল ইসলাম ও জাহাঙ্গীর কাজী নামে দুই ব্যবসায়ী পুরো ডিমের বাজার অস্থির করেছেন। হিমাগারে ডিম মজুদ রেখে সিন্ডিকেট করে বাড়িয়েছেন দাম। হঠাৎ ডিমের দাম বাড়ায় ক্ষুব্ধ ক্রেতারা, বিপাকে খুচরা ব্যবসায়ীরাও।

মৌসুমি ব্যবসায়ীদের দাবি, ডিমের সংকট থাকায় দাম বেড়েছে। তাছাড়া জেলায় কোনো ফার্ম না থাকায় এমন পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়েছে।  

এদিকে হিমাগার কর্তৃপক্ষ জানায়, রমজান মাসে ডিমের দাম কম থাকায়, তখন থেকেই মজুদ শুরু করেন ব্যবসায়ীরা। পরে সুবিধা মতো আস্তে আস্তে বাজারে ছাড়েন ডিম।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, মাদারীপুর হিমাগারে বর্তমানে প্রায় ছয় লাখ ডিম মজুদ রয়েছে বলে জানিয়েছেন কর্মকর্তারা। এক হালি ফার্মের ডিম পাইকারি বিক্রি হচ্ছে ৪৮-৫০ টাকা। যা খুচরা পর্যায়ে পৌঁছে ৫৫-৬০ টাকায়। এছাড়া দেশি মুরগি ও হাঁসের ডিমের দেখা নেই বাজারে।

ক্রেতারা বলেন, হঠাৎ ডিমের দাম বাড়ার কারণ জিজ্ঞেস করলে বিক্রেতারা বলেন, বাজারে ডিম নেই। ক্রেতারা এখন মহাবিপদে পড়েছে। মাছ-মাংসের দাম বেশি, এখন ডিমের দামও বেশি হলে না খেয়ে থাকতে হবে। এ ডিমের বাজারের সিন্ডিকেট ভেঙে দেওয়া উচিত। বড় বড় ব্যবসায়ীরা হিমাগারে ডিম মজুদ রেখেছেন। ক্রেতাদের সঙ্গে ডিমের দাম নিয়ে প্রতিনিয়তই ঝগড়া হচ্ছে। আমরা চাই ডিমের দাম স্বাভাবিক থাকুক।

খুচরা ব্যবসায়ী কাজী জাহাঙ্গীর হোসেন বলেন, চাহিদা মতো ডিম পাওয়া যাচ্ছে না। বর্তমানে ডিম পাওয়া খুবই কষ্ট, দুই থেকে তিনদিন পর পর এক গাড়ি ডিম আসে। তাতে ক্রেতাদের চাহিদা পূরণ হচ্ছে না।

মৌসুমি ডিম ব্যবসায়ী মো. শহিদুল ইসলাম বলেন, মাদারীপুর জেলায় সেভাবে মুরগির ফার্ম নেই। এ ডিম অন্য জেলা থেকে কিনে আনতে হয়। সেক্ষেত্রে খরচ বেশি ও দামও বেশি পড়ে যায়। বর্তমানে ডিমের চাহিদা বেশি, সরবরাহ কম। তাই একটু দাম বেড়েছে। বাজারে পর্যাপ্ত ডিম পাওয়া গেলে এ সংকট থাকবে না।

মাদারীপুর কোল্ডস্টোরেজ লিমিটেডের ব্যবস্থাপক মো. আব্দুল করিম বলেন, দুই ব্যবসায়ীর প্রায় ছয় লাখ ডিম হিমাগারে মজুদ রয়েছে। তারা মার্চ মাস থেকে ডিম মজুদ রেখেছেন। সুবিধা মতো বাজারে ডিম আস্তে আস্তে ছাড়ছেন। ডিম তিন থেকে সাড়ে তিন মাস হিমাগারে ভালো থাকে। এর বেশি দিন হলে ডিম পচে যেতে পারে।

মাদারীপুর জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা সুবোদ কুমার দাস বলেন, মাদারীপুর জেলায় প্রতিদিন দেড় লাখ ডিমের চাহিদা রয়েছে। কখনও চাহিদা বাড়ে। গরমের সময় ডিম বেশি দিন হিমাগারে রাখা ঠিক নয়। এতে ডিমের গুনাগুণ নষ্ট হয়।

জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদফরের মাদারীপুরের সহকারি পরিচালক জান্নাতুল ফেরদৌস জানান, মাদারীপুরে ডিম মজুদ করে রাখার অভিযোগের প্রমাণ পেলে ব্যবসায়ীদের আইনের আওতায় আনা হবে। অবৈধভাবে মজুদ রেখে ডিমের দাম বাড়ানোটা অযৌক্তিক। প্রয়োজনে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে অসাধু ব্যবসায়ীদের ব্যাপারে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

বাংলাদেশ সময়: ১৩৫৮ ঘণ্টা, মে ১৭, ২০২৪
এসআই
 

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।