ঢাকা, বুধবার, ২৫ মাঘ ১৪২৯, ০৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ১৬ রজব ১৪৪৪

রাজনীতি

জামালপুরে বিএনপির ১৫ নেতাকর্মী আটক

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট  | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ০৮৪১ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ১, ২০২২
জামালপুরে বিএনপির ১৫ নেতাকর্মী আটক

জামালপুর: জামালপুরে গত দুই দিনে বিএনপির ১৫ নেতাকর্মীকে আটক করেছে পুলিশ। জামালপুরের মেলান্দহে নাশকতা চেষ্টার অভিযোগে বিএনপি ও সহযোগীসংগঠনের ৩০ জন নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে ২৮ নভেম্বর রাতে মেলান্দহ থানায় মামলা দায়ের হয়েছে।



একই দিন পুলিশ পাঁচ নেতাকর্মীকে গ্রেফতার করেছে। ২৯ নভেম্বর দুপুরে তাদের আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে পাঠায় পুলিশ।

মেলান্দহ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. দেলোয়ার হোসেন জানান, নাশকতা চেষ্টার অভিযোগে গ্রেফতার পাঁচ আসামিকে ২৯ নভেম্বর জামালপুর আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠানো হয়েছে। মামলার অন্যান্য আসামিদের গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে।

মামলা সূত্রে জানা যায়, ২৮ নভেম্বর বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে জামালপুরের মেলান্দহ উপজেলার শাহাজাদপুর এলাকায় মেলান্দহ পৌর বিএনপির সহ-সভাপতি আমিনুল ইসলাম রেনু তার বাড়ির পূর্ব পাশে ফাঁকা জায়গায় বিএনপি ও অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীদের নিয়ে দলীয় বৈঠক করছিলেন। খবর পেয়ে মেলান্দহ থানা পুলিশ সেখানে হানা দিয়ে মেলান্দহ পৌর বিএনপির সহ-সভাপতি আমিনুল ইসলাম রেনু, যুগ্ম-সম্পাদক আব্দুল আজিজ, পৌর স্বেচ্ছাসেবক দলের সদস্য সচিব মো. নবীন, স্বেচ্ছাসেবক দলের কর্মী সামিউল ইসলাম ও মো. ছামিদুলকে আটক করে থানায় নিয়ে যায়।

এ ঘটনায় মেলান্দহ থানার উপপরিদর্শক (এসআই) দিলীপ চন্দ্র বাদী হয়ে ১৯৭৪ সালের বিশেষ ক্ষমতা আইনে ২৮ নভেম্বর রাতে মেলান্দহ থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। মামলায় আটক ওই পাঁচজন এবং উপজেলা বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম-আহ্বায়ক শ্যামল তালুকদার ও পৌর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমান মুকুলসহ ৩০ জনের নামে এবং অজ্ঞাত পরিচয়ের আরও ৩৫জনকে আসামি করা হয়েছে।

মামলায় আসামিদের বিরুদ্ধে ২৮ নভেম্বর বিকেলে জামালপুর জিলা স্কুলমাঠে অনুষ্ঠিত জামালপুর জেলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনে নৈরাজ্য নাশকতার সৃষ্টির লক্ষ্যে এবং মেলান্দহ উপজেলা খাদ্যগুদামে অগ্নিসংযোগসহ আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের ওপর হামলা করে দেশে নৈরাজ্য সৃষ্টির চেষ্টা করেছিল বলে অভিযোগ আনা হয়েছে। পুলিশ ২৯ নভেম্বর জামালপুর আদালতের মাধ্যমে আটক ওই পাঁচ নেতাকর্মীকে জেল হাজতে পাঠিয়েছে।
জেলার দেওয়ানগঞ্জ থানায় বিএনপির পাঁচ নেতাকর্মীকে আটক করা হয়েছে। আটকদের নাম-পরিচয় পাওয়া যায়নি।

দেওয়ানগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শ্যামল চন্দ্র ধর এ তথ্য নিশ্চিত করে বাংলানিউজকে জানান, ১৯৭৪ সালের বিশেষ ক্ষমতা আইনে পাঁচজনকে আটক করা হয়েছে।

বকশীগঞ্জ থানায় সোমবার দিনভর অভিযান চালিয়ে বিএনপির আরও পাঁচ নেতাকর্মীকে আটক করেছে পুলিশ। বকশীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) তারিকুল ইসলাম জানান, নাশকতার অভিযোগ তাদের বিরুদ্ধেমামলা হয়েছে।

এদিকে বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির সহ-সম্পাদক সাবেক কেন্দ্রীয় ছাত্রনেতা মোস্তাফিজুর রহমান বাবুল দলীয় নেতা-কর্মীদের গ্রেফতার ও হয়রানিমূলক মিথ্যা বানোয়াট মামলা দায়েরের ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে অবিলম্বে গ্রেফতারকৃতদের মুক্তির দাবি জানিয়েছেন।

এ ঘটনার পর গ্রেফতার আতঙ্কে বিএনপির নেতাকর্মীরা ইতোমধ্যে এলাকা ছেড়েছেন বলে জানা গেছে।

বাংলাদেশ সময়: ০৮৪০ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ০১, ২০২২
আরএ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa