ঢাকা, মঙ্গলবার, ২১ আষাঢ় ১৪২৯, ০৫ জুলাই ২০২২, ০৫ জিলহজ ১৪৪৩

খেলা

চ্যাম্পিয়নদের আলো ঝলমলে এক সন্ধ্যা

মাহমুদুল হাসান বাপ্পি, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২১৩০ ঘণ্টা, মে ২০, ২০২২
চ্যাম্পিয়নদের আলো ঝলমলে এক সন্ধ্যা

চারপাশে আলোর ছড়াছড়ি। তারকাদের ঔজ্জ্বল্যে অবশ্য ম্লান সেসব আলো।

মুশফিকুর রহিম, মেহেদী হাসান মিরাজ থেকে আকরাম খান কিংবা মোহাম্মদ রফিক, কে ছিলেন না আড্ডায়? ছিলেন বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপনও।

শুক্রবার সন্ধ্যায় বসুন্ধরা গ্রুপের পৃষ্ঠপোষকতায় চলা শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাবের শিরোপা উৎযাপনের অনুষ্ঠানই ছিল সেটা। কিন্তু এটা শেষ অবধি হয়ে গেল মিলনমেলা। মুশফিকুর রহিম দুদিন আগেই বাংলাদেশের ইতিহাসের প্রথম ব্যাটসম্যান হিসেবে ছুঁয়েছেন পাঁচ হাজার রানের মাইলফলক। আকরাম খান দেখেই তাকে জড়িয়ে ধরলেন।

বললেন, ‘অভিনন্দন’; মুশফিক মুখে কিছু বললেন না। তবে তার হাসিই দিয়ে দিল আকরামের কথার জবাব। মুশফিককে পেয়েই জড়িয়ে ধরেছিলেন আরও একজন। ইনজুরি তাকে ছিটকে দিয়েছে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজ থেকে। বেশ কয়েকদিন ধরেই তাই মিরাজের সঙ্গে দেখা নেই জাতীয় দলের ক্রিকেটারদের।

মুশফিককে পেয়েই জড়িয়ে ধরলেন মিরাজ। অনেকক্ষণ আলাদা করে দিলেন আড্ডাও। তাদের আলাপের বিষয়টা কী? সেটা দূর থেকে শোনা না গেলেও বোঝা গেল ক্রিকেটের কথাই বলছেন দুজন। মিলনমেলায় দেখা গেল ভিন্ন দৃশ্যও। মিরাজ-মুশফিক বা নুরুল হাসান সোহানদের দিকে যখন শত শত ক্যামেরা, আকরাম-রফিকরা তখন দাঁড়িয়ে ভিন্ন প্রান্তে। কেউ আসছেন, সেলফি তুলছেন, চলে যাচ্ছেন। কে জানে, হাবিবুল বাশার সুমনরা হয়তো ‘জীবন বোধহয় এভাবেই রঙ বদলায়’ ভাবছেন।

একটু পরই অবশ্য ঘুচে গেল আলোর সব দূরত্ব। টেবিলে বসে এক হলেন প্রজন্ম থেকে প্রজন্মের ক্রিকেটাররা। খোশগল্পে মাতলেন, একটু পরপর ভেঙে পড়লেন অট্টহাসিতেও। ছবি দেখা গেল উল্টোও। সাবেক ক্রিকেটার ও ধারাভাষ্যকার আতাহার আলী খানও হাজির হলেন ফ্রেমে।

মুশফিক টেবিল থেকে উঠে তাকে জড়িয়ে ধরলেন। আতাহার তুলতে চাইলেন সেলফি, একই ফ্রেমে বন্দি হওয়ার পর মুশফিককে দেখিয়ে বললেন, ‘হি ইজ দ্য ম্যান’। খানিক বাদেই অবশ্য দেখা গেল আলাদা দৃশ্যও।

একপ্রান্তে যখন ছবি তোলার হিড়িক, শত শত ক্যামেরার তারকাদের খুঁজে নেওয়ার চেষ্টা। ভক্তদের আবদার মেটাতে ব্যস্ত একের পর এক সেলফিতে বন্দি হচ্ছেন তারা। তখন নিঃসঙ্গ জাতীয় দল থেকে বাদ পড়া সাইফ হাসানরা।

ক্রিকেটারদের ব্যস্ততার ভেতরে হাজির ছিলেন আলোচিত একজনও। মিরপুরের শেরে বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামের কিউরেটর গামিনি ডি সিলভা নিজেই গিয়ে বসলেন সবার থেকে আড়ালে। তাকে খুঁজে পেতেই বললেন, ‘ক্যামেরায় কথা বলতে লাগবে অনুমতি’। তবে কারো কারো ছবি তোলার আবদার মেটালেন, গামিনির সময়টা কাটল নেটফ্লিক্সে।

খানিক বাদেই তারকায় ভরে উঠল পুরো অনুষ্ঠানস্থল। পোশাক বদলে সব ক্রিকেটার গায়ে তুললেন শেখ জামালের বিশেষ টি-শার্ট। জাতীয় সংগীতে শুরু হলো মূল অনুষ্ঠান। কিন্তু আপনি ক্রিকেটপ্রেমী হলে- অনানুষ্ঠনিক সেই মিলনমেলার খণ্ড খণ্ড দৃশ্যগুলোই নিশ্চয়ই বারবার দেখতে চাইবেন!

বাংলাদেশ সময়: ২১২৫ ঘণ্টা, মে ২০, ২০২২
এমএইচবি

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa