ঢাকা, শুক্রবার, ১৮ ফাল্গুন ১৪৩০, ০১ মার্চ ২০২৪, ১৯ শাবান ১৪৪৫

ব্যাংকিং

উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী

পল্লী সঞ্চয় ব্যাংক চালু হচ্ছে বুধবার

রহমত উল্যাহ, স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২১১৩ ঘণ্টা, জুন ২০, ২০১৬
পল্লী সঞ্চয় ব্যাংক চালু হচ্ছে বুধবার

ঢাকা: অবশেষে শাখা উদ্বোধনের মধ্য দিয়ে আলোর মুখ দেখছে বিশেষায়িত পল্লী সঞ্চয় ব্যাংক। প্রাথমিকভাবে ১০০ উপজেলায় নিজস্ব ভবনে শাখা চালু হচ্ছে।


 
‘একটি বাড়ি একটি খামার’ প্রকল্পের স্থায়ী রুপ পল্লী সঞ্চয় ব্যাংক। প্রকল্পটির মেয়াদ শেষ হওয়ার মাত্র ৮ দিন আগেই আনুষ্ঠানিকভাবে যাত্রা শুরু করতে যাচ্ছে ব্যাংকটি।
 
বুধবার (২২ জুন) প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গণভবনে আনুষ্ঠানিকভাবে পল্লী সঞ্চয় ব্যাংকের ১০০ উপজেলা শাখার উদ্বোধন ঘোষণা করবেন।
 
রোববার (১৯ জুন) পল্লী সঞ্চয় ব্যাংকের চেয়ারম্যান মিহির কান্তি মজুমদার স্বাক্ষরিত এ সংক্রান্ত চিঠি দেশের সকল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবর পাঠানো হয়েছে।
 
২০১৩ সালের ৯ অক্টোবর ‘একটি বাড়ি একটি খামার’ প্রকল্পের অনুষ্ঠানে পল্লী সঞ্চয় ব্যাংক প্রতিষ্ঠার ঘোষণা দেন প্রধানমন্ত্রী। ২০১৪ সালের ৮ জুলাই জাতীয় সংসদে পল্লী সঞ্চয় ব্যাংক প্রতিষ্ঠার আইন পাস হয়।
 
২০১৪ সালের ৩১ আগস্ট প্রজ্ঞাপন জারির মাধ্যমে ‘একটি বাড়ি একটি খামার প্রকল্প’কে স্থায়ী রুপদান করে বিশেষায়িত ‘পল্লী সঞ্চয় ব্যাংক’ প্রতিষ্ঠা করা হয়।
 
চিঠিতে বলা হয়েছে, ‘প্রধানমন্ত্রী পল্লী অঞ্চলের সকল বাড়িকে খামারে রূপান্তরের এক মহাপরিকল্পনা গ্রহণ করেছেন। সে অনুযায়ী প্রকল্প বাস্তবায়ন প্রায় শেষ পর‌্যায়ে’।
 
‘প্রকল্পের অধীনে দেশের সকল ইউনিয়নে প্রতি ওয়ার্ডে ১টি করে সমিতি গঠিত হয়েছে ও এর সদস্য সংখ্যা প্রায় ২৪ লাখ। এটি দেশের সুবিধাবঞ্চিত মানুষের মধ্যে ব্যাপক জনপ্রিয়তা অর্জন করেছে’।
 
‘প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনায় পল্লী সঞ্চয় ব্যাংক আইন, ২০১৪ পাস করে পল্লী সঞ্চয় ব্যাংক প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে। সকল উপজেলা এর শাখা চালুর মাধ্যমে দারিদ্র্য বিমোচনের জন্য একটি মাইলফলক হবে’।
 
চিঠিতে আরো বলা হয়, ‘প্রতি উপজেলায় পল্লী সঞ্চয় ব্যাংকের শাখার খোলার প্রথম ধাপ হিসেবে ১০০ উপজেলার শাখা ২২ জুন গণভবনে প্রধানমন্ত্রী উদ্বোধন করবেন’।
 
‘প্রকল্পের মেয়াদ শেষের পর (২০১৬ সালের ৩০ জুন) অবশিষ্ট উপজেলায় শাখা চালুর মাধ্যমে এ ব্যাংকের কার‌্যক্রম শুরু হবে’।
 
প্রত্যেক উপজেলা মিলনায়তন, পল্লী সঞ্চয় ব্যাংকের শাখা বা একটি বাড়ি একটি খামার প্রকল্পের শাখায় উদ্বোধনী অনুষ্ঠান উপভোগ করতে চিঠিতে অনুরোধ জানানো হয়।
 
সূত্র জানায়, দরিদ্র ও সুবিধাবঞ্চিত মানুষকে সঞ্চয়ে উদ্বুদ্ধ করা, নারীর ক্ষমতায়ন ও অর্থনৈতিকভাবে সাবলম্বী করতে সরকার এটিকে বিশেষাতি ব্যাংক ঘোষণা করে।
 
প্রায় ৩ হাজার ১৬৩ কোটি টাকা ব্যয়ে ৪৮৫ উপজেলায় ৪ হাজার ৫০৩ ইউনিয়নের ৪০ হাজার ৫২৭ গ্রামে একটি বাড়ি একটি খামার প্রকল্প বাস্তবায়ন হচ্ছে।
 
১০০ উপজেলায় ভবন নির্মাণ কাজ শেষ হয়েছে। এসব উপজেলায় শাখা চালু হচ্ছে। আরো ২০০ উপজেলায় ভবন নির্মাণ কাজ এ বছর শেষ হবে।
 
২০০ কোটি টাকা পরিশোধিত মূলধন নিয়ে চালু হচ্ছে এ ব্যাংক। এর মধ্যে ৯৮ কোটি টাকা প্রকল্পের আওতায় গঠিত সমিতির শেয়ারহোল্ডারদের।
 
বাংলাদেশ সময়: ২১০৮ ঘণ্টা, জুন ২০, ২০১৬
আরইউ/এএসআর

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।