ঢাকা, মঙ্গলবার, ৩ মাঘ ১৪২৮, ১৮ জানুয়ারি ২০২২, ১৪ জমাদিউস সানি ১৪৪৩

চট্টগ্রাম প্রতিদিন

চাঁদা দাবির অভিযোগে খুলশীতে হামলা পাল্টা হামলা

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৫৪৫ ঘণ্টা, এপ্রিল ১৩, ২০১৪
চাঁদা দাবির অভিযোগে খুলশীতে হামলা পাল্টা হামলা ছবি: বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

চট্টগ্রাম: নগরীর খুলশী ঝাউতলা রেলওয়ে স্টেশন এলাকায় ব্যবসায়ী ও  স্থানীয় সন্ত্রাসীদের মধ্যে কয়েক দফা হামলা পাল্টা হামলার ঘটনা ঘটেছে। শনিবার রাত থেকে রোববার দুপুর পর্যন্ত এ ঘটনা ঘটে।



রোববার সকাল থেকে চাঁদা দাবির অভিযোগ এনে জাকির হোসেন রোড অবরোধ ও ঝাউতলা বাজারে দোকানপাট বন্ধ রাখে ব্যবসায়ীরা।

পুলিশ ও প্রত্যক্ষদর্শী সুত্রে জানা যায়, ঝাউতলা বাজারে স্বপন নামে এক পাইকারি মুরগী ব্যবসায়ীর কাছে চাঁদা দাবি করে স্থানীয় সন্ত্রাসী গাজী মো. শাহজাহান। ওই ব্যবসায়ী চাঁদা দিতে অস্বীকৃতি জানালে শনিবার রাতে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলা চালায় শাহজাহানের অনুসারীরা। রাতে বাজারের ব্যবসায়ীরা সংঘবদ্ধ হয়ে দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে ঝাউতলা রেলওয়ে কলোনীতে শাহজাহানের বাড়িতে পাল্টা হামলা চালায়। হামলায় শাহজাহান আহত হয়েছে বলে জানা গেছে। এসময় তার ঘরসহ আশপাশের আরো কয়েকটি ঘরে হামলায় চালায় বিক্ষুব্ধ ব্যবসায়ীরা।

চাঁদা দাবির প্রতিবাদে রোববার ঝাউতলা বাজারে দোকান বন্ধ রাখে ব্যবসায়ীরা। দুপুরে ব্যবসায়ীরা প্রতিবাদ মিছিল বের করে। এসময় ঝাউতলা কলোনী এলাকায় আরেক দফা হামলা চালায় তারা। বিক্ষুব্ধ ব্যবসায়ীরা সড়ক অবরোধ করে। পরে পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

আবদুল আউয়াল স্বপন বাংলানিউজকে বলেন,‘দু’মাস আগে ঝাউতলা বাজার থেকে একটি দোকান কিনে নেই। এসময় স্থানীয় সন্ত্রাসী মো. শাহজাহান দু’লাখ টাকা চাঁদা দাবি করে। চাঁদা দিতে অস্বীকৃতি ‍জানালে আমি কিভাবে দোকান বুঝি নিই তা দেখে নিবে বলে হুমকি দেন। শনিবার রাতে আমি দোকানে কাজ করা অবস্থায় হঠাৎ করে শাহজাহান অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে এসে আমার প্রতিষ্ঠানে হামলা চালায়। ’

ঝাউতলা বাজার ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি হায়দার হোসেন বাদল বাংলানিউজকে বলেন,‘ব্যবসায়ীর কাছ থেকে চাঁদা দাবির প্রতিবাদে সকাল থেকে বাজারের সব দোকান বন্ধ রাখা হয়েছে। পুলিশের আশ্বাসের পরিপ্রেক্ষিতে দুপুরের পর থেকে দোকান খোলা হয়েছে। ’

ঝাউতলা রেলওয়ে কলোনীর বাসিন্দা পেয়ারা বেগম বাংলানিউজকে বলেন,‘আমরা ঘুমে ছিলাম। হঠাৎ হইচইয়ের শব্দ শুনে ঘুম থেকে উঠে দেখি দা রামদা নিয়ে একদল লোক বাড়ি ঘর কুপাতে থাকে। একটু’র জন্য আমার বাচ্চাটা আঘাতের হাত থেকে বেঁচে যায়। আমরাতো কোনো দোষ করিনি আমাদের বাড়িতে কেন হামলা করবে তারা। ’

ঝাউতলা সমাজ কল্যাণ পরিষদের সাধারণ সম্পাদক সরওয়ার আহমেদ চৌধুরী বাংলানিউজকে বলেন,‘রাত থেকে সকাল পর্যন্ত চার দফায় হামলা চালানো হয়েছে। আতঙ্কের জন্য কলোনীর লোকজন কেউ ঘুমাতে পারেনি। কেউ চাঁদা চাইলে থানাকে জানাবে অথবা মামলা দায়ের করবে। তা না করে তারা কলোনীতে কেন হামলা চালাবে? এটাও তো সন্ত্রাসী। আমরা মামলা দায়েরের প্রস্তুতি নিচ্ছি। ’

খুলশী থানার পরিদর্শক (তদন্ত) সুকান্ত চক্রবর্তী বাংলানিউজকে বলেন,‘ব্যবসায়ীদের মধ্যে ঝামেলা হয়েছিল। এঘটনায় তারা বাজারের দোকান বন্ধ রাখে। ১০ মিনিটের মতো সড়কও অবরোধ করে। আমরা তাদেরকে মামলা দায়ের করতে বলেছি। মামলার পরিপ্রেক্ষিতে দোষীদের আটক করে আইনী ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানালে দুপুরের পর থেকে তারা দোকানপাট খুলে দেয় এবং সড়ক অবরোধও তুলে নেয়। ’

বাংলাদেশ সময়: ১৫৪৪ ঘণ্টা, এপ্রিল ১৩, ২০১৪

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa