ঢাকা, শনিবার, ১৮ ফাল্গুন ১৪৩০, ০২ মার্চ ২০২৪, ২০ শাবান ১৪৪৫

ক্রিকেট

আমি কিছু প্রত্যাশা করি না, ছেড়েও দেই না: সাকিব

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১১০৭ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ১১, ২০১৭
আমি কিছু প্রত্যাশা করি না, ছেড়েও দেই না: সাকিব ছবি:বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

ঢাকা: মুশফিকুর রহিমকে সরিয়ে বাংলাদেশ ক্রিকেটের টেস্ট অধিনায়কের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে সাকিব আল হাসানকে। অধিনায়কত্বের বিষয়টি অবশ্য সাকিবের জন্য নতুন কিছু নয়। ২০০৯ সালের ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে মাশরাফি বিন মর্তুজা ইনজুরিতে পড়লে তাকে অধিনায়ক করা হয়। তবে তখনও বাংলাদেশ তিন সংস্করণের অধিনায়কের পথে হাঁটা শুরু করেনি।

যা হোক, লাল-সবুজের ক্রিকেটের দায়িত্ব নিয়ে তা সাকিব ধরে রাখতে পেরেছিলেন ২০১১ সালে আগস্টের জিম্বাবুয়ে সিরিজ পর্যন্ত। ওই সিরিজে তার নেতৃত্ব সন্তোষজনক না হওয়ায় তাকে দলনেতার পদ থেকে সরিয়ে দেয়া হয়।

এরপর আবার সাদা পোশাকের দায়িত্ব ফিরে পেলেন। কেমন হবে টাইগারদের টেস্ট অধিনায়ক হিসেবে সাকিবের এই যাত্রা? সোমবার (১১ ডিসেম্বর) সংবাদ মাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে জানালেন এই বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার।  ছবি:বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কমবাংলানিউজ পাঠকদের উদ্দেশ্যে তা তুলে ধরা হলো:

প্রশ্ন: টেস্ট অধিনায়ক হলেন, আপনার প্রতিক্রিয়া জানতে চাই।

সাকিব: নতুন দায়িত্ব। টেস্টে গত কিছুদিন আমরা ভালোই করেছি। শ্রীলঙ্কার সঙ্গে জিতলাম, অস্ট্রেলিয়া-ইংল্যান্ডের সঙ্গে জিতলাম এখানে (দেশের মাটিতে)। এই জায়গা থেকে কতটা ভালো করা যায়, সেই চেষ্টাই থাকবে।

প্রশ্ন: প্রথমবারের চাইতে এবার অধিনায়কত্বের কৌশল কতটা বদলাবে?

সাকিব: বলা মুশকিল কতটা পরিবর্তন আসবে। তবে পরিস্থিতির সঙ্গে মানিয়ে নেওয়াটা গুরুত্বপূর্ণ।

প্রশ্ন: খারাপ অভিজ্ঞতা দিয়ে শেষ হয়েছিলো। এবার নিশ্চই ভুলতে চাইবেন।

সাকিব: আমার তো ওটাই মনে নাই, কি হয়েছিল?ছবি:বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কমপ্রশ্ন: ক্যাপ্টেন্সি থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছিল জিম্ববুয়ে সিরিজ থেকে...

সাকিব: ঠিক আছে, জীবনে কত কিছুই হয়…

প্রশ্ন: সামনের সময় আপনার কাছে কতটা চ্যালেঞ্জিং?

সাকিব: জানি না তো, এখন আপাতত বিপিএল চ্যালেঞ্জ নিয়ে আছি। বিপিএল শেষ হোক, জাতীয় দলের ক্যাম্প শুরু হলে দেখা যাবে কি কি চ্যালেঞ্জ আছে। যখন পরিকল্পনা করা হবে, তখন বোঝা যাবে।

প্রশ্ন: সামনে বেশিরভাগ সিরিজই বাইরে। চ্যালেঞ্জটি কঠিন হবে কী না?

সাকিব: প্রতিটি টুর্নামেন্ট বা সিরিজই কঠিন। সেটা দেশে হোক বা বাইরে। হয়ত দেশে একটু স্বস্তি বোধ করি আমরা। বিদেশে যেহেতু সাফল্য নেই, সেহেতু আমাদের জন্য কঠিন হয়ে যায়। একই সঙ্গে এটাও সুযোগ ভালো কিছু করার। কোনো না কোনো কিছু তো কেউ না কেউ শুরু করবে। যদি শুরু হয়, তাহলে খারাপ কী! যদিও কাজটা কঠিন। কিন্তু আমাদের যে দল আছে, আমরা যেভাবে খেলছি, অনেক কিছু করা সম্ভব। ছবি:বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কমপ্রশ্ন: ২০১১’র সাকিব ২০১৭’র সাকিবের মধ্যে পার্থক্য কী?

সাকিব: সেটা আপনারা ভালো বলতে পারবেন…

প্রশ্ন: ৬ মাসের ছুটি চেয়েছিলেন টেস্ট থেকে, এখনতো ক্যাপ্টেন। আপনার ছুটির কী হবে?

সাকিব: দেখা যাক, কি হয়…

প্রশ্ন: হাথুরুসিংহে অনেক কথা বলে গেছেন আপনাদের বিষয়ে। এ বিষয়ে কোন মন্তব্য করবেন?

সাকিব: না। একজনের ব্যক্তিগত কথা। এটা নিয়ে মন্তব্য করা উচিত হবে না।

প্রশ্ন: ডেপুটি হিসেবে মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ কেমন?

সাকিব: আমরা বেশ কয়েকজনই আছি, যারা দলের নেতা এবং যে কোনো সিদ্ধান্তই আমরা একসঙ্গে মিলেই নেই। কেউ অধিনায়ক থাক বা না থাক, সেটা ব্যাপার নয় যখন আমরা মাঠে খেলতে নামি। সবার সাহায্যই দরকার হবে। আর রিয়াদ ভাই তো কয়েক বছর ধরেই বিপিএলে ভালো অধিনায়কত্ব করছে। নেতৃত্বগুণ উনার ভেতর অনেক আগে থেকেই আছে। আমার কাছে মনে হয়, আমার জন্য কাজটি সহজ হবে। ছবি:বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কমপ্রশ্ন: আগের বারের নেতৃত্বের সময় ওয়ান ম্যান শো। এখন দলে অনেক পারফরমার। এখন কাজটা সহজ হবে?

সাকিব: অবশ্যই কাজটা সহজ হবে। এখন বেশির ভাগ ক্রিকেটাররাই প্রায় সবসময় পারফর্ম করছে। ক্রিকেটাররা যখন পারফর্ম করে, অধিনায়কের ওরকম কোনো কাজই থাকবে না। আশা করি সবাই মিলে ভালো করবে। সবাই মিলে ভালো করলেই দল ভালো করবে।

প্রশ্ন: অধিনায়কত্ব প্রত্যাশিত ছিল?

সাকিব: আমি কোনো কিছু প্রত্যাশা করি না। কিছু ছেড়েও দেই না। আসলে ভালো, না আসলে ঠিক আছে…

প্রশ্ন: জাতীয় দলের নেতৃত্ব কতটা উপভোগ করেন?

সাকিব: উপভোগের চেয়ে বেশি আমার কাছে মনে হয় এটা দায়িত্ব। দায়িত্বটি অবশ্যই চেষ্টা থাকবে সেরা ভাবে যেন পালন করতে পারি।

বাংলাদেশ সময়: ১৬৩৭ ঘণ্টা, ১১ ডিসেম্বর ২০১৭
এইচএল/এমএমএম

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।