ঢাকা, বুধবার, ২০ আশ্বিন ১৪২৯, ০৫ অক্টোবর ২০২২, ০৮ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪

ক্রিকেট

অভিষেকেই দুই বলে দুই উইকেট এবাদতের

স্পোর্টস ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৮০৪ ঘণ্টা, আগস্ট ১০, ২০২২
অভিষেকেই দুই বলে দুই উইকেট এবাদতের

অভিষেক ওয়ানডে ম্যাচেই বাজিমাত করলেন এবাদত হোসেন। নিজের দ্বিতীয় ওভারে পরপর দুই বলে দুই জিম্বাবুইয়ান ব্যাটারকে বিদায় করেছেন এই বাংলাদেশি ডানহাতি পেসার।

 

জিম্বাবুয়ে ইনিংসে পঞ্চম ওভারের তৃতীয় বলে ওয়েসলে মাধেভেরেকে (১) ফেরান তিনি। লাফিয়ে ওঠা বল মাধেভেরের ব্যাটের উপরিভাগে লেগে জমা হয় পয়েন্টে দাঁড়ানো মেহেদী হাসান মিরাজের হাতে। পরের বলে এবাদতের দুর্দান্ত ইন সুইং ইয়র্কারে বোল্ড হয়ে ফেরেন আগের দুই ম্যাচে সেঞ্চুরি হাঁকানো সিকান্দার রাজা। জিম্বাবুয়ের ভারপ্রাপ্ত অধিনায়ক আজ রানের খাতাই খুলতে পারেননি।

এই প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত ৭ ওভারে ৪ উইকেট হারিয়ে ২৭ রান সংগ্রহ করেছে জিম্বাবুয়ে।

লক্ষ্য তাড়ায় নামা জিম্বাবুয়ে শুরুতেই জোড়া ধাক্কা খেয়েছে। প্রথম ওভারেই ওপেনার তাকুদজোয়ানাশে কাইতানোকে (০) লেগ বিফোরের ফাঁদে ফেলেন বাংলাদেশের পেসার হাসান মাহমুদ। পরের ওভারে আরেক ওপেনার তাদিওয়ানাশে মারুমানি (১) বোল্ড হয়ে ফেরেন মেহেদী হাসান মিরাজের বলে। দলই ৭ রানে ২ উইকেট হারায় জিম্বাবুয়ে।  

এর আগে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে তিন ম্যাচ সিরিজের শেষ ওয়ানডেতে ব্যাটিংয়ে তেমন ভালো করতে পারেনি বাংলাদেশ। তবে এনামুল হক বিজয় ও আফিফ হোসাইনের পঞ্চাশোর্ধ ইনিংসে ভর করে নির্ধারিত ৫০ ওভার শেষে ২৫৬ রানের মাঝারি সংগ্রহ পায় টাইগাররা।

বুধবার (১০ আগস্ট) হারারে স্পোর্টস ক্লাবে টস হেরে প্রথমে ব্যাটিংয়ে নেমে ভালো শুরু পায় বাংলাদেশ। ওপেনিংয়ে ৫১ বলে ৪১ রানের জুটি গড়েন তামিম ইকবাল ও এনামুল হক বিজয়। নবম ওভারে রান আউট তামিম ফিরলে ভাঙে এই জুটি। ৩০ বলে ১৯ রান করে বিদায় নেন টাইগার অধিনায়ক।

তামিমের বিদায়ের পর অল্প সময়ের মধ্যেই উইকেট হারান নাজমুল হাসান শান্ত ও মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। দুইজনই শূন্য রানে বিদায় নেন। বিপদে পড়া বাংলাদেশের হয়ে একপ্রান্তে লড়াই করে গেছেন বিজয়। ৪৮ বলে ৩ ছক্কা ও ৪ বাউন্ডারিতে পূর্ণ করেন অর্ধশতক। মাহমুদউল্লাহর সঙ্গে ৯০ বলে ৭৭ রানের জুটি গড়ে আশা জাগান তিনি। সেঞ্চুরির পথে হাঁটতে থাকা বিজয় শেষ পর্যন্ত আর পেরে ওঠেননি।  

১৫তম ওভারের চতুর্থ বলে অফ স্টাম্পের বাইরের বল খোঁচা দিয়ে উইকেটরক্ষকের হাতে ক্যাচ তুলে দেন তিনি। ৭১ বলে ৪ ছক্কা ও ৬ বাউন্ডারিতে ৭৬ রান করে সাজঘরে ফেরেন এই ওপেনার। এরপর ব্যাট করতে নামা আফিফ হোসাইনের সঙ্গে ধীরগতিতে এগোতে থাকেন মাহমুদউল্লাহ। তার টেস্ট ধাচের ইনিংস এসে থামে ৩৫তম ওভারে। ৬৯ বলে ৩৯ রান করে ফিরতে হয় সাজঘরে।

সাতে ব্যাট করতে নামা মিরাজকে নিয়ে বেশ কিছুক্ষণ লড়ে যান আফিফ। ৪৭ বলে ৩৩ রানের জুটি গড়েন তরুণ দুই ব্যাটার। সিকান্দার রাজার বলে মিরাজ এলবিডব্লিউ হলে ভাঙে এই জুটি। ১৪ রান করে বিদায় নেন টাইগার অলরাউন্ডার। এরপর ক্রিজে নেমে থিতু হতে পারেননি তাইজুল ইসলামও। ৫ রানে রান আউট হয়ে সাজঘরে ফেরেন তিনি।

একপ্রান্তে ব্যাটাররা যখন আসা-যাওয়ার মিছিলে, অপরপ্রান্তে থাকা আফিফ তখন ফিফটির দেখা পান। ৫৮ বলে অর্ধশতক পূর্ণ করেন এই ব্যাটার। শেষদিকে এসে পরপর উইকেট হারান হাসান মাহমুদ (১), মোস্তাফিজুর রহমান (০)। ৮১ বলে ২ ছক্কা ও ৬ বাউন্ডারিতে সর্বোচ্চ ৮৫ রানের ইনিংস খেলে অপরাজিত থাকেন আফিফ।

জিম্বাবুয়ের পক্ষে জোড়া উইকেট শিকার করেন ব্র্যাড ইভান্স ও লুক জঙ্গে। একটি করে উইকেট পান রিচার্ড এনগারাবা ও সিকান্দার রাজা।

বাংলাদেশ সময়: ১৮০৪ ঘণ্টা, আগস্ট ১০, ২০২২
এমএইচএম

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa