ঢাকা, শুক্রবার, ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৮, ০৩ ডিসেম্বর ২০২১, ২৭ রবিউস সানি ১৪৪৩

ফিচার

সোনালী আঁশের পথে মাশরাকার যাত্রা

নিউজ ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৭২৪ ঘণ্টা, অক্টোবর ২৮, ২০২১
সোনালী আঁশের পথে মাশরাকার যাত্রা

ঢাকা: মাশরাকা বিনতে মোশাররাফ, ইকো মোনারকি কোম্পানির সিইও। ২০০৫ সাল থেকে তিনি একজন উদ্যোক্তা হিসেবে কাজ করছেন।

তবে শুরুতে তার যাত্রা মসৃণ ছিল না। পদে পদে বাধা এসেছে। দৃঢ় সংকল্পের সঙ্গে তিনি সেই বাধা অতিক্রম করেছেন।

মাশরাকা বলেন, ‘আমি যখন জার্মানি থেকে ভাল বেতনের চাকরি ছেড়ে বাংলাদেশে চলে আসি, আমার পরিবার খুব বড় একটা ধাক্কা খায়। তার ওপর আমি এসেছি পাট নিয়ে কাজ করতে। এটা এখানে কেউ ভাল চোখে দেখে না। ’

ভাল চোখে না দেখলেও কোনোকিছুই মাশরাকাকে দমিয়ে রাখতে পারেনি। তিনি নতুন করে বাংলাদেশের সোনালী আঁশকে বিশ্বের সামনে তুলে আনতে চেয়েছেন, যাতে ‘মেড ইন বাংলাদেশ’ ট্যাগটা তার পুরনো গৌরব ফিরে পায়।

মাশরাকা মনে করেন, বিশ্ববাজারে সবচেয়ে ভাল মানের পাট উৎপাদন করে বাংলাদেশ। এই পাট থেকে সৃজনশীল সব পণ্য তৈরি করা সম্ভব।

তার প্রতিষ্ঠান ইকো মোনারকি যেন সেই কাজই করে চলেছে। প্রতিষ্ঠানটির বিভিন্ন কাস্টমাইজড পণ্যের মধ্যে রয়েছে নানা রকম ঘর সাজানোর উপকরণ। যেমন—কুশন, পর্দা, ব্যাগ, বিভিন্ন ব্যবসায়িক উপহার ইত্যাদি। তবে শুধু দেশে নয়। বিশ্বের অন্যান্য দেশে, বিশেষ করে ইউরোপে বাংলাদেশের পণ্য পৌঁছে দিতে কাজ করছেন মাশরাকা।

শুরুতে ব্যবসায়িক দক্ষতা ও জ্ঞানের ঘাটতি সাফল্যের পথে বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছিল তার। কিন্তু করপোরেট কানেক্টের দক্ষতা বৃদ্ধি ট্রেইনিংয়ের মাধ্যমে তিনি অ্যাকাউন্টিং ও ফাইন্যান্স, এইচ আর ম্যানেজমেন্ট এবং ব্যবসার পিচের ক্ষেত্রে দক্ষতা তৈরি করে নেন। মাশরাকার বিশ্বাস, করপোরেট কানেক্ট থেকে পাওয়া ট্রেনিং তার সাফল্যের পেছনে বড় ভূমিকা রেখেছে।

তিনি জানান, করপোরেট কানেক্ট তার ব্যবসা বদলে দিয়েছে। তিনি দেশে এবং বিদেশে তার ব্যবসা ছড়িয়ে দিতে পেরেছেন। নতুন নতুন নেটওয়ার্কিংয়ের সুযোগ পেয়েছেন। বর্তমানে ৩৫ জনেরও বেশি কর্মী রয়েছে তার প্রতিষ্ঠানে। তাদের সঙ্গে নিয়েই এগিয়ে চলেছে ইকো মোনারকি।

বাংলাদেশ সময়: ১৭২৪ ঘণ্টা, অক্টোবর ২৮, ২০২১
এনএসআর

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa