ঢাকা, বুধবার, ৩ বৈশাখ ১৪৩১, ১৭ এপ্রিল ২০২৪, ০৭ শাওয়াল ১৪৪৫

জাতীয়

অগ্নিকাণ্ডে দায়ীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে: ডিএমপি

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২১২৭ ঘণ্টা, মার্চ ২, ২০২৪
অগ্নিকাণ্ডে দায়ীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে: ডিএমপি

ঢাকা: রাজধানীর বেইলি রোডের গ্রিন কোজি কটেজ নামে বহুতল ভবনে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় যাদের দায় থাকবে, তাদের প্রত্যেকের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে জানিয়েছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি)।

শনিবার (২ মার্চ) নিজ কার্যালয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে এ কথা জানান ডিএমপির মিডিয়া অ্যান্ড পাবলিক রিলেশন্স বিভাগের উপ-পুলিশ কমিশনার (ডিসি) মো. ফারুক হোসেন।

ডিসি ফারুক বলেন, গত বৃহস্পতিবার রাতে রাজধানীর বেইলি রোডের গ্রিন কোজি কটেজে ভয়াবহ আগুনে এখন পর্যন্ত ৪৬ জন মারা গেছে। এর মধ্যে ৪৪ জনের লাশ তাদের পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। বাকি দুজনের পরিচয় এখনো শনাক্ত হয়নি। সিআইডি এই দুই জনের ডিএনএ নমুনা সংগ্রহ করেছে।

পরবর্তীতে যাদের স্বজনরা লাশের সন্ধানে আসবে তাদের ডিএনএ-এর সঙ্গে ম্যাচ করিয়ে লাশগুলো তাদের কাছে হস্তান্তর করা হবে। যদি নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে কেউ না আসে, সে ক্ষেত্রে আঞ্জুমান মফিদুলকে লাশ বুঝিয়ে দেওয়া হবে এবং তাদের ডিএনএ নমুনা সংগ্রহে রাখা হবে।

ডিসি ফারুক বলেন, এ ঘটনার প্রেক্ষিতে আমরা চারজনকে গ্রেপ্তার করেছি। এই অবহেলাজনিত দুর্ঘটনায় মৃত্যুতে কাদের দায় আছে, ভবন মালিকের দায়, নাকি রেস্টুরেন্ট মালিক ও ম্যানেজারের দায়, কোথায় কোথায় অবহেলা আছে, কোন কোন সংস্থা এখানে কাজ করার কথা ছিল, তারা কীভাবে কাজ করছে সব বিষয় আমরা পুঙ্খানুপুঙ্খ বিশ্লেষণ করছি। এরপর যাদের বিরুদ্ধে দায় পাওয়া যাবে তাদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হবে।

এ দুর্ঘটনার পরে ফায়ার সার্ভিস এবং রাজউক তদন্ত কমিটি গঠন করেছে। কমিটিগুলো তাদের অনুসন্ধান শেষে রিপোর্ট দেওয়ার পরে যাদের বিরুদ্ধে দায় পাওয়া যাবে, তাদের সবার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলেও জানান পুলিশের এই কর্মকর্তা।

ডিসি ফারুক হোসেন আরও বলেন, এ সকল ঘটনায় মামলার রুজুর পর পুলিশের কাজ হচ্ছে তদন্ত করে দেখা এই ঘটনার পেছনে কাদের দায় আছে বা কারা দায়ভার বহন করবে। সেই বিষয়টা তদন্ত করে খুঁজে বের করে তাদের আইনের আওতায় নিয়ে আসা হয় এবং গ্রেপ্তার করা হয়।

তিনি বলেন, তদন্ত শেষ হওয়ার পর যাদের দায় আছে, তাদের দায়িত্ব নিরূপণ করে আদালতে পুলিশ প্রতিবেদন দাখিল করে থাকে। আমরা ইতোপূর্বেও এমন ঘটনায় যেসব মামলা দায়ের হয়েছিল, সেগুলো সুষ্ঠুভাবে তদন্ত সম্পন্ন করেছি এবং অভিযুক্তদের প্রত্যেককে গ্রেপ্তার করেছি। এ ঘটনায়ও তদন্ত চলবে। চারজনের বাইরে মামলা তদন্ত চলাকালে আরও যে সকল ব্যক্তির সংশ্লিষ্টতা পাওয়া যাবে তাদের প্রত্যেককে আইনের আওতায় আনা হবে।

বাংলাদেশ সময়: ২১২২ ঘণ্টা, মার্চ ০২, ২০২৪
পিএম/এমজেএফ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।