ঢাকা, বুধবার, ৪ বৈশাখ ১৪৩১, ১৭ এপ্রিল ২০২৪, ০৭ শাওয়াল ১৪৪৫

জাতীয়

মনসুর আলী মেডিকেল কলেজে ছাত্রকে গুলি করলেন শিক্ষক

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৭২৪ ঘণ্টা, মার্চ ৪, ২০২৪
মনসুর আলী মেডিকেল কলেজে ছাত্রকে গুলি করলেন শিক্ষক

সিরাজগঞ্জ: সিরাজগঞ্জের শহীদ এম মনসুর আলী মেডিকেল কলেজে ক্লাস চলাকালে আরাফাত আমিন তমাল নামে এক ছাত্রের ওপর গুলি চালিয়েছেন ডা. রায়হান শরীফ নামে এক শিক্ষক। গুলিটি ওই ছাত্রের উরুতে লেগেছে।

তাকে হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

সোমবার (৪ মার্চ) বিকেলে শহীদ এম মনসুর আলী মেডিকেল কলেজ ক্যাম্পাসে এ ঘটনা ঘটে। আহত আরাফাত আমিন কলেজের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী।

অভিযুক্ত শিক্ষক ডা. রায়হান শরীফ কলেজের কমিউনিটি মেডিসিন বিভাগের শিক্ষক।  

ঘটনার পর বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা কলেজ ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ করেন। খবর পেয়ে পুলিশ ও র‍্যাব সদস্যরা ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করেন। অভিযুক্ত শিক্ষককে হেফাজতে নিয়ে তার অস্ত্র জব্দ করেছে পুলিশ।  

কলেজ শিক্ষার্থীরা জানান, শিক্ষক রায়হান শরীফ মাঝে মধ্যেই পিস্তল নিয়ে ক্লাসরুমে ঢোকেন। তিনি ছাত্র-ছাত্রীদের বিভিন্ন সময় ভয়ভীতি দেখাতেন। আজ বিকেল ৫টায় ক্লাস চলাকালীন শিক্ষক রায়হান শরীফ পিস্তল ও ধারালো চাকু নিয়ে হঠাৎ করে ক্লাসে ঢোকেন। এ সময় তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে ছাত্রছাত্রীদের সঙ্গে কথা কাটাকাটি শুরু হয়। একপর্যায়ে তৃতীয় বর্ষের ছাত্র আরাফাত আমিন তমালকে গুলি করেন তিনি। গুলিটি তার উরুতে লাগে।  এসময় তার চিৎকারের সবাই এগিয়ে এলে ডা. রায়হান শরীফকে তালাবদ্ধ করে রাখা হয়। আহত অবস্থায় তমালকে শহীদ এম মনসুর আলী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। এরপর বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা ক্যাম্পাসে বিক্ষোভ করেন।  

খবর পেয়ে পুলিশ, র‍্যাব ও গোয়েন্দা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করে। অভিযুক্ত শিক্ষককে হেফাজতে নেয় পুলিশ।  

শিক্ষার্থীদের অভিযোগ, আজ ভাইভা চলাকালীন ৪৫ জন শিক্ষার্থীর উপস্থিতিতে শিক্ষক রায়হান শরীফ ছাত্র তমালের ডান পেয়ে গুলি করেন। ওই শিক্ষকের শাস্তির দাবিতে শিক্ষার্থীরা ক্লাস বর্জনের ঘোষণা দেন।  

শহীদ এম মনসুর আলী মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ মো. আমিরুল হোসেন জানান, শিক্ষক রায়হান শরীফ উগ্র মেজাজী। তিনি প্রায়ই ক্যাম্পাসে অস্ত্র নিয়ে আসেন। আজকেও তিনি পিস্তল নিয়ে প্রবেশ করেন। শিক্ষার্থীদের সঙ্গে তুচ্ছ ঘটনায় বাগবিতণ্ডায় জড়িয়ে পড়েন তিনি। একপর্যায়ে ওই শিক্ষক তমালের পায়ে গুলি করেন। তাকে মনসুর আলী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। সে বর্তমানে আশঙ্কামুক্ত।

পুলিশ সুপার আরিফুর রহমান মণ্ডল বলেন, তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে এক ছাত্রের পায়ে গুলি করেন শিক্ষক। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করেছে। অভিযুক্ত শিক্ষককে হেফাজতে নেওয়া হয়েছে এবং পিস্তল জব্দ করা হয়েছে।  

বাংলাদেশ সময়: ১৭২৩ ঘণ্টা, মার্চ ০৪, ২০২৪
এসএম/আরএ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
welcome-ad