ঢাকা, রবিবার, ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯, ২২ মে ২০২২, ২০ শাওয়াল ১৪৪৩

জাতীয়

সেই ছাত্রীকে বিনা বেতনে পড়াতে চান মাদ্রাসার পরিচালক

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৯৩৭ ঘণ্টা, জানুয়ারি ২৪, ২০২২
সেই ছাত্রীকে বিনা বেতনে পড়াতে চান মাদ্রাসার পরিচালক

রাজশাহী: ধর্ষণের শিকার ছাত্রীর ভর্তি বাতিল করে মাদ্রাসা থেকে বের করে দেওয়ার সত্যতা মিলেছে।

রাজশাহীর অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) জয়া মারিয়া পেরেরা ও জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা নাসির উদ্দিন সোমবার (২৪ জানুয়ারি) তদন্তে গিয়ে এ ঘটনার সত্যতা পেয়েছেন।

রাজশাহী জেলা প্রশাসকের নির্দেশে সোমবার সকালে মহানগরীর হড়গ্রাম মুন্সিপাড়া এলাকার উম্মাহাতুল মুমিনীন মহিলা মাদ্রাসায় তদন্তে গিয়েছিলেন তারা।

এ সময় তাদের কাছে ভুল স্বীকার করে ক্ষমা চেয়ে এ ঘটনায় অনুতপ্ত হয়ে ওই মাদ্রাসা ছাত্রীকে আবারো মাদ্রাসার ভর্তি নিতে চেয়েছেন কর্তৃপক্ষ। কিন্তু এতে ওই ছাত্রীর মা অস্বীকৃতি জানিয়েছেন। এরই মধ্যে অন্য একটি স্কুলে তিনি তার মেয়েকে ভর্তি করে দিয়েছেন। তবে ওই ছাত্রীকে এবার বিনা বেতনেই পড়ার সুযোগ দিতে চাচ্ছে মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষ।

সকালে রাজশাহীর উম্মাহাতুল মুমিনীন মহিলা মাদ্রাসায় যান রাজশাহীর অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) ও জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা। এ সময় মাদ্রাসার পরিচালক মো. হাবিবুল্লাহ এ ঘটনার জন্য দুঃখ প্রকাশ করেন এবং ওই ছাত্রীর বাবা ও মায়ের কাছ নিঃশর্ত ক্ষমা চান। একই সঙ্গে ওই ছাত্রীকে আবারও মাদ্রাসায় পড়ার সুযোগ দিতে অঙ্গীকার করে মাদ্রাসার পরিচালক মো. হাবিবুল্লাহ বলেন, শিশুটি যদি সেখানে পড়তে চায় তাহলে তার লেখাপড়ার সব ব্যয় বহন করবে মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষ।

কিন্তু ওই ছাত্রীর মা মেয়ের নিরাপত্তার কথা বিবেচনায় এ ব্যাপারে অস্বীকৃতি জানান।

ছাত্রীর মা বলেন, ভর্তি নিয়েও তার মেয়েকে একবার টাকা ফেরত দিয়ে মাদ্রাসা থেকে বের করে দেওয়া হয়েছে। আবারও এ মাদ্রাসায় দিলে পরিচালক তার মেয়ের সঙ্গে ভালো আচরণ করবেন না। তাই এখানে আর মেয়েকে পড়াতে চান না তিনি। এ মাদ্রাসা থেকে বের করে দেওয়ার পর তিনি তার মেয়েকে অন্য একটি স্কুলে ভর্তি করে দিয়েছেন বলেও সবাইকে জানিয়েছেন।

এদিকে দুপুরে সমাজসেবা অধিদপ্তর ও ইউনিসেফের শিশু সহায়তার ১০৯৮ নম্বর থেকেও তার স্বামীকে কল দেওয়া হয়েছে। তারা তার মেয়ের সম্পর্কে এবং এ ঘটনার ব্যাপারেও খোঁজ-খবর নিয়েছে। কথা শেষে তাকে আশ্বাস দিয়েছেন, এখন থেকে তারা ওই শিশুর লেখাপড়াসহ সব ধরনের সহায়তা দেবেন। এ সময় তিনি তার কন্যাশিশুর ধর্ষণকারীর দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চেয়েছেন বলেও জানান নির্যাতিত ওই ছাত্রীর মা।

রাজশাহীর অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা ও আইসিটি) জয়া মারিয়া পেরেরা বাংলানিউজকে বলেন, ধর্ষণের শিকার হওয়ার পর শিশুর প্রতি এমন আচরণ খুবই অমানবিক। এ বিষয়টি নজরে আসার পরপরই রাজশাহী জেলা প্রশাসক তাকে এবং জেলা শিক্ষা অফিসারকে এ ঘটনার তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নির্দেশ দিয়েছিলেন। সরেজমিনে এসে তারা ঘটনার সত্যতা পেয়েছেন। এ ঘটনায় মাদ্রাসা পরিচালক ভুল স্বীকার করেছেন। শিশুটিকে মাদ্রাসায় ভর্তি নিয়ে বিনা বেতনে পড়ানোর প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন পরিচালক। এখন শিশুটির পরিবার থেকে এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত জানাবে। তবে তারা এ ঘটনাটি পর্যবেক্ষণে রাখবেন।

আরও পড়ুন>>

>>>সেই শিশুর ভর্তি বাতিলের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ
>>> ধর্ষণের শিকার শিশুর ভর্তি বাতিল করল মাদ্রাসা!

বাংলাদেশ সময়: ১৯৩৬ ঘণ্টা, জানুয়ারি ২৪, ২০২২
এসএস/আরআইএস

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa