ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ৪ বৈশাখ ১৪৩১, ১৮ এপ্রিল ২০২৪, ০৮ শাওয়াল ১৪৪৫

মুক্তমত

গণতান্ত্রিক রাজনীতিতে সহিংসতার স্থান নেই

বিচারপতি শামসুদ্দিন চৌধুরী মানিক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৩২৪ ঘণ্টা, নভেম্বর ১, ২০২৩
গণতান্ত্রিক রাজনীতিতে সহিংসতার স্থান নেই

ঢাকা মহানগর পুলিশের কনস্টেবল আমিরুল ইসলাম পারভেজকে যে বর্বরোচিতভাবে হত্যা করল বিএনপি-জামায়াতের কর্মীরা, টেলিভিশনের পর্দায় সে দৃশ্য দেখে চোখের পানি আটকাতে পেরেছে, এমন লোক কমই আছে। খুনিদের উন্মাদনা এতটাই পৈশাচিক ছিল যে আশপাশের বহু প্রত্যক্ষদর্শীও তাদের আবেগ চেপে রাখতে পারেনি।

গণতন্ত্রে এমন পৈশাচিকতার স্থান কোথায়? গণতন্ত্রে অগ্নিসন্ত্রাস কিংবা মানুষ হত্যার কোনো সুযোগ আছে কি?

আমিরুল ইসলাম পারভেজ মুক্তিযুদ্ধের চেতনা রক্ষার জন্য মুক্তিযুদ্ধবিরোধীদের হাতে শহীদ হয়েছেন। একাত্তরে ৩০ লাখ লোক শহীদ হয়ে আমাদের দিয়েছিলেন এক স্বাধীন-সার্বভৌম ভূখণ্ড।

স্বাধীনতার পরও মুক্তিযুদ্ধের চেতনার ওপর উপর্যুপরি আক্রমণ হয়েছে দফায় দফায়। দেশকে পুনরায় পাকিস্তান বানানোর অনেক অপচেষ্টা হয়েছে। সে সময়ে একাত্তরের পরাজিত অপশক্তিকে রুখে দেওয়ার জন্যও অনেক দেশপ্রেমিককে মৃত্যুবরণ করতে হয়েছে মুক্তিযুদ্ধের চেতনাবিরোধীদের হাতে। একাত্তরে স্বাধীনতা অর্জনের জন্য যেমন ৩০ লাখ বাঙালি শহীদ হয়ে আমাদের গৌরবোজ্জ্বল ইতিহাসের স্বর্ণময় অধ্যায়ে স্থান পেয়েছেন, স্বাধীনতা-পরবর্তী সময়ে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা রক্ষার জন্য যাঁরা স্বাধীনতাবিরোধীদের হাতে নিহত হয়েছেন, তাঁরাও শহীদ হিসেবেই শ্রদ্ধাভরে বেঁচে থাকবেন ইতিহাসের অম্লান পাতায়।

পুলিশ সদস্য আমিরুল ইসলাম পারভেজও তেমনি একজন, যিনি ২৮ অক্টোবর শহীদ হলেন স্বাধীনতাবিরোধী পিশাচদের হাতে, মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে সমুন্নত রেখে দেশে পাকিস্তানীকরণ প্রক্রিয়া নস্যাতের জন্য।

অতীতেও স্বাধীনতার চেতনায় বিশ্বাসীদের হত্যা করেছে সেই অসুর গোষ্ঠী, যারা স্বাধীন ধর্মনিরপেক্ষ বাংলাদেশকে কখনো মেনে নিতে পারেনি। জিয়াউর রহমান আগ্নেয়াস্ত্রের বলে ক্ষমতা দখলের পর যে শত শত মুক্তিযোদ্ধাকে হত্যা করেছেন, তাঁরাও পেয়েছেন শহীদের মর্যাদা। যুদ্ধাপরাধী, খুনি, ধর্ষক সাঈদীকে দণ্ডাদেশ দেওয়ার দিন এমন উদ্ভট কথা ছড়ানো হয় যে তাঁকে চাঁদে দেখা গেছে।

সঙ্গে সঙ্গে ধর্মান্ধ স্বাধীনতাবিরোধীরা রাস্তায় নেমে পুলিশ সদস্যসহ অনেক দেশপ্রেমিককে হত্যা করে। তারা সবাই শহীদের মর্যাদায় রয়েছেন। মুক্তিযুদ্ধকালের ৩০ লাখ শহীদের রক্ত যেমন বৃথা যায়নি, স্বাধীনতা-পরবর্তী সময়ে দেশকে পাকিস্তানীকরণ প্রক্রিয়া থেকে রক্ষার জন্য যাঁরা রক্ত দিয়েছেন, তাঁদের রক্তদানও বৃথা যাবে না। বীর মুক্তিযোদ্ধা সিকান্দার মোল্লা যেমন বঙ্গবন্ধুর ডাকে জাগ্রত হয়ে মু্ক্তিযুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েছিলেন নিজের জীবন বাজি রেখে, তাঁর দেশপ্রেমী পুত্র শহীদ আমিরুল ইসলাম পারভেজও একাত্তরের পরাজিতদের বংশধরদের প্রতিহত করার প্রত্যয় নিয়ে ঝাঁপিয়ে পড়েছিলেন তাদের ঠেকাতে। তিনি মানুষরূপী দৈত্যদের আক্রমণে মৃত্যুর শীতল কোলে পতিত হয়েছিলেন বটে, কিন্তু পরাস্ত হননি।

মুক্তিযুদ্ধের চেতনার মানুষ কখনো পরাজিত হয় না। তাঁর রক্ত দেখে উজ্জীবিত হবে লাখ লাখ দেশপ্রেমী। সেই রক্তই বহু দেশপ্রেমীর উদ্দীপনার উৎস হয়ে থাকবে যুগ যুগ ধরে। আমাদের মুক্তিযুদ্ধের চেতনার ওপরে হামলা হলে ভবিষ্যৎ প্রজন্ম শহীদ পারভেজের পদাঙ্ক অনুসরণ করে ঝাঁপিয়ে পড়বে স্বাধীনতাবিরোধীদের প্রতিরোধ করতে।

এরই মধ্যে জানা গেছে যে হত্যাকাণ্ডে সরাসরি জড়িত দুজনকে গ্রেপ্তার করা সম্ভব হয়েছে। এই কৃতিত্বের জন্য ঢাকা মহানগর এবং বাংলাদেশ পুলিশ নিশ্চয়ই সাধুবাদের দাবিদার। ২৮ অক্টোবর ঢাকা শহরের সব এলাকায় চালু রাখা হয়েছিল শক্তিশালী সিসিটিভি। তাই ভুল লোকদের চিহ্নিত করার কোনো সুযোগ নেই। এমনকি আমরা অর্থাৎ টেলিভিশনের দর্শকরাও প্রত্যক্ষ খুনিদের মুখ পরিষ্কারভাবেই দেখতে পেয়েছি। দেখা গেল যে প্রাথমিক আক্রমণের পর শহীদ পারভেজ মাটিতে লুটিয়ে পড়ার পরও তাঁর ওপর আক্রমণ চালানো হলো মারাত্মক অস্ত্র দিয়ে। সে দৃশ্য দেখার মতো ছিল না। এ ধরনের নিষ্ঠুর মানুষ কমই দেখা যায়। তারা দীক্ষা পেয়েছে তাদের গুরু জিয়াউর রহমানের কাছ থেকে, যিনি কথায় কথায় মানুষ হত্যা করতে অভ্যস্ত ছিলেন। প্রত্যক্ষ খুনিরা ছাড়াও আইনের দৃষ্টিতে সেসব ব্যক্তি দায় এড়াতে পারে না, যারা হুকুমের আসামি,  উসকানিদাতা বা অপরাধের সহায়ক হিসেবে চিহ্নিত। যারা সেদিন পরিকল্পনামাফিক ঢাকা শহরে ত্রাসের রাজত্ব সৃষ্টির উদ্দেশ্যে তাণ্ডবের পরিস্থিতি সৃষ্টি করেছিল, মাস্তানদের আহ্বান করেছিল ঢাকা শহরে এসে তাণ্ডব চালাতে, আইনের দৃষ্টিতে তারাও অপরাধের দায় থেকে বাঁচতে পারে না। জানা গেছে, বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, মির্জা আব্বাসসহ আরো কয়েকজনকেও আসামির তালিকাভুক্ত করা হয়েছে। পৃথিবীর অন্যান্য সভ্য দেশের মতো বাংলাদেশের ফৌজদারি আইনে সেসব ব্যক্তিও সমানভাবে দায়ী, যারা অপরাধের পরিস্থিতি সৃষ্টি করে, হুকুম দেয়, মৌখিক বা শারীরিক অঙ্গভঙ্গির মাধ্যমে উসকানি দেয় বা অন্য কোনোভাবে প্রত্যক্ষ অপরাধীদের সহায়তা করে। সে অর্থে ২৮ অক্টোবর যারা শহীদ পারভেজের হত্যার পরিস্থিতি সৃষ্টি করে তার হত্যাকাণ্ডে সহায়তা করেছিল, তাদের আসামির তালিকাভুক্ত করা আইনেরই নির্দেশ। আইনমন্ত্রী মহোদয় বলেছেন, শহীদ পারভেজ হত্যা মামলার দ্রুত বিচার নিশ্চিত করা হবে। ঢাকা মহানগর পুলিশপ্রধান হাবিবুর রহমান বলেছেন, দোষীদের শাস্তি নিশ্চিত করার জন্য প্রয়োজনীয় সব ব্যবস্থাই করা হবে। মামলা প্রমাণের জন্য প্রয়োজন উপযুক্ত সাক্ষ্য-প্রমাণ আর এসব সাক্ষ্য-প্রমাণ, বিশেষ করে সিসিটিভিতে ধারণ করা চিত্রগুলোর এবং প্রত্যক্ষদর্শীদের সাক্ষ্যের বিশেষ প্রয়োজন হবে, যেগুলোর ব্যবস্থা করার জন্য ঢাকা মহানগর পুলিশ এবং বিভিন্ন শাখার গোয়েন্দা কর্মকর্তাদের ভূমিকা অপরিহার্য। জামিন প্রদান আদালতের এখতিয়ারের বিষয় হলেও জামিন ঠেকাতে প্রসিকিউশনপক্ষের আইনজীবীদের দায়িত্ব অনস্বীকার্য। এই দানবীয় হত্যাকাণ্ডের আসামিরা এবং তাদের উসকানিদাতারা যেন আইনের ফাঁকফোকর বের করে জামিনে মুক্তি না পায়, সে ব্যবস্থা করার জন্য আইনমন্ত্রী মহোদয়কে বিশেষ উদ্যোগ নিতে হবে প্রসিকিউশনের আইনজ্ঞদের সতর্ক রাখার জন্য। একটি আদালত জামিন দিলে যেন তাৎক্ষণিকভাবে উচ্চতর আদালতের দ্বারস্থ হওয়া যায়, সে ব্যবস্থা করার জন্য পিপি, এপিপি এবং অ্যাটর্নি জেনারেল অফিসের কর্মকর্তাদের নির্দেশনা দিতে হবে। তিনি সেই দায়িত্ব পালন করবেন বলে আমাদের পূর্ণ আস্থা রয়েছে।

এটি কারোরই অজানা নয় যে বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর নেজামে ইসলাম, মুসলিম লীগ, জামায়াতে ইসলামীর মতো ধর্মান্ধ দলের নেতাকর্মীরা জিয়াউর রহমানকে তাঁদের ত্রাণকর্তা হিসেবে পেয়ে তাঁর ছত্রচ্ছায়ায় এক হয়েছিলেন। জিয়া কুখ্যাত রাজাকারদের স্থান দিয়েছিলেন তাঁর অবৈধ মন্ত্রিসভায়। আর তাঁদের সমন্বয়েই সৃষ্টি হয়েছে বিএনপি নামক রাজনৈতিক দল। এই দলের বেশির ভাগ নেতাকর্মীই মুক্তিযুদ্ধবিরোধী অথবা বিরোধীদের বংশধর। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মহোদয় তথ্যের ভিত্তিতে বলেছেন, প্রত্যক্ষ দুই খুনিই বিএনপির ছাত্রদলের বিভিন্ন পদাধিকারী। আরো তদন্তে এটিও জানা যেতে পারে যে তারা রাজাকারদেরই বংশধর। তাই তারা মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় অঙ্গীকারবদ্ধ এক পুলিশ সদস্যকে হত্যা করেছে।

গণতান্ত্রিক রাজনীতিতে সহিংসতার স্থান নেইশহীদ পারভেজের বাড়িতে শোকের যে ছায়া নেমেছে, সেটিই স্বাভাবিক। সেই পরিবারের কর্ণধার সেকান্দার আলি মোল্লা পাকিস্তানি হানাদার এবং তাদের রাজাকার দোসরদের বিরুদ্ধে মুক্তিযুদ্ধের সময় অস্ত্র হাতে নিয়েছিলেন। সে সময়ে তিনিও শহীদ হতে পারতেন, তবে তিনি বেঁচে এসেছেন। আজ তাঁর শহীদ পুত্র একইভাবে একাত্তরের পরাজিত অপশক্তিদের দমাতে গিয়ে শহীদ হয়েছেন বটে, কিন্তু তিনি অনাদিকাল চিরঞ্জীব হয়ে বেঁচে থাকবেন মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসীদের অনুপ্রেরণার শক্তিদাতা হিসেবে। তাঁর সাত বছর বয়সের শিশুকন্যা পিতৃহারা হিসেবেই বড় হবে। তবে আজীবন গৌরবের সঙ্গে বলতে পারবে তার বাবা স্বাধীনতাবিরোধীদের দমন করতে গিয়ে শহীদ হয়েছেন, যেমন শহীদ হয়েছেন মুক্তিযুদ্ধকালে ৩০ লাখ বাঙালি।

২৮ অক্টোবর এই পাকিস্তানপন্থীরা যে অভিলাষ নিয়ে এগিয়েছিল, তাদের সেই গুড়ে বালি পড়েছে। তারা ভেবেছিল, এক মহাপ্রলয় ঘটিয়ে তারা অবৈধ, অসাংবিধানিক পন্থায় ক্ষমতা দখল করবে, যে পন্থায় তাদের দলের প্রতিষ্ঠাতা জিয়া ক্ষমতা দখল করেছিলেন। কিন্তু মহাপ্রলয়ের বদলে ২৮ অক্টোবর তাদের মহাপ্রয়াণই ঘটেছে। সেদিনের উন্মাদনা, জ্বালাও-পোড়াও, পুলিশ হাসপাতালে আগুন দেওয়া, রোগী বহনকারী অ্যাম্বুল্যান্স জ্বালিয়ে দেওয়া, প্রধান বিচারপতির বাড়িতে আক্রমণ, আইন-শৃঙ্খলার দায়িত্বে কর্মরত বহু পুলিশ-র‌্যাব সদস্যকে আক্রমণ, সংবাদ সংগ্রহের জন্য কর্মরত বহু সাংবাদিকের ওপর ন্যক্কারজনক দৈহিক আক্রমণের সব ঘটনাই দেশের  জনগণ টেলিভিশনের পর্দায় দেখেছে। আগে কিছু মানুষের মধ্যে বিএনপির প্রতি যেটুকু সমর্থন ছিল, ২৮ অক্টোবর সব কিছু দেখার পর তা-ও শেষ হয়েছে। জ্বালাও-পোড়াও এবং ধ্বংসযজ্ঞের ঘটনা বিএনপি-জামায়াতের নতুন কিছু নয়। ২৮ অক্টোবরের ঘটনা নতুন করে প্রমাণ করল দল দুটি তাদের সেই পন্থা মোটেও পরিত্যাগ করেনি। বিএনপি-জামায়াত যে এখনো এক এবং অভিন্ন তারও প্রমাণ পাওয়া গেল। সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশে জামায়াত নির্বাচনী প্রক্রিয়ায় অংশ নিতে পারে না। সে কারণেই ঢাকা মহানগর পুলিশ যৌক্তিকভাবেই জামায়াতকে সমাবেশের অনুমতি দেয়নি। কিন্তু তার পরও জামায়াত গায়ের জোরে ব্যারিকেড ভঙ্গ করে সমাবেশ করেছে, যার জন্য তাদের বিরুদ্ধেও আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। সেদিনের সেই অরাজকতা, ধ্বংসযজ্ঞ এবং দৈহিক আক্রমণগুলোতে জামায়াতের প্রত্যক্ষ ভূমিকা কারো নজর এড়ায়নি।

কবিগুরুর ভাষায় এরা সব কালনাগিনি, যারা চারিদিকে ছড়াচ্ছে বিষাক্ত নিশ্বাস। এদের বিষদাঁত চূড়ান্তভাবে ভেঙে দেওয়ার এটাই সময়। ভবিষ্যতে যেন আর কাউকে শহীদ পারভেজের মতো হত্যা করতে না পারে সে ব্যবস্থাই করতে হবে। শহীদ পারভেজের প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ খুনিদের বিচার দেখার জন্য গোটা জাতি তাকিয়ে থাকবে।

লেখক: আপিল বিভাগের অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতি

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।