ঢাকা, শনিবার, ২১ মাঘ ১৪২৯, ০৪ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ১২ রজব ১৪৪৪

রাজনীতি

আওয়ামী লীগ বা বিএনপির সঙ্গে আর নয়: মুজিবুল হক চুন্নু 

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৯০৮ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ৬, ২০২২
আওয়ামী লীগ বা বিএনপির সঙ্গে আর নয়: মুজিবুল হক চুন্নু  মো. মুজিবুল হক চুন্নু। ফাইল ছবি

ঢাকা: আওয়ামী লীগ বা বিএনপির সঙ্গে জাতীয় পার্টি আর জোট করবে না বলে জানিয়েছেন দলটির মহাসচিব মো. মুজিবুল হক চুন্নু এমপি।  

তিনি বলেছেন, আওয়ামী লীগ বা বিএনপির সঙ্গে আর নয়।

বড় কোনো দলের সঙ্গে জাতীয় পার্টি প্রেম করবে না। জাতীয় পার্টির প্রেম দেশের সাধারণ মানুষের সঙ্গে। আওয়ামী লীগ আর বিএনপির নীতিগত অনেক অমিল আছে। অনেক ইস্যুর কারণে তারা এক টেবিলে বসতে পারে না। কিন্তু ক্ষমতায় গেলে তাদের মধ্যে চরিত্রগত কোনো অমিল নেই।

মঙ্গলবার (০৬ ডিসেম্বর) দুপুরে বনানীস্থ কার্যালয় মিলনায়তনে ‘সংবিধান সংরক্ষণ দিবস’ উপলক্ষে আলোচনা সভায় সভাপতির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।  

তিনি বলেন, ক্ষমতায় গিয়ে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি দুর্নীতি, দুঃশাসন, চাঁদাবাজি এবং টেন্ডারবাজী আর দলীয় করণের মাধ্যমে দেশের শান্তি শেষ করেছে। দেশের মানুষ তাই আওয়ামী লীগ ও বিএনপিকে আর ক্ষমতায় দেখতে চায় না। দুটি দলের ওপর দেশের মানুষ বিরক্ত হয়ে আছে।  

জাতীয় পার্টি মহাসচিব মো. মুজিবুল হক চুন্নু আরও বলেন, সংসদীয় গণতন্ত্রের নামে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি দেশে স্বৈরতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করেছে। সংসদীয় গণতন্ত্রের নামে এক ব্যক্তির হাতে সব ক্ষমতা কুক্ষিগত করা হয়েছে।  

তিনি বলেন, যিনি নির্বাহী বিভাগের প্রধান, তিনিই আইন সভারও প্রধান আবার রাষ্ট্রপতির মাধ্যমে বিচার বিভাগও অনেকটাই তার হাতে। বিপুল ক্ষমতা একজনের হাতে থাকলে ক্ষমতার ভারসাম্য থাকে না। আবার ভুল ত্রুটিও বেশি হয়। একজনের হাতে সব ক্ষমতা থাকলে রাষ্ট্রের কোনো ক্ষেত্রেই জবাবদিহিতা থাকে না। দেশে অবকাঠামোগত উন্নয়ন হয়েছে কিন্তু দেশের মানুষ সুশাসন পায়নি।  

নির্বাচন প্রসঙ্গে চুন্নু বলেন, আওয়ামী লীগ ও বিএনপি প্রমাণ করেছে তত্ত্বাবধায়ক সরকার পদ্ধতিতে সুষ্ঠু নির্বাচন সম্ভব নয়। ১৯৯৬ সালে তত্বাবধায়ক সরকারের অধিনে অনুষ্ঠিত নির্বাচনে হেরে বিএনপি বলেছে নির্বাচন সুষ্ঠু হয়নি। আবার ২০০১ সালের নির্বাচনে আওয়ামী লীগ হেরে বলেছে, নির্বাচন সুষ্ঠু হয়নি। তিনি বলেন, শুধু আনুপাতিক হারে নির্বাচন হলেই সুষ্ঠু নির্বাচন সম্ভব হবে।  

তিনি বলেন, আনুপাতিক হারে নির্বাচনে শুধু প্রতীক থাকবে কোনো প্রার্থী থাকবে না। তাই, এই নির্বাচনে সন্ত্রাস ও নৈরাজ্য হবার সুযোগ থাকে না। জাতীয় পার্টি রাষ্ট্র ক্ষমতায় গেলে দেশে আনুপাতিক হারে নির্বাচন পদ্ধতি প্রতিষ্ঠা করবে। বর্তমান পদ্ধতিতে নির্বাচন সুষ্ঠু হবে না। ফেরেস্তা নিয়োগ করলেও বর্তমান সিষ্টেমের কারণে নির্বাচন সুষ্ঠু হবে না।  

সভাপতির বক্তব্যে মুজিবুল হক চুন্নু আরো বলেন, জাতীয় পার্টিতে কোনো অনৈক্য নেই। জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান গোলাম মোহাম্মদ কাদের এমপির নেতৃত্বে জাতীয় পার্টি ঐক্যবদ্ধ আছে।  

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে জাতীয় পার্টির কো-চেয়ারম্যান সৈয়দ আবু হোসেন বাবলা এমপি বলেন, কোনো ষড়যন্ত্রে জাতীয় পার্টির ঐক্য নষ্ট হবে না। জাতীয় পার্টির মধ্যে কেউ বিভাজন সৃষ্টি করতে পারবে না।  

এসময় আরও বক্তব্য রাখেন জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য সুনীল শুভ রায়, হাজী সাইফুদ্দিন আহমেদ মিলন, শফিকুল ইসলাম সেন্টু, অ্যাডভোকেট মো. রেজাউল ইসলাম ভূঁইয়া, সৈয়দ দিদার বখত, জহিরুল ইসলাম জহির, জহিরুল আলম রুবেল, ভাইস চেয়ারম্যান মো. আরিফুর রহমান খান, জাহাঙ্গীর আলম পাঠান, যুগ্ম মহাসচিব গোলাম মোহাম্মদ রাজু, মো. বেলাল হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক মো. হেলাল উদ্দিন।  

বাংলাদেশ সময়: ১৯০৫ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ০৬, ২০২২
এসএমএকে/এসএ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa