ঢাকা, শুক্রবার, ৬ বৈশাখ ১৪৩১, ১৯ এপ্রিল ২০২৪, ০৯ শাওয়াল ১৪৪৫

বিদ্যুৎ ও জ্বালানি

চতুর্থ প্রজন্মের পারমাণবিক রিয়্যাক্টর স্থাপন করছে রাশিয়া

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০৫৮ ঘণ্টা, ফেব্রুয়ারি ২৯, ২০২৪
চতুর্থ প্রজন্মের পারমাণবিক রিয়্যাক্টর স্থাপন করছে রাশিয়া

ঢাকা: পারমাণবিক বিদ্যুৎ উৎপাদনে চতুর্থ প্রজন্মের ফাস্ট নিউট্রন রিয়্যাক্টর স্থাপনের কাজ শুরু করেছে রাশিয়া। এই ফাস্ট নিউট্রন রিয়্যাক্টর অধিক নিরাপদ ও বেশি জ্বালানি তৈরি করতে সক্ষম হবে।

রাশিয়ার রাষ্ট্রীয় পরমাণু শক্তি কর্পোরেশন রসাটমের এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

এতে বলা হয়, রোসাটম একটি পরমাণু বিদ্যুৎ ইউনিটে চতুর্থ প্রজন্মের ফাস্ট নিউট্রন BREST-OD-300 রিয়্যাক্টর স্থাপনের কাজ শুরু করেছে। পশ্চিম সাইবেরিয়ার স্ভেরস্কে রসাটমের জ্বালানি কোম্পানি টেভেলের সাইবেরিয়া কেমিক্যাল কম্বাইনে নির্মীয়মান পাইলট ডেমন্সট্রেশন এনার্জি কমপ্লেক্স (পিডিইসি) সাইটে এনপিপিটি নির্মীত হচ্ছে।

৩০০ মেগাওয়াট ক্ষমতা সম্পন্ন লেড-কুল্ড ফাস্ট রিয়্যাক্টরটি ‘প্রাকৃতিক নিরাপত্তা’ নীতির ওপর ভিত্তি করে কাজ করবে। রসাটমের কৌশলগত প্রকল্প ‘প্রারিভ’ বা ব্রেকথ্রু’র অধীনে ফাস্ট রিয়্যাক্টর ভিত্তিক পারমাণবিক বিদ্যুৎ ইউনিটটি নির্মাণ করা হচ্ছে। বিদ্যুৎ ইউনিট ছাড়াও এখানে ‘ক্লোজড নিউক্লিয়ার সাইকেল’ ইউনিট বসানো হবে, যেখানে ইউরেনিয়াম-প্লুটোনিয়াম নাইট্রাইড জ্বালানি উৎপন্ন হবে। অধিকন্তু, ব্যবহৃত জ্বালানির পুনঃপ্রক্রিয়াজাতকরণের জন্য একটি ইউনিটও এখানে স্থাপিত হবে।

রিয়্যাক্টর ইউনিটের প্রধান ডিজাইনার ভাদিম লেমেখভ জানান, “প্রথাগত ভিভিইআর থার্মাল রিয়্যাক্টরের সঙ্গে নতুন এই রিয়্যাক্টরটির কয়েকটি পার্থক্য রয়েছে। এটির রিয়্যাক্টর ভেসেল মেটাল-কংক্রিটের একটি কাঠামো, যেখানে ভিভিইআর এর ক্ষেত্রে পুরো কাঠামোটি ইস্পাতের তৈরি। BREST-OD-300 এর ভেসেল আয়তনে অপেক্ষাকৃত বড় এবং এটির বিভিন্ন অংশ আলাদাভাবে সাইটে এনে সংযোজন করতে হচ্ছে।

ফাস্ট রিয়্যাক্টরের সুবিধা হলো, এটি জ্বালানি চক্রের সেকেন্ডারি বাইপ্রোডাক্ট বিশেষ করে প্লুটোনিয়ামকে কার্যকরভাবে ব্যবহার করতে সক্ষম হবে। উচ্চ রিজেনারেশন ফ্যাক্টরের কারণে ফাস্ট রিয়্যাক্টর যতটুকু জ্বালানি ব্যবহার করে তার চেয়ে বেশি সম্ভাব্য জ্বালানি তৈরি করতে সক্ষম এবং একই সঙ্গে অত্যন্ত সক্রিয় ও বিপদজনক একটিনিড (ট্রান্সউরানিক এলিমেন্ট) বার্ন আউট করে।

ফাস্ট রিয়্যাক্টরে মেল্ট-ট্র্যাপের মতো নিরাপত্তা ব্যবস্থা এবং বড় পরিমাণে সাপোর্ট সিস্টেম নির্মাণের প্রয়োজন পড়ে না। রিয়্যাক্টরটি এমনভাবে ডিজাইন করা যাতে জনসাধারণকে সরিয়ে নেবার প্রয়োজন পড়তে পারে এমন কোনো দুর্ঘটনার সম্ভাবনা নেই। ভবিষ্যতে এজাতীয় বিদ্যুৎ ইউনিটগুলো অধিকতর নিরাপদই শুধু নয়, বরং বর্তমানে বহুল ব্যবহৃত তাপ বিদ্যুৎকেন্দ্রগুলোর তুলনায় এগুলোর উৎপাদন খরচ প্রতিদ্বন্দিতামূলকও হবে।

BREST-OD-300 রিয়্যাক্টর জ্বালানি হিসেবে মূলত প্লুটোনিয়াম-২৩৯ ব্যবহার করবে। আর এটি ইউরেনিয়াম-২৩৮ থেকে উৎপাদিত হবে।

উল্লেখ্য, প্রকৃতিতে ইউরেনিয়াম-২৩৮ আইসোটোপের প্রচুর মজুদ রয়েছে (৯৯% এর অধিক)। অন্যদিকে, বর্তমানে নিউক্লিয়ার থার্মাল ইউনিটগুলোতে ব্যবহৃত ইউরেনিয়াম-২৩৫ এর প্রাকৃতিক মজুদ প্রায় ০.৭ শতাংশ।

বাংলাদেশ সময়: ২০৩৯ ঘণ্টা, ফেব্রুয়ারি ২৯, ২০২৪
এসকে/এমজেএফ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
welcome-ad