ঢাকা, শুক্রবার, ১০ ফাল্গুন ১৪৩০, ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১২ শাবান ১৪৪৫

আইন ও আদালত

বরগুনায় পুত্রবধুকে ধর্ষণের দায়ে শ্বশুরের যাবজ্জীবন

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ০০১৪ ঘণ্টা, ফেব্রুয়ারি ১, ২০২৩
বরগুনায় পুত্রবধুকে ধর্ষণের দায়ে শ্বশুরের যাবজ্জীবন

বরগুনা: পুত্রবধুকে ধর্ষণের দায়ে শ্বশুরকে যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদণ্ড ও ২৫ হাজার টাকা অর্থ দণ্ড দেওয়া হয়েছে।  

মঙ্গলবার (৩১ জানুয়ারি) বরগুনার নারী ও শিশু নির্যাতন দমন বিশেষ ট্রাইব্যুনালের বিচারক ও জেলা জজ মো. মশিউর রহমান খান এ আদেশ দেন।

দণ্ডপ্রাপ্ত আসামি হলো বরগুনা সদর উপজেলার এম বালিয়াতলী ইউনিয়নের গর্জনবুনিয়া গ্রামের মৃত আদম আলী হাওলাদারের ছেলে মো. সেরাজ হাওলাদার (৫০)। রায় ঘোষণার সময় আসামি ট্রাইব্যুনালে উপস্থিত ছিলেন।

জানা যায়, পুত্রবধু বরগুনা সদর থানায় ২০০৭ সালের ২৪ মে শশুরের বিরুদ্ধে অভিযোগ করেন, ওই বছর ১৯ মে তিনি শ্বশুরের ঘরের দোতলায় রাত ১২টায় ঘুমিয়ে ছিল। তার স্বামী নুরুজ্জামান বাড়িতে ছিল না। এই ফাঁকে শশুর মো. সেরাজ হাওলাদার গোপনে দোতলায় উঠে পুত্রবধুকে মুখ চেপে ধর্ষণ করেন। পুত্রবধু ডাক চিৎকার দিলে শশুর খুনের ভয় দেখান। পরের দিন পুত্রবধু তার চাচী শাশুরী শাহিনা বেগম, স্বামী নুরুল ইসলাম, প্রতিবেশী শাহজাহান, জাহিদুল ইসলামসহ অনেকের কাছে ঘটনা বলেন। বরগুনা থানা বাদীর মামলা রেকর্ড করে তদন্তের জন্য এসআই মো. মোস্তফার ওপর অর্পণ করেন। তদন্তকারী কর্মকর্তা ১৮ জুলাই আসামির বিরুদ্ধে আদালতে চার্জশীট জমা দেন। ট্রাইব্যুনাল বাদীসহ ৬ জনের সাক্ষ্য গ্রহণ করেন।  

রাষ্ট্রপক্ষের এপিপি আশ্রাফুল আলম বাংলানিউজকে বলেন, আসামি ভবঘুরে। ২০০৭ সাল থেকে পলাতক ছিল। চার মাস আগে গ্রেফতার হয়।  

আসামিপক্ষের আইনজীবী এম. মজিবুল হক কিসলু বাংলানিউজকে বলেন, আসামি পলাতক থাকায় সাক্ষীদের জেরা করা যায়নি। যার কারণে এক তরফা হয়েছে। তিনি বলেন, পুত্রবধু শশুরকে সেবা যত্ম ও রান্না করে খাওয়াবে না। এ কারণে অসত্য তথ্য দিয়ে মামলা করেছে। উচ্চ আদালতে আপিল করার অর্থ আসামির নেই।  

বাংলাদেশ সময়: ০০১৫ ঘণ্টা, ফেব্রুয়ারি ০১, ২০২৩
এসএ
 

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।