ঢাকা, শুক্রবার, ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ২৪ মে ২০২৪, ১৫ জিলকদ ১৪৪৫

রাজনীতি

লেনিন প্রতিবাদ, প্রতিরোধ ও পরিবর্তনের পথপ্রদর্শক: মেনন

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৫১১ ঘণ্টা, এপ্রিল ২২, ২০২৪
লেনিন প্রতিবাদ, প্রতিরোধ ও পরিবর্তনের পথপ্রদর্শক: মেনন

ঢাকা: বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন বলেছেন, পুঁজিবাদের চরম উৎকর্ষতার মধ্যে বিশ্বব্যাপী যখন যুদ্ধ চরম আকার ধারণ করছে তখন যুদ্ধের বিপরীতে দাঁড়িয়ে সাম্রাজ্যবাদের বিরোধিতার মাধ্যমে সাম্যের সমাজ প্রতিষ্ঠাই মুক্তিকামী মানুষের একমাত্র অবলম্বন। আর সেই পথ দেখিয়েছিলেন কমরেড লেনিন।

তিনি কেবল একজন বিপ্লবী নন, তিনি প্রতিবাদ, প্রতিরোধ ও পরিবর্তনের পথ প্রদর্শক।

সোমবার (২২ এপ্রিল) জাতীয় প্রেস ক্লাবের জহুর হোসেন চৌধুরী হলে রুশ বিপ্লবের মহানায়ক কমরেড ভ. ই. লেনিনের জন্মদিন উপলক্ষে পুঁজিবাদের সর্বোচ্চ রূপ হচ্ছে সাম্রাজ্যবাদ শীর্ষক আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন।  

বর্তমান বিশ্বে লেনিনের প্রাসঙ্গিকতা দেখা যাচ্ছে উল্লেখ করে রাশেদ খান মেনন বলেন, সোভিয়েত পতনের পর যেভাবে ঘোষণা করা হয়েছিল যে সমাজতন্ত্রের অবসান ঘটে গেছে, লেনিনকে ইতিহাস থেকে বাদ দিয়ে দেওয়া হবে কিন্তু আজকেও বর্তমান বিশ্বে আমরা লেনিনের প্রাসঙ্গিকতা দেখতে পাচ্ছি। দেশকে এগিয়ে নিতে হলে সাম্রাজ্যবাদের আগ্রাসনকে ভেদ করে যেতে হবে। আমরা যখন অপেক্ষা করছি আরেকটা বিশ্বযুদ্ধের জন্য, অথবা চীনকে কেন্দ্র করে জাপান, ফিলিপাইন যেভাবে মহড়া দিচ্ছে এমন প্রেক্ষাপটে আমরা যারা দেশকে এগিয়ে নিয়ে যেতে চাই তাদের সাম্রাজ্যবাদের আগ্রাসন, অপতৎপরতা ভেদ করে এগিয়ে যেতে হবে।

তিনি আরও বলেন, তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধের জন্য অপেক্ষা করছি। পুঁজিবাদ বর্তমানে এমন একটি জায়গায় পৌঁছেছে, যে এখন যুদ্ধ ছাড়া তার আর কোনো উপায় নাই। যুদ্ধ আজকে শুধু উপস্থিত নয়, তার ব্যাপ্তি প্রতিনিয়ত বাড়ছে। কেন আজকে আমেরিকাকে এতো আগ্রাসী হতে হচ্ছে? কেন মার্কিন কংগ্রেসকে ইসরায়েলে যুদ্ধাস্ত্র বিক্রির জন্য রেজুলেশন পাস করতে হচ্ছে? কারণ, পুঁজিবাদের দুষ্ট চক্র। আমেরিকার অভ্যন্তরীণ অর্থনীতি পরিপূর্ণভাবে অস্ত্র বিক্রির ওপর নির্ভরশীল। তাই পুঁজিবাদকে রক্ষা করতে হলে তার নতুন করে বিশ্বব্যাপী যুদ্ধ বাধানো ছাড়া কোনো উপায় নেই। লেনিন খুব স্পষ্টভাবে দেখিয়ে দিয়ে গেছেন, এই যুদ্ধ সাম্রাজ্যবাদী শক্তির সর্বোচ্চ বহিঃপ্রকাশ।

আলোচনা সভায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক খায়রুল ইসলাম চৌধুরী বলেন, ১৯৯০ সালের পরে বিশ্বব্যবস্থা, চিন্তা-চেতনার ব্যাপক পরিবর্তন হয়েছে। ৯০ সালের আগে বিপ্লবের স্বপ্নে বিভোর তরুণ তরুণীরা ছিল। এখন গোটা উপমহাদেশে ৪৭ এর ধর্মীয় বিভাজনের রাজনীতি ফেরত এসেছে। আজকে বিপ্লবের প্রশ্ন যখন আসছে তখন বর্তমান সমাজের এখন ধরণটা কী, চ্যালেঞ্জগুলো কী তা বিশ্লেষণ না করে শুধু তত্ত্ব বিশ্লেষণ করলে খুব বেশি লাভবান হব না।

সভাপতির বক্তব্যে পার্টির পলিটব্যুরো সদস্য কামরুল আহসান বলেন, লেনিন এই পৃথিবীর প্রথম সার্থক বিপ্লবী। তিনি পুঁজিবাদীদের উৎখাত করে শ্রমিক শ্রেণির রাষ্ট্র গঠনে সক্ষম হয়েছিলেন। তিনি বর্তমান বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটেও অত্যন্ত প্রাসঙ্গিক। তার শিক্ষা আমলে নিয়ে বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টি তার আগামী দিনের কর্মপরিকল্পনা সাজাবে।

সভায় মূল ধারণাপত্র উপস্থাপন করেন বাংলাদেশের ওয়ার্কার্স পার্টির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য কমরেড শরীফ শামশির। এ ছাড়াও বক্তব্য  দেন কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য সাদাকাত হোসেন বাবুল, আবুল হোসেন প্রমুখ।

বাংলাদেশ সময়: ১৫১১ ঘণ্টা, এপ্রিল ২২, ২০২৪
ইএসএস/এমজে

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।