ঢাকা, মঙ্গলবার, ২১ আষাঢ় ১৪২৯, ০৫ জুলাই ২০২২, ০৫ জিলহজ ১৪৪৩

দিল্লি, কলকাতা, আগরতলা

বাংলাদেশি ভোটার মমতার দলের প্রার্থী, ফের ধাক্কা খেল শাসকদল

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ০৭৫৭ ঘণ্টা, মে ২১, ২০২২
বাংলাদেশি ভোটার মমতার দলের প্রার্থী, ফের ধাক্কা খেল শাসকদল আলোরানি

কলকাতা: কলকাতা হাইকোর্টে ফের ধাক্কা খেল পশ্চিমবঙ্গের শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেস। শুক্রবার (২০ মে) ধরা পড়লো আরেক বাংলাদেশি নাগরিক।

২১ সালে পশ্চিমবঙ্গের বিধানসভা নির্বাচনে উত্তর ২৪ পরগনার বনগাঁর (দক্ষিণ) তৃণমূল কংগ্রেসের প্রার্থী ছিলেন আলোরানি সরকার। যদিও ভোটে হেরে যান তিনি। ওই কেন্দ্রে বিজেপির প্রার্থী স্বপন মজুমদার জয়ী হন।

আলোরানি হেরে গিয়ে বিজেপির বিরুদ্ধে মামলা করেন। সেই মামলার শুনানিতে শুক্রবার (২০ মে) আদালতে স্বপন মজুমদারের আইনজীবী জানান, আলোরানি বাংলাদেশের নাগরিক। এ বিষয়ে আদালতে তথ্যপ্রমাণও দেন তিনি। মামলাকারী আলোরানি সেই তথ্যের বিরুদ্ধে কোনো প্রমাণ দিতে পারেননি।

তখনই বিচারপতি সব দেখে জানান, দ্বৈত নাগরিকত্ব থাকলে কোনো ব্যক্তি নিজেকে ভারতীয় বলে দাবি করতে পারেন না। সেটা বেআইনি। এটা জরুরি ভিত্তিতে দেখতে ভারতের নির্বাচন কমিশনকে দায়িত্ব দেয় আদালত।

বিচারপতির নির্দেশ, হাইকোর্টের নির্দেশ কপি পাঠাতে হবে জাতীয় নির্বাচন কমিশনে। একই সঙ্গে মামলাকারীদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে বলা হয়েছে।

আদালতের পর্যবেক্ষণ, তৃণমূল প্রার্থীর দু'দেশের নাগরিকত্ব রয়েছে। মামলাকারী নিজেকে ভারতীয় বলে দাবি করতে পারেন না।

প্রসঙ্গত, ২০১৯ সালে ভারতের লোকসভা নির্বাচনে বাংলাদেশি অভিনেতাদের দিয়ে ভোটের প্রচার করে বিপাকে পড়েছিল শাসকদল।

এছাড়া সম্প্রতি প্রশান্ত কুমার হালদার ওরফে পিকে হালদার নামে বাংলাদেশের আলোচিত এক দুর্নীতিবাজকে পশ্চিমবঙ্গে বসবাসের সুযোগ দিয়েছে রাজ্যটির শাসক দল। যদিও এ বিষয়ে শাসকদলকে এখনও কাঠগড়ায় দাঁড় করায়নি আদালত।

এছাড়া একইদিনে পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য সরকারের শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী পরেশ অধিকারীর কন্যা অঙ্কিতা অধিকারীকে চাকরি থেকে বরখাস্তের নির্দেশ দেয়ে কলকাতা হাইকোর্ট। ২০১৮ সালে, স্কুল সার্ভিস কমিশনের (এসএসসি’র) মাধ্যমে শিক্ষিকার চাকরি পান অঙ্কিতা অধিকারী। প্রার্থীদের তালিকায় নাম না থাকলেও তিনি চাকরি পেয়েছিলেন বলে অভিযোগ ওঠে। এ ঘটনা নিয়ে মামলা করেন ববিতা বিশ্বাস নামে অপর চাকরিপ্রার্থী।

জানা যায়, ববিতার নাম বাদ দিয়ে শিক্ষামন্ত্রীর মেয়েকে শিক্ষক হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে।
মামলার এজাহারে ববিতা দাবি করেন, স্টেস লেভেল সিলেকশনে তিনি ৭৭ নম্বর পেয়েও তিনি রাজ্য সরকারের কাছে চাকরির জন্য যোগ্য বলে বিবেচিত হননি। কিন্তু, ৬১ নম্বর নিয়ে চাকরি পান অঙ্কিতা অধিকারী।

শুক্রবার ববিতার মামলার পরিপ্রেক্ষিতে আদালত রায় ঘোষণা করেছেন। রায়ে বলা হয়েছে, গত ৪১ মাস ধরে চাকরি করেছেন অঙ্কিতা। এসময় তাঁর প্রাপ্ত বেতনের পুরোটাই ফেরত দিতে হবে। অঙ্কিতা এবং তার প্রতিনিধি ইন্দিরা গার্লস হাইস্কুলে যেতে পারবেন না বলেও নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

ফলে একইদিনে কলকাতা হাইকোর্টে পরপর দুটি ধাক্কা ফেল পশ্চিমবঙ্গের শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেস।

বাংলাদেশ সময়: ০৭৫২ ঘণ্টা, মে ২১, ২০২২
ভিএস/এনটি

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa