ঢাকা, সোমবার, ২৩ মাঘ ১৪২৯, ০৬ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ১৪ রজব ১৪৪৪

অর্থনীতি-ব্যবসা

আমানত নিয়ে উৎকণ্ঠার কিছু নেই

মুহাম্মদ মুনিরুল মওলা, এমডি, ইসলামী ব্যাংক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১০১০ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ৬, ২০২২
আমানত নিয়ে উৎকণ্ঠার কিছু নেই

ইসলামী ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী মুহাম্মদ মুনিরুল মওলা বলেছেন, গ্রাহকদের আমানত নিয়ে উৎকণ্ঠার কিছু নেই। সব গ্রাহকের আমানতই নিরাপদ আছে।

ইসলামী ব্যাংকে আমানতের কোনো সংকটও নাই। একজন গ্রাহকও টাকা তুলতে এসে ব্যাংক থেকে খালি হাতে ফেরত যায়নি। তিনি বলেন, নিয়ম মেনে বিতরণ করায় ইসলামী ব্যাংকের সব ঋণের অর্থই ফেরত আসবে।

সম্প্রতি বিতরণ করা ঋণের টাকা ফেরত আসবে ছয়-সাত মাসের মধ্যে। ঋণগ্রহীতার জাতীয় পরিচয়পত্রসহ সব কাগজপত্র জমা নিয়েই ঋণ দেয় ইসলামী ব্যাংক। নিত্যপ্রয়োজনীয় খাদ্যপণ্য ও কাঁচামাল আমদানির জন্য সব ব্যাংকের চেয়ে বেশি এলসি খুলেছে ইসলামী ব্যাংক।

ইসলামী ব্যাংক নিয়ে সাম্প্রতিক গণমাধ্যমে প্রকাশিত খবরের বিষয়ে ব্যাংকটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী মুহাম্মদ মুনিরুল মওলা গণমাধ্যমে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, মহামারি করোনার পর দেশে খাদ্যপণ্যের চাহিদা বেড়ে যাওয়ায় ইসলামী ব্যাংক দেশের বড় বড় আমদানিকারকদের এলসি খুলেছে। রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে সৃষ্ট সংকটের সময় খাদ্যদ্রব্য আমদানির এলসি না খুললে জিনিসপত্রের দাম অনেক বেড়ে যেত। তেল, চিনি ও আটার দাম নিয়ন্ত্রণে দেশের ব্যাংকগুলো গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে।

মুহাম্মদ মুনিরুল মওলা বলেন, ইসলামী ব্যাংক কোনো ঋণ গ্রহীতাকে নগদ টাকা দেয় না। নিয়মকানুন মেনে বিনিয়োগ করে। খাদ্য আমদানির জন্য যেসব ঋণ দেওয়া হয়েছে, সেগুলো দেশে এসেছে। এসব খাদ্যপণ্য বিক্রি হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে টাকা ব্যাংকে চলে আসবে।

ইসলামী ব্যাংকের এমডি বলেন, গণমাধ্যমে প্রকাশিত খবর দেখে প্রবাসীরা দেশে তাদের আত্মীয়স্বজনকে টাকা তুলে নিতে বলেছিলেন। প্রবাসীর আত্মীয়রা ব্যাংকে এসে প্রথম দিকে বিভ্রান্ত হয়ে কিছু টাকা তুলে নিলেও কয়েক দিন পরে আবার জমা রেখেছেন। আবার অনেক প্রবাসীর আত্মীয়রা বলেছেন, এই ব্যাংক থেকে টাকা তুলে কোথায় রাখব। ইসলামী ব্যাংকের সবকিছু ঠিক আছে।

মুহাম্মদ মুনিরুল মওলা বলেন, জিনিসপত্রের দাম যে হারে বেড়েছে আমাদের বিনিয়োগ সে হারে বাড়েনি। ব্যবসার জন্য করোনার আগে ২০১৯ সালে ১০০ টাকা মূলধনের দরকার হলেও ২০২২ সালে দরকার হচ্ছে ৩০০ থেকে ৪০০ টাকা।

তিনি বলেন, ইসলামী ব্যাংকের সব কর্মকাণ্ডের প্রতিবেদন নিয়মিত বাংলাদেশ ব্যাংকে জমা দেওয়া হয়। দেশের একটি শক্তিশালী ইসলামী ব্যাংক হওয়ার কারণে একটি মহল হিংসা করছে। একটি কুচক্রী মহল ষড়যন্ত্রমূলকভাবে অপপ্রচার চালাচ্ছে।

মুহাম্মদ মুনিরুল মওলা বলেন, দেশের সব বড় বড় ব্যবসায়ী ও শিল্প গ্রুপের সঙ্গে ব্যবসা করছে ইসলামী ব্যাংক। ব্যাংকের মালিকানায় পরিবর্তন হতেই পারে। ইসলামী ব্যাংক প্রতিষ্ঠার সময় সৌদি আরবের ইসলামিক ডেভেলপমেন্ট ব্যাংকের শেয়ার ছিল ৭২ শতাংশ। বর্তমানে বিদেশিরা ৪৩ শতাংশ শেয়ারের মালিক। দেশের উদ্যোক্তাদের সক্ষমতা বৃদ্ধি পাওয়ায় তারা শেয়ার কিনেছেন। দেশের কৃষিপণ্য উৎপাদনের জন্য যে সার আমদানি করা হয়, তার ৮০ ভাগ এলসি নিষ্পত্তি করা হয় ইসলামী ব্যাংকের মাধ্যমে। সম্প্রতি আমরা বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম করপোরেশনের জন্য জ্বালানি আমদানির এলসি খুলেছি।

এমডি বলেন, শরিয়াহ মোতাবেক ব্যাংকিং সেবা প্রদানে ইসলামী ব্যাংকের যাত্রা শুরু হয় ১৯৮৩ সালে। আগামী বছরের ৩০ মার্চ আমরা ৪০ বছর উদযাপন করব। এটি বর্তমানে ১ কোটি ৯০ লাখ গ্রাহকের ব্যাংক। প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে ৮ কোটি মানুষ ইসলামী ব্যাংকের সঙ্গে যুক্ত। একটি ভালো ব্যাংক পরিমাপের যতগুলো প্যারামিটার দরকার, সবগুলোতেই ইসলামী ব্যাংক ১ নম্বরে। আমাদের শক্তিশালী নেটওয়ার্কের কারণে গ্রাহকদের অটুট সমর্থন রয়েছে। ইসলামী ব্যাংকিং সেবা প্রদানে সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার দেওয়ার কারণে জনপ্রিয় হয়েছে মানুষের কাছে। ফলে ইসলামী ব্যাংককে অনুসরণ করে গত কয়েক বছরে আরও ৯টি ইসলামী ব্যাংক প্রতিষ্ঠা হয়েছে। অধিকাংশ ব্যাংক ইসলামী ব্যাংকিং উইন্ডো চালু করেছে। আমরা সব সময় নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ ব্যাংকের নিয়মনীতি ও নির্দেশনা মেনে কার্যক্রম পরিচালনা করছি। এ ছাড়া ঐতিহ্যবাহী ইসলামী রীতিনীতিকেও সমান তালে মেনে চলে ইসলামী ব্যাংক। আমাদের পরিশোধিত মূলধন বেশি হওয়ার কারণে সব খাতে বিনিয়োগ করতে পেরেছি।

মুহাম্মদ মুনিরুল মওলা বলেন, ইসলামী ব্যাংকের মাধ্যমে ৯০ লাখ পরিবারের কর্মসংস্থান হয়েছে। আমরা বড় বড় শিল্প গ্রুপ ও ব্যবসায়ীদের ঋণ দিতে পারি বলেই এসব গ্রাহক আমাদের সঙ্গে আছে। দেশের সবচেয়ে বড় ইসলামী ব্যাংক হওয়ার পরেও আমরা ক্ষুদ্র ঋণ বিতরণ করছি। ইসলামী ব্যাংক সব সময় নারীর ক্ষমতায়নে কাজ করছে। প্রান্তিক জনগোষ্ঠীকে ৫ হাজার টাকা থেকে ৫ লাখ টাকা পর্যন্ত সম্পূর্ণ জামানতবিহীন ঋণ বিতরণ করছে ইসলামী ব্যাংক। আমাদের ১৬ লাখ ক্ষুদ্র ঋণগ্রহীতা আছে। এসব গ্রহীতার মধ্যে আবার ৯২ শতাংশ নারী উদ্যোক্তা।

তিনি বলেন, সারা দেশে আমাদের ৩৯৪টি শাখা রয়েছে। ২ হাজার ৭০০টি এজেন্ট ব্যাংকিং পয়েন্ট রয়েছে। ২ হাজার ৪৩০টি উপশাখা রয়েছে। ২ হাজার ৫০০টি এটিএম ও ক্যাশ রিসাইকেলিং (সিআরএম) রয়েছে। মোট ৬ হাজার আউটলেট থেকে দেশের প্রত্যন্ত গ্রামের মানুষকে আমরা ব্যাংকিং সেবা পৌঁছে দিয়েছি।

এমডি বলেন, বিশ্বের বিভিন্ন দেশে ১ কোটি ৩৫ লাখ বাংলাদেশি অবস্থান করছেন। এসব প্রবাসীর প্রতি ১০ জনের আটজনেরই ইসলামী ব্যাংকে অ্যাকউন্ট আছে। তারা লেনদেন করেন। ১ লাখ ৫২ হাজার কোটি টাকা নিয়ে দেশের ব্যাংকিং খাতের মোট আমানতের ১০ ভাগ রয়েছে ইসলামী ব্যাংকের কাছে। বিনিয়োগ করেছে ১ লাখ ৩৫ হাজার কোটি টাকা যা মোট বিনিয়োগের ৩০ শতাংশ। দেশে যে রেমিট্যান্স আসে তার ৩০ ভাগই ইসলামী ব্যাংকের মাধ্যমে।  আমরা সংযুক্ত আরব আমিরাত, সৌদি আরব ও যুক্তরাষ্ট্র থেকে মোট রেমিট্যান্সের ৫২ শতাংশ সংগ্রহ করছি। বছরে ১২০০ কোটি ডলার যোগ করছে দেশের বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভে।

মুহাম্মদ মুনিরুল মওলা বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মহামারি করোনার সময় দেশের ব্যবসায়ীদের জন্য প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা করেছেন। করোনার প্রাদুর্ভাব কাটিয়ে ওঠার আগে শুরু হওয়া রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের কারণে দাম বেড়ে যাওয়া খাদ্যপণ্য আমদানির জন্য ইসলামী ব্যাংক সবচেয়ে বেশি এলসি খুলেছে।

বাংলাদেশ সময়: ১০০৮, ডিসেম্বর ০৬, ২০২২
এমএইচএস

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa