ঢাকা, শুক্রবার, ১৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৯, ০২ ডিসেম্বর ২০২২, ০৭ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

অর্থনীতি-ব্যবসা

নতুন শিল্প উদ্যোক্তা ও সৎ ব্যবসায়ীদের কর ছাড়

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৪৪৬ ঘণ্টা, জানুয়ারি ৭, ২০১৭
নতুন শিল্প উদ্যোক্তা ও সৎ ব্যবসায়ীদের কর ছাড় মিনিস্টার-মাইওয়ান এক্সপোর্ট প্রোমিনেন্ট অ্যান্ড বিজনেস কনফারেন্সে বক্তৃতা করেন মো. নজিবুর রহমান

ঢাকা: নতুন শিল্প উদ্যোক্তা ও সৎ ব্যবসায়ীদের সব ধরনের কর ছাড় দেওয়া হবে বলে জানিয়েছেন জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) চেয়ারম্যান মো. নজিবুর রহমান।ন।

তবে কর ছাড়ের সুবিধা নিয়ে এর অপব্যবহার করলে তার বিরুদ্ধেও কঠোর ব্যবস্থা নেওয়ার হুঁশিয়ারি দেন তিনি।
 
শনিবার (৭ জানুয়ারি) গাজীপুরের রাজেন্দ্রপুরের ব্র্যাক-সিডিএম-এ ‘মিনিস্টার-মাইওয়ান এক্সপোর্ট প্রোমিনেন্ট অ্যান্ড বিজনেস কনফারেন্সে’ বক্তৃতা করছিলেন নজিবুর রহমান।


 
এনবিআরের জনসংযোগ কর্মকর্তা সৈয়দ এ মু’মেন বাংলানিউজকে এ কথা জানিয়েছেন।
 
দেশের সর্বত্র ব্যবসার পরিবেশ নিশ্চিত করতে এনবিআর ও ব্যবসায়ীরা হাত ও হাতমোজার মতো অংশীদারিত্বের ভিত্তিতে কাজ করছেন জানিয়ে এনবিআর চেয়ারম্যান বলেন, সরকারের রূপকল্প ২০২১ বাস্তবায়নে প্রচুর রাজস্ব প্রয়োজন। ব্যবসার ক্ষেত্র প্রসার ছাড়া রাজস্ব বাড়ানো সম্ভব নয়। তাই সৎ ব্যবসায়ীদের কর ছাড়সহ সব সুবিধা দেবে এনবিআর।
 
তিনি বলেন, কিছু ব্যবসায়ী কর ছাড় ও বন্ড সুবিধার অপব্যবহার করছেন। তাদের চিহ্নিত ও তালিকা করে ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে। অসৎ ব্যবসায়ীরা দেশ ও জাতির শত্রু।
 
এনবিআর চেয়ারম্যান বলেন, ব্যবসায়ীদের সঙ্গে দৃঢ় পার্টনারশিপের অংশ হিসেবে এনবিআরের সামনে ফুল ও ফলে আচ্ছাদিত ‘পার্টনারশিপ গার্ডেন’ স্থাপন করা হয়েছে। এর মাধ্যমে আমরা বার্তা দিচ্ছি সঠিক ও নিয়মমাফিক রাজস্ব প্রদান করলে ফুলের শুভেচ্ছা আর ফলের সম্ভাষণ। আর বাগানে স্থাপন করা হয়েছে রয়েল বেঙ্গল টাইগারের ভাস্কর্য। এ বাঘ বার্তা দেয়, রাজস্ব ফাঁকি দিলে, দেশের ক্ষতি করলে এনবিআর বাঘের রূপ ধারণ করবে।
 
২১ ডিসেম্বর থেকে ২০ জানুয়ারি পর্যন্ত ‘এনফোর্সমেন্ট মাস’ ঘোষণা করা হয়েছে জানিয়ে নজিবুর রহমান বলেন, অসৎ ব্যবসায়ী ও রাজস্ব ফাঁকিবাজদের খুঁজে বের করতে এ বিশেষ মাসে কাজ করছে এনবিআর। এরইমধ্যে ফলাফল আসা শুরু হয়েছে। ভবিষ্যতে এ ধরণের অভিযান অব্যাহত থাকবে।
 
কনফারেন্স শেষে এনবিআর চেয়ারম্যান কালিয়াকৈরে বঙ্গবন্ধু হাইটেক পার্ক সিটির ন্যাশনাল হেল্প ডেস্কসহ এর বিভিন্ন দিক ঘুরে দেখেন এবং সন্তোষ প্রকাশ করেন।
 
এসময় সামিট টেকনো পলিস লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) রেজা খান, বঙ্গবন্ধু হাইটেক পার্ক কর্তৃপক্ষের পরিচালক ইমদাদুল হকসহ অন্যান্য কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।
 
বাংলাদেশ সময়: ২০৩৫ ঘণ্টা, জানুয়ারি ০৭, ২০১৭
আরইউ/এইচএ/

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa