ঢাকা, সোমবার, ১২ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ২৭ মে ২০২৪, ১৮ জিলকদ ১৪৪৫

অর্থনীতি-ব্যবসা

খেলাপি ঋণে আটকা ৯ শতাংশ সুদ বাস্তবায়ন

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ০৬১১ ঘণ্টা, নভেম্বর ৯, ২০১৮
খেলাপি ঋণে আটকা ৯ শতাংশ সুদ বাস্তবায়ন খেলাপি ঋণে আটকা ৯ শতাংশ সুদ বাস্তবায়ন। ছবি: বাংলানিউজ

ঢাকা: ব্যাংক খাতে ঋণের সুদ হার এক অঙ্কে নামিয়ে আনার ক্ষেত্রে বড় বাধা খেলাপি ঋণ। সরকারে ঘোষণা অনুযায়ী ব্যাংক মালিকরা প্রথমে ১ জুলাই এবং পরে ৯ আগস্ট থেকে ঋণের ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ ৯ শতাংশ এবং আমানতের ক্ষেত্রে সর্বনিম্ন ৬ শতাংশ সুদ কার্যকর করার কথা ছিল। গত সেপ্টেম্বরে পাওয়া তথ্যে দেখা যায় এ হার কার্যকর করেনি অনেক ব্যাংক। 

বৃহস্পতিবার (৮ নভেম্বর) বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব ব্যাংক ম্যানেজমেন্ট (বিআইবিএম) আয়োজিত ‘বার্ষিক ব্যাংকিং সম্মেলন ২০১৮’র প্রথম অধিবেশনে উপস্থাপিত ‘এক অঙ্ক সুদহার, প্রেক্ষাপট বাংলাদেশ’ শীর্ষক গবেষণাপত্রের ওপর আলোচনায় উঠে আসে এমন তথ্য।

প্রতিবেদনে বলা হয়, ব্যাংকগুলোর তহবিল ব্যয় বেশি হওয়ায় ঋণের সুদহার কমিয়ে আনা একটি বড় চ্যালেঞ্জ।

খেলাপি ঋণের বোঝা ভারী হওয়ায় প্রভিশনিংয়ের কারণেও বাড়ছে তহবিল ব্যয়।

২০১৭ সালে দেশের ব্যাংক খাতের গড় সুদের হার ছিল ৯ দশমিক ৫৪ শতাংশ। যা আগের বছর ২০১৬ সালে ছিল ১০ দশমিক ২৬ শতাংশ। অন্যদিকে ব্যাংকগুলোর গড় খেলাপি ঋণের হার ২০১৬ সালে ছিল ১১.৫৪ শতাংশ এবং ২০১৭ সালে তা কিছুটা কমে ১১ দশমিক ৪১ শতাংশে দাঁড়ায়।

হুট করেই ব্যাংকের সুদের হার সিঙ্গেল ডিজিটে নিয়ে আসা সম্ভব নয়। এটা বাস্তবায়ন করতে সময় লাগবে বলেও জানান বাংলাদেশ ব্যাংকের জিএম হাবিবুর রহমান।

প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, সরকারি, বেসরকারি ও বিদেশি মালিকাধীন ব্যাংকগুলোর পক্ষে ঋণের ক্ষেত্রে যথাক্রমে ৯ দশমিক ৭ শতাংশ, ১১ শতাংশ ও ৭ দশমিক ৪ শতাংশ সুদ আরোপ করা সম্ভব। যেখানে সব ধরনের ব্যাংকের আমানতের সুদের হার থাকবে ৬  শতাংশের নিচে। এটা না হলে, সব ব্যাংকের পক্ষে ঋণের ক্ষেত্রে ৯ শতাংশ সুদ আরোপ করা সম্ভব হবে না, যদি না পরিচালন ব্যয়, মূলধন ব্যয় ও প্রভিশন সংরক্ষণের ক্ষেত্রে বড় ধরনের কোনো উন্নতি না ঘটে।

অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন বিআইবিএমের সুপারনিউমারারি অধ্যাপক হেলাল আহমদ চৌধুরী, অধ্যাপক নেহাল আহমেদ, অধ্যাপক ইয়াছিন আলী প্রমুখ।

সর্বশেষ ২০১৭ সালে বাংলাদেশে ব্যাংকিং ব্যবস্থায় বিতরণ করা ঋণের মধ্যে খেলাপি ঋণ ছিলো ৯ দশমিক ৩০ শতাংশ (জুন ২০১৮ পর্যন্ত ১০ চীনের ৪১ শতাংশ), যেখানে চীনের খেলাপি ঋণ ১ চীনের ৭৪ শতাংশ, শ্রীলংকার খেলাপি ঋণের হার ২.৫০ শতাংশ এবং থাইল্যান্ডের খেলাপি ঋণের হার ছিলো ৩ চীনের ০৭ শতাংশ।
 
এবারের ব্যাংকিং সম্মেলনে দু’দিনে চারটি সেশনে মোট ২২টি প্রবন্ধ উপস্থাপিত হয়। দেশি-বিদেশি বিশেষজ্ঞ, ব্যাংকার, গবেষক এবং শিক্ষার্থীরা এসব সেশনের আলোচনায় অংশ নিয়েছেন। ২০১২ সাল থেকে ধারাবাহিকভাবে বাংলাদেশের ব্যাংক খাতের সবচেয়ে বড় এ অনুষ্ঠানটি আয়োজন করছে বিআইবিএম।

বাংলাদেশ সময়: ০১০৫ ঘণ্টা, নভেম্বর ০৯, ২০১৮
এসই/এপি/এসআরএস

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

অর্থনীতি-ব্যবসা এর সর্বশেষ