ঢাকা, শুক্রবার, ২৯ চৈত্র ১৪৩০, ১২ এপ্রিল ২০২৪, ০২ শাওয়াল ১৪৪৫

ফুটবল

আবাহনী-কিংস ম্যাচ ড্র

স্পোর্টস ডেস্ক  | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০৩১ ঘণ্টা, এপ্রিল ৩, ২০২২
আবাহনী-কিংস ম্যাচ ড্র

বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগে আবাহনী লিমিটেড ও বসুন্ধরা কিংসের হাইভোল্টেজ ম্যাচটি ২-২ গোলে ড্র হয়েছে। খেলায় প্রথমার্ধে পিছিয়ে পড়ে দশ জনের দলে পরিণত হয়েও দ্বিতীয়ার্ধে দুই গোলে করে দুর্দান্ত ভাবে ঘুরে দাঁড়ায় বসুন্ধরা কিংস।

পরে দশ জনের দলে পরিণত হওয়া আবাহনীও ফিরে আসে ম্যাচে।  

রোববার সিলেট জেলা স্টেডিয়ামে  কিংসের হয়ে গোল করেন এলিটা কিংসলে ও রবসন রোবিনহো। এর আগে আবাহনীকে এগিয়ে নেন ড্যানিয়েল কলিন্দ্রেস এবং শেষ দিকে সমতায় ফেরান দরিয়েলতন গোমেজ।

ম্যাচে দ্বিতীয় মিনিটেই আবাহনীর রক্ষণে হানা দেয় বসুন্ধরা। রবসন রোবিনহো বাম দিক দিয়ে বক্সে ঢুকে সোহেল রানার উদ্দেশ্যে বল বাড়ালে নিয়ন্ত্রণে নিতে পারেনি এই মিডফিল্ডার। ষষ্ঠ মিনিটে রোবিনহো লাথি মারেন মনির। কিংস ফুটবলাররা লাল কার্ডের আবেদন জানালেও রেফারি আনিসুর রহমান হলুদ কার্ড দেখান। ১৫ মিনিটে কিংসের রক্ষণ কাঁপায় আবাহনী। বাঁ দিক থেকে রাফায়েল অগোস্তোর বাঁকানো ক্রস দরিয়েলতন মাথা ছুয়ালেও তা ফিরিয়ে দেন জিকো।

২০ মিনিটে কলিন্দ্রেসের গোলে এগিয়ে যায় আবাহনী। ডান দিক থেকে মনির হোসেনে হাওয়ায় ভাসানো লম্বা ক্রস কিংসের বক্সে কেউ ক্লিয়ার করতে না পারায় বল পেয়ে যান কলিন্দ্রেস, সেখান থেকে বাঁ পায়ের মাপা শটে জাল খুঁজে নেন বিশ্বকাপ খেলা এই ফুটবলার।

২৬ মিনিটে মাঝ মাঠে বল দখলের লড়াইয়ে উত্তেজনার সৃষ্টি হয়। সোহেল রানাকে পিছন থেকে দুইবার চার্জ করেন ইমন বাবু। নিজেকে নিয়ন্ত্রণ করতে না পেরে ইমনের গায়ে আঘাত করে বসেন সোহেল রানা। এতে সোহেলকে সরাসরি লাল কার্ড দেখান রেফারি। দশ জনের দলে পরিণত হয় কিংস। এই ঘটনায় তর্কে জড়িয়ে হলুদ কার্ড দেখেন আবাহনীর ইমন ও রাফায়েল অগোস্তো।

৩৭ মিনিটে বক্সের বাঁ দিকের কোণা থেকে কলিন্দ্রেসের গতির শট কর্নারের বিনিময়ে রক্ষা করেন জিকো। প্রথমার্ধের শেষ দিকে আবাহনীও দশ জনের দলে পরিণত হয়। মাঝ মাঠে রিমন হোসেনকে অহেতুক গায়ে আঘাত করে বসে আবাহনীর রাকিব হোসেন। এতে তৈরি হয় উত্তেজনা। চতুর্থ অফিসিয়ালের সঙ্গে আলোচনা করে রাকিবকে সরাসরি লাল কার্ড দেখান রেফারি।

দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতেই মতিন মিয়ার পরিবর্তে মাঠে নামেন এলিটা কিংসলে। ৫০ মিনিটে ইব্রাহিমের ক্রসে রোবিনহোর হেড শহিদুল আলম ঝাঁপিয়ে ফিরিয়ে দেন। পরের মিনিটেই আবারও আক্রমণে যায় কিংস। বক্সের বাঁ দিকের কোণা থেকে কিংসলের গতির শট দূরের পোস্ট ঘেঁষে বাইরে চলে যায়। ৫৩ মিনিটে তারিক কাজীর নিচু পাসে রিমনের দারুণ শট অল্পের জন্য জাল খুঁজে পায়নি। ৬০ মিনিটে এলিটা কিংসলের প্রচেষ্টা দুর্দান্ত ভাবে ঠেকিয়ে দেন শহিদুল আলম। বক্সের বাঁ দিকের কোনাকুনি থেকে গতির শট ফেরান শহিদুল।  

অবশেষে ৬৪ মিনিটে সমতায় ফেরে কিংস। বক্সের বেশ খানিকটা বাইরে থেকে এলিটা কিংসলের বাম পায়ের গতির শট ইমন বাবুর গায়ে লেগে দিক পালটে বল জালে জড়ায়। ৬৯ মিনিটে রবসন রোবিনহোর চোখ ধাঁধানো গোলে ব্যবধান বাড়ায় বসুন্ধরা কিংস। মাশুক মিয়া জনির বাড়ানো পাস নিয়ন্ত্রণে নিয়ে শরীর ঘুরিয়ে আবাহনীর দুই ডিফেন্ডারের মধ্য দিয়ে দুরের পোস্টে লক্ষ্যভেদ করেন এই ব্রাজিলিয়ান।   

৮৪ মিনিটে দরিয়েলতনের গোলে সমতায় ফেরে আবাহনী। বক্সের ডান দিক থেকে জুয়েল রানার কাট ব্যাক থেকে গোল করেন ব্রাজিলিয়ান এই ফরোয়ার্ড। ৮৬ মিনিটে আবারও এগিয়ে যাওয়ার সহজ সুযোগ নষ্ট করেন কিংসলে। এরপরের মিনিটে সুবর্ণ সুযোগ কাজে লাগাতে ব্যর্থ হন সুমন রেজা। বাকি সময়ে কোনও দলই পারেনি ব্যবধান বাড়াতে।

১০ ম্যাচে ২৫ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষ স্থান আরও মজবুত করল কিংস। সমান ম্যাচে ১৯ পয়েন্ট নিয়ে তিন নাম্বারে নেমে গেছে আবাহনী। দিনের অন্য ম্যাচে স্বাধীনতা ক্রীড়া সংঘকে ৩-১ গোলে হারিয়ে পয়েন্ট তালিকার দ্বিতীয় অবস্থানে উঠে এসেছে শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাব।

বাংলাদেশ সময়: ২০৩১ ঘণ্টা, ০৩, ২০২২
এমএমএস

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।