ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৯ মাঘ ১৪২৯, ০২ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ১০ রজব ১৪৪৪

কৃষি

ব্লাস্ট রোগের প্রতিকার নয়, প্রতিরোধ চান কৃষিমন্ত্রী

স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১১০৫ ঘণ্টা, মে ১১, ২০১৭
ব্লাস্ট রোগের প্রতিকার নয়, প্রতিরোধ চান কৃষিমন্ত্রী ব্লাস্ট রোগের প্রতিকার নয়, প্রতিরোধ চান কৃষিমন্ত্রী/ছবি: সুমন

ঢাকা: দেশের বিভিন্ন জেলায় গম ও ধানে ব্লাস্ট রোগের আক্রমণের পরিপ্রেক্ষেতে আগামীতে এ রোগ প্রতিরোধের ব্যাপারে পদক্ষেপ গ্রহণের নির্দেশ দিয়েছেন কৃষিমন্ত্রী মতিয়া চৌধুরী।

ফসলের রোগ-সংক্রান্ত বিষয়ে জলবায়ু পরিবর্তনের সঙ্গে যুক্ত না করে বাস্তবতার ওপর গবেষণার আহ্বান জানিয়েছেন কৃষিমন্ত্রী।
 
বৃহস্পতিবার (১১ মে) বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা কাউন্সিলে ‘ধান ও গমে ব্লাস্ট রোগ ব্যবস্থাপনা’ শীর্ষক কর্মশালায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ আহ্বান জানান।

 
 
কৃষিমন্ত্রী বলেন, ধান ও গমে কিউরে (ব্লাস্ট রোগ) যাচ্ছি, আগামীতে যেন ভুট্টার বেলায় কিউরে যেতে না হয়, প্রিভেনশনে যেতে হবে। বোরো ধানে আক্রমণ করলেও আউশে এখনও অ্যাটাক দেখা যায়নি। এজন্য আউশের ভ্যারিইটির দিকে যাচ্ছি বলে জানান মন্ত্রী।  
 
কর্মশালায় বক্তরা জলবায়ু পরিবর্তনজনিত কারণে ব্লাস্ট রোগের প্রদুর্ভাব জানালে মন্ত্রী বলেন, জলবায়ু পরিবর্তন নিয়ে আমরা আছি, কারণ বড় বড় দেশ দিয়েছে। কোনো কিছু হলে জলবায়ু পরিবর্তনের কারণ!
 
‘রিসার্সের আগে জলবায়ু পরিবর্তনতকে দায়ী করব- এটা কিন্তু ঠিক হবে না। মনুষ্য বিষয়, অন্যান্য বিষয় আসতে পারে। এটা মাথায় রাখা উচিত। ’ 
 
এবার বেশি কুয়াশা পড়ার কারণে ব্লাস্ট হয়েছে বলে জানান কৃষি কর্মকর্তারা।  
 
এ প্রসঙ্গে মন্ত্রী বলেন, শিশির বেশি পড়ায় ব্লাস্ট হয়ে গেছে, এটা মনে হয় না। আগে দড়ি দিয়ে গমের ক্ষেতে টান দেওয়া হতো, যেটা মশ্চারাইজার হিসেবে কাজ করতো।
 
তিনি বলেন, ব্লাস্ট বা অন্যান্য রোগের প্রতিরোধের জন্য একদিকে কৃষককে সচেতন করতে হবে। অন্যদিকে কোনো কিছুই আবিস্কার করেন না কেন মার্কেটে ভোক্তা না থাকলে লক্ষ্য ভেদ হবে না।  
 
গতবছর গমে ব্লাস্ট রোগ হওয়ার পরও খাদ্যের যে বাস্কেট সেখানে প্লাস রয়েছে জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, সরকার খাদ্য নিরাপত্তা নিয়ে কতটা সচেতন তার উপর নির্ভর করে সবকিছু। সরকার যদি উদ্বিগ্ন না হয় এবং সরকার যদি মনে করে খাদ্য ঘাটতি থাকলে বিদেশি সাহায্য পাওয়া যাবে- তাহলে এক রকম এবং যদি মনে করে নিজের পায়ে দাঁড়াতে হবে- তাহলে দৃষ্টিভঙ্গি আরেক রকম।
 
ব্লাস্ট রোগের প্রাদুর্ভাবের খবর মিডিয়ায় আসায় সচেতন হয়েছি উল্লেখ করে মন্ত্রী বলেন, খারাপ খবর আগে দিলে আমরা তৎপর হওয়ার সুযোগ পাই। আমরা আমলে নেই, প্রতিকারের চেষ্টা করি।  
 
তবে গণমাধ্যমের সমালোচনা করতেও ছাড়েননি মতিয়া চৌধুরী।
 
‘তারা (মিডিয়া) সবকিছু জানেন- এই ভাবটা ঠিক না। অনলাইনে সবকিছু দেখে সব জেনে ফেললাম, তা নিয়ে ছড়ি ঘুরানো ঠিক না। তারা সব কিছু জানেন- এটা হলে তাদের জন্যই বিপজ্জনক। তাদের আরও এডুকেটেড হওয়া দরকার। তবুও আল্টিমেটলি তাদের ফ্রেন্ড মনে করব। ’
 
কৃষিসচিব মোহাম্মদ মইনউদ্দিন আবদুল্লাহর সভাপতিত্বে গবেষক, কৃষি মন্ত্রণালয় এবং অধিদফতরের কর্মকর্তারা বক্তব্য রাখেন।  
 
বাংলাদেশ সময়: ১৬৫৯ ঘণ্টা, মে ১১, ২০১৭
এমআইএইচ/এসএইচ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa