ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৯ আশ্বিন ১৪২৯, ০৪ অক্টোবর ২০২২, ০৭ রবিউল আউয়াল ১৪৪৪

ক্রিকেট

মোস্তাফিজ-শরিফুলের আঘাতে নড়বড়ে শুরু জিম্বাবুয়ের

স্পোর্টস ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৭৪৩ ঘণ্টা, আগস্ট ৫, ২০২২
মোস্তাফিজ-শরিফুলের আঘাতে নড়বড়ে শুরু জিম্বাবুয়ের

টপ অর্ডারের চার ব্যাটারের ফিফটিতে ভর করে বিশাল সংগ্রহ গড়ার পর ফিল্ডিংয়ে ভালো শুরু পেল বাংলাদেশ।  

লক্ষ্য তাড়ায় নামা জিম্বাবুয়ের ইনিংসের শুরুতেই আঘাত হানলেন মোস্তাফিজুর রহমান।

এই বাঁহাতি পেসারের করা ইনিংসের প্রথম ওভারের শেষ বলটি স্বাগতিক দলের ওপেনার রেগিস চাকাভার (২) ব্যাটের কানায় লেগে স্ট্যাম্প ভেঙে দেয়।  

পরের ওভারেই আঘাত হানেন শরিফুল ইসলাম। তার ওই ওভারের পঞ্চম বলে মোসাদ্দেক হোসেনের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফেরেন আরেক জিম্বাবুইয়ান ওপেনার তারিসাই মুসাকান্দা (৪)।

এই প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত ২ ওভার শেষে জিম্বাবুয়ের সংগ্রহ ২ উইকেট হারিয়ে ৬ রান।  

এর আগে লিটন দাস, মুশফিকুর রহিম আর তিন বছর পর ওয়ানডেতে ফেরা এনামুল হক বিজয়ের ফিফটিতে ভর করে ২ উইকেট হারিয়ে ৩০৩ রানের বড় সংগ্রহ দাঁড় করায় বাংলাদেশ।

আজ শুক্রবার হারারেতে টস হেরে ব্যাট করতে নেমে শুরুতে বেশ ভোগান্তিতেই পড়তে হয় বাংলাদেশকে। উইকেটে সকালের দিকে মুভমেন্ট পাচ্ছিলেন পেসাররা। সামলাতে হিমশিম খাচ্ছিলেন তামিম ইকবাল ও লিটন দাস। তবুও তারা অনেক্ষণ হারাতে দেননি কোনো উইকেট।  

দুজনের জুটিতেই ১০০ পার করে বাংলাদেশ। তামিম-লিটনের উদ্বোধনী জুটিতে এ নিয়ে চতুর্থবার ঘটে এমন ঘটনা। ওয়ানডে ক্যারিয়ারের ৫৪তম হাফ সেঞ্চুরির সঙ্গে তামিম স্পর্শ করেন দেশের প্রথম ক্রিকেটার হিসেবে এই ফরম্যাটে ৮ হাজার রানের মাইলফলক।  

এরপর অবশ্য খুব বেশিক্ষণ থাকতে পারেননি তামিম। ৯ চারে ৮৮ বলে ৬২ রান আসে তার ব্যাট থেকে। দলের রান তখন ১১৭। শুরুতে কিছুটা অস্বস্তিতে ছিলেন লিটন। জীবন পেয়েছিলেন, রান করতে পারছিলেন না, খেলছিলেন ডট বল। তবে হাফ সেঞ্চুরি তোলার পরই খোলস ছেড়ে বেড়িয়ে আসেন এই ব্যাটার।  

৭৫তম বলে এসে ফিফটি পেয়েছিলেন লিটন। পরে ১৪ বল ক্রিজে ছিলেন, তুলেছেন ২১ রান। কিন্তু যখনই উইকেটে টিকে থাকার ফায়দা তুলতে যাবেন, তখনই লিটন টান পান পেশিতে। ৮৯ বলে ৮১ রান করে মাঠ ছাড়তে হয় রিটায়ার্ড হার্ড হয়ে।

এতে একরকম সুযোগই আসে এনামুল হক বিজয়ের কাছে। লিস্ট-এ ক্রিকেটে হাজারের ওপর রান করে রেকর্ড গড়েছিলেন, তাতেই ডাক আসে জাতীয় দলে। টেস্ট, টি-টোয়েন্টি খেলে ফেললেও বিজয় সুযোগ পাচ্ছিলেন না ওয়ানডেতেই। ওয়েস্ট ইন্ডিজে স্কোয়াডে থাকলেও তিন ম্যাচেই থাকতে হয়েছে সাইড বেঞ্চে বসে।

বিজয়ের কাছে সুযোগটা এসেছে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে প্রথম ওয়ানডেতে। তিনি কতটা কাজে লাগাতে পেরেছেন? অনেকটাই। ইনসাইড এজ হয়েছেন, ক্যাচও তুলেছেন। কিন্তু বিজয়কে দেখা গেছে আত্মবিশ্বাসী, খেলেছেন দারুণ কিছু শটও। যদিও সবকিছুতে পূর্ণতা দিতে পারেননি সেঞ্চুরি করে।  

৬ চার আর ৩ ছক্কায় ৬২ বলে ৭৩ রান করেছিলেন বিজয়। ভিক্টর নিউয়াচির বল তুলে মারতে গিয়ে তিনি ক্যাচ তুলে দেন লং অফে দাঁড়িয়ে থাকা ওয়েলিংটন মাসাকাদাজার হাতে। বাংলাদেশের ইনিংসটা পরে আর এগোয়নি ঝড়ের গতিতে। মুশফিকুর রহিম ক্রিজে ছিলেন, পরে এসেছিলেন আরেক অভিজ্ঞ মাহমুদউল্লাহ রিয়াদও।  

ইনিংসের ৪৯তম ওভারে এসেছে কেবল ৭ রান। তবুও অবশ্য দলীয় সংগ্রহ ছাড়িয়েছে তিনশ। মাহমুদউল্লাহ ১২ বলে ২০ ও মুশফিকুর রহিম অপরাজিত ছিলেন ৪৯ বলে ৫২ রানে।  

বাংলাদেশ সময়: ১৭৪৩ ঘণ্টা, আগস্ট ৫, ২০২২
এমএইচএম

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa