ঢাকা, বুধবার, ২ ভাদ্র ১৪২৯, ১৭ আগস্ট ২০২২, ১৮ মহররম ১৪৪৪

চট্টগ্রাম প্রতিদিন

স্কুল থেকে বিনামূল্যের বই গায়েব

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট  | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৩৪৬ ঘণ্টা, জুন ৩০, ২০২২
স্কুল থেকে বিনামূল্যের বই গায়েব ...

চট্টগ্রাম: হাটহাজারী উপজেলার ফতেপুর বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের কক্ষে রাখা বিনামূল্যে বিতরণের বই গায়েব হয়ে গেছে। প্রধান শিক্ষক (ভারপ্রাপ্ত) মো. মহসিনের বিরুদ্ধে এসব বই বিক্রির অভিযোগ উঠেছে।

বৃহস্পতিবার (৩০ জুন) দুপুরের দিকে ঘটনাস্থল পরিদর্শনে যাচ্ছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) শাহিদুল আলম, সহকারী কমিশনার (ভূমি) আবু রায়হান, হাটহাজারী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রফিকুল ইসলাম।  

এর আগে মঙ্গলবার (২৮ জুন) দিবাগত রাত ৮টার দিকে রাতের আঁধারে এসব বই বিক্রির ঘটনা ঘটে। এ ব্যাপারে এখনো কোন অভিযোগ পায়নি হাটহাজারী থানা।

জানা গেছে, হাটহাজারী উপজেলায় সরকারি স্কুলের ষষ্ঠ থেকে দশম শ্রেণি পর্যন্ত প্রতিটি শিক্ষাবর্ষে শিক্ষার্থীদের সরকার বিনামূল্যে বই উপহার দেয়। উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসে কক্ষ সংকটের কারণে এসব বই হাটহাজারী উপজেলার ফতেপুর বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের তিনটি কক্ষে রাখা হতো। পরে প্রধান শিক্ষকের অনুরোধে স্কুলের হলরুমে বইগুলো রাখা হয়। সেখানে আগে থেকে জানুয়ারি, ফেব্রুয়ারি ও মার্চ মাসের সপ্তম ও নবম শ্রেণির বই রাখা ছিল। স্কুলের প্রধান শিক্ষক মো. মহসিন এপ্রিল মাসে স্কুলের আসবাবপত্র সরানোর কথা বলে ওই কক্ষের চাবি নিয়েছিলেন।  

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, রাত সোয়া ৮টার দিকে কিছু অপরিচিত যুবক একটি ট্রাকে করে প্রায় এক টন বই পাচারের প্রস্তুতি নিচ্ছিল। স্থানীয় কয়েকজন সাবেক শিক্ষার্থী চ্যালেঞ্জ করলে তারা উপজেলায় নিচ্ছে বলে জানায়। পরে বই বহনকারী ট্রাকটি হাটহাজারীর দিকে না গিয়ে নগরের দিকে যাত্রা করলে প্রত্যক্ষদর্শীদের সন্দেহ বেড়ে যায়। ঘটনাস্থলে অভিযুক্ত শিক্ষকসহ আরও কয়েকজন সহকারী শিক্ষক বেশি বাড়াবাড়ি করলে প্রশাসনিক ঝামেলায় পড়তে হবে জানিয়ে হুমকি দেন।

অ্যাকাডেমিক সুপারভাইজার মো. মোসলেম উদ্দিন বাংলানিউজকে বলেন, আমাদের উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসে কক্ষ সংকটের কারণে বইগুলো ফতেপুর বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের হলরুমে রাখা হয়েছিল। স্কুলের আসবাবপত্র সরানোর কথা বলে আমার কাছ থেকে ওই রুমের চাবি নেন প্রধান শিক্ষক। এরপর তিনি আমাকে আর চাবি ফেরত দেননি।  

তিনি আরও বলেন, কি পরিমাণ বই চুরি হয়েছে সেটি এখনো বলা যাচ্ছে না।  তবে, প্রত্যক্ষদর্শীদের সাক্ষ্য, ভিডিও ফুটেজ, ট্রাকের অবস্থান ও অভিযুক্ত শিক্ষকের অসংলগ্ন কথা-বার্তায়  বোঝা যাচ্ছে, বই চুরি হয়েছে। ধারণা করছি, প্রায় ১ লাখ ৫০ হাজার টাকার বই নিয়ে গেছে চোরচক্র। এ ঘটনায় প্রধান শিক্ষকসহ চারজন সহকারী ও একজন অফিস সহায়ক, অজ্ঞাত ট্রাক চালকসহ কয়েকজনের বিরুদ্ধে মামলার প্রস্তুতি চলছে।  

ফতেপুর বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. মহসিন বাংলানিউজকে বলেন, ‘আমি শ্রেণিকক্ষে পাঠদান করছি। পাঁচ মিনিট পরে ফোন করবো’। তিনি ফোন করেননি, প্রতিবেদক ফোন করলেও ধরেননি।  

হাটহাজারী থানার পরিদর্শক (তদন্ত) রাজীব শর্মা বাংলানিউজকে বলেন, বিষয়টি আমরা জেনেছি। তবে এখনো পর্যন্ত কোন অভিযোগ আমরা পাইনি। অভিযোগ পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

হাটহাজারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) শাহিদুল আলম বাংলানিউজকে বলেন, আমি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। প্রত্যক্ষদর্শীর মতামত ও আনুষঙ্গিক বিষয় দেখে মনে হয়েছে, সেখানে বই চুরির ঘটনা ঘটেছে। কিন্তু কে চুরি করেছে সেটি এখনো নিশ্চিত নই। তদন্ত সাপেক্ষে বলা যাবে। এ ঘটনায় মামলা দায়ের করা হবে।  

বাংলাদেশ সময়: ১৩৩০ ঘণ্টা, জুন ৩০, ২০২২
বিই/এসি/টিসি

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa