ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ৫ কার্তিক ১৪২৮, ২১ অক্টোবর ২০২১, ১৩ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

সালতামামি

নতুন করে পেতে চাই ২০১৪ সাল

আবাদুজ্জামান শিমুল, স্টাফ করেসেপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৬৪৩ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ৩১, ২০১৩
নতুন করে পেতে চাই ২০১৪ সাল ছবি: বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

ঢাকা: চলতি বছরের রাজনৈতিক সহিংসতা, হানাহানির মধ্যেও নতুন বছরের নতুন আশা মিলিয়ে যায় নি অগ্নিদগ্ধদের মন থেকে। আর সহিংসতা নয়, বরং নতুন বছরে দেশকে নতুন করে পেতে চান তারা।



গত কয়েকদিনের রাজনৈতিক সহিংসতায় পেট্রোল বোমা হামলায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন দগ্ধ রোগীদের সবার একই কথা, ‘২০১৪ সাল নতুন করে পেতে চাই, নতুনভাবে বাঁচতে চাই, বাঁচার অধিকার চাই। ’  

২৮ নভেম্বর শাহবাগে বাসে পেট্রোল বোমা হামলায় আহত গীতা সেন (৪৫)। শরীরের ১১ শতাংশ পোড়া নিয়ে ঢামেকের বার্ন ইউনিটের কেবিন ব্লকে চিকিৎসাধীন এই নারী বলেন, এই বিছানায় শুয়ে ২০১৪ সালকে স্বাগত জানাই। নতুন বছরে আর চাই না সহিংসতা। আগামীকাল সকালে ঘুম থেকে উঠে যেন দেখি সমগ্র বাংলাদেশের মানুষসহ দুই নেত্রী সবকিছু ভুলে শান্তির কথা বলছেন।

তার মেয়ে সুস্মিতা (১৬) একুশে টেলিভিমনের মুক্তখবরের শিশু সাংবাদিক। ঘটনার দিন ইটিভিতে নেওয়ার পথে অগ্নিদগ্ধ হন তারা। সুস্মিতা ঘটনার দু’দিন পর সুস্থ হয়ে বাসায় গেলেও মা এখনও অপেক্ষা করছেন সেই দিনের। যেদিন মুক্তি পাবেন এ নরক যন্ত্রণা থেকে।

muzibur১২ নভেম্বর পুরান ঢাকার রায়েরবাগে যাত্রীবাহী বাসে পেট্রোল বোমায় দগ্ধ মো. শুভ (৩০) ঢামেকের চতুর্থ তলায় ভর্তি রয়েছেন। ৪৮ দিন চিকিৎসা শেষে আজ ছাড়া মেলে তার। রিলিজ কপি হাতে পেয়ে আবেগাপ্লুত কণ্ঠে বলেন, ভাবতে পারিনি সুস্থ হয়ে আবার বাড়ি ফিরব। আমি একটি প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সদ্য বিএসসি পাস করেছি। আমার জীবন তো কেবল শুরু। তবুও ২০১৩ সাল ভুলে গেলাম ২০১৪ সালের নতুন আশায়।

৫ অক্টোবর পুরান ঢাকার হাজারীবাগে বিজিবি ২ নম্বর গেট সংলগ্ন রাস্তায় পেট্রোল বোমায় দগ্ধ হন লেগুনা চালক আল আমিন (২১)। চিকিৎসাধীন রয়েছেন এখনও বার্ন ইউনিটের চতুর্থ তলায়। আগের বছরের স্মৃতি রোমন্থন করে শুভ বলেন, ২০১২ সালের থার্টি ফার্স্ট নাইটে আমরা ইস্টার্নের ড্রাইভাররা মিলে আনন্দ উল্লাস করে ২০১৩ সালকে স্বাগত জানিয়েছিলাম। আজ হাসপাতালের বেডে শুয়ে শুধুই এসব কথা মনে পড়ছে। একটা কথাই বলতে চাই, সব মানুষের জীবনে যেন সুখ আসে। দেশে যেন আর কোনো হানাহানি না হয়।

ঢামেকের আবাসিক সার্জন পার্থ শংকর পাল জানান, চলমান রাজনৈতিক সহিংসতায় এখন পর্যন্ত বার্ন ইউনিটে ভর্তি হয়েছেন ৮৭ জন। যাদের মধ্যে ১৯ জন এখনও চিকিৎসাধীন। ইতোমধ্যে মারা গেছেন ১৯ জন। বাকিরা সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন।

বাংলাদেশ সময়: ১৬১০ ঘণ্টা, ডিসেম্বর ৩১, ২০১৩
সম্পাদনা: জাকারিয়া খান ও আসিফ আজিজ, নিউজরুম এডিডটর

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa