ঢাকা, শনিবার, ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৯, ১০ ডিসেম্বর ২০২২, ১৫ জমাদিউল আউয়াল ১৪৪৪

জাতীয়

১৯ দিন ঘাসের স্তূপে ঢাকা ছিল নারীর মরদেহ, মিলল হত্যার কারণ 

ডিস্ট্রিক্ট করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৬৫৩ ঘণ্টা, ফেব্রুয়ারি ২০, ২০২১
১৯ দিন ঘাসের স্তূপে ঢাকা ছিল নারীর মরদেহ, মিলল হত্যার কারণ  গৃহবধূ কুলসুম আক্তার।

মুন্সিগঞ্জ: মুন্সিগঞ্জের শ্রীনগর উপজেলায় গৃহবধূ কুলসুম আক্তারের (৩৫) ছেলে কামরুল হাসানকে (১৩) বিদেশে পাঠানোর প্রতিশ্রুতি দেয় সুমন শেখ (৩১)। এজন্য কুলসুমের কাছ থেকে বিভিন্ন সময়ে সর্বমোট ছয় লাখ টাকাও নিয়েছে।

তবে বিদেশে পাঠাতে না পারায় ঋণ পরিশোধ করার জন্য টাকা ফিরিয়ে দেওয়ার জন্য চাপ দিলে সুমন কেবল এক লাখ ৮০ হাজার টাকা দেয়। কিন্তু এরপর বাকি টাকার জন্য চাপ দিলে সুমন মোবাইলে যোগাযোগ করে কুলসুমের স্বামীর জমিতে ডেকে আনে। সেখানে টাকা নিয়ে কথাকাটাকাটির এক পর্যায়ে লুকিয়ে রাখা লোহার ধারালো দা দিয়ে কুলসুমের মাথায় কোপ দেয় সুমন। এরপর মরদেহ ঘাসের স্তূপের মধ্যে ঢেকে রাখে। তারপর তার ব্যাগ, মোবাইল, লোহার দা পাশের পুকুরে ফেলে দেয়। ১৯ দিন মরদেহ স্তূপে ঢাকা ছিল, ১১ দিন তদন্ত করে হত্যার কারণ উদঘাটন করে পিবিআই।  

শনিবার (২০ ফেব্রুয়ারি) দুপুরে পিবিআইয়ের মুন্সিগঞ্জ জেলার কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন করে হত্যাকাণ্ডের মূল ঘটনা জানিয়েছে তারা।  

জানা যায়, ৫ ফেব্রুয়ারি দুপুরে হাসাড়গাঁও গ্রামের জমিতে এক নারীর হাড়, মাথার খুলি, স্যান্ডেল, মাথার ক্লিপ ও ছেঁড়া কাপরের অংশ পাওয়া যায়। যা দেখে কুলসুমের ছেলে কামরুল তার মায়ের মরদেহ নিশ্চিত করে। এর আগে ১৭ জানুয়ারি খুন হন কুলসুম। এই ঘটনায় অজ্ঞাতনামা আসামি করে ৭ ফেব্রুয়ারি তার ছেলে শ্রীনগর থানায় মামলা করেন। কুলসুম বেগম পূর্ব রুশদী গ্রামের আলী আকবর মোড়লের মেয়ে। সে পূর্ব হাসাড়গাও গ্রামে বসবাস করতো। মূল আসামি সুমন শেখও একই গ্রামের আলী হোসেনের ছেলে।  

সংবাদ সম্মেলন করে পিবিআই জানিয়েছে, ১৭ জানুয়ারি মায়ের বাসা থেকে নিজ বাসায় যাচ্ছিলো কুলসুম। এরপর পরিবারের সদস্যরা তার মোবাইল ফোন বন্ধ পায়। এর আগে তার ছেলে মানিকগঞ্জের সিঙ্গাইর চলে যায় কর্মস্থলে যোগ দিতে। কুলসুমের মোবাইল বন্ধ পেয়ে তার আত্নীয় স্বজনরা খোঁজাখুঁজি করতে থাকে। ৫ ফেব্রুয়ারি বিকাল ৩ টার দিকে স্থানীয় গ্রামের এক ব্যক্তি ফোন করে কামরুলকে জানায় পূর্ব হাসাড়গাও গ্রামে তার বাবার জমিতে হাড়, মাথার খুলি, স্যান্ডেল, মাথার ক্লিপ ও ছেঁড়া কাপড়ের অংশ পাওয়া গেছে। তখন কামরুলের বোন ইসরাত জাহান অরিন মরদেহের সঙ্গে থাকা এসব দেখে শনাক্ত করে। এরপর উক্ত বিষয়টি শুনে মানিকগঞ্জ থেকে ঘটনাস্থলে এসব কামরুলও নিশ্চিত করে। এরপর পিবিআই ৭ ফেব্রুয়ারি এ মামলাটি গ্রহণ করে।  

আরও জানান, গোপণ সূত্র ও আধুনিক তথ্য প্রযুক্তি ব্যবহার করে ঘটনায় অভিযুক্ত সুমনকে শনাক্ত করে। ১৮ ফেব্রুয়ারি সকাল ১১ টার দিকে সিরাজদিখান উপজেলার রামকৃষ্ণদি বাজার এলাকা থেকে গ্রেফতার করা হয় তাকে। শুক্রবার (১৯ ফেব্রুয়ারি) আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তি মূলক জবানবন্দি দেন আসামি সুমন।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন, পিবিআইয়ের জেলা পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আনোয়ারুল হক, মামলার তদন্ত কর্মকর্তা মোহাম্মদ এমদাদুল হক প্রমুখ

বাংলাদেশ সময়: ১৬৫২ ঘণ্টা, ফেব্রুয়ারি ২০, ২০২১
কেএআর

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa