ঢাকা, শুক্রবার, ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৯, ২৭ মে ২০২২, ২৫ শাওয়াল ১৪৪৩

রাজনীতি

খুলনায় বিএনপির মানববন্ধনে পুলিশের লাঠিচার্জ, আহত ২০

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৬১১ ঘণ্টা, জানুয়ারি ৫, ২০২২
খুলনায় বিএনপির মানববন্ধনে পুলিশের লাঠিচার্জ, আহত ২০ পুলিশের লাঠিচার্জে গুরুতর আহত হয়েছেন খুলনা মহানগর বিএনপির সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক ফখরুল আলম

খুলনা: খুলনায় ‘গণতন্ত্র হত্যা দিবস’ উপলক্ষে বিএনপি আয়োজিত মানববন্ধন কর্মসূচি পুলিশি বাধায় পণ্ড হয়ে গেছে। পুলিশের লাঠিচার্জে বিএনপির অন্তত ২০ নেতাকর্মী আহত হয়েছেন।

পুলিশের লাঠিচার্জে খুলনা মহানগর বিএনপির সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক ফখরুল আলমের মাথা ফেটে গেছে। জখম অবস্থায় খুলনা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হলে সেখানে তার মাথায় সেলাই দিয়েছেন চিকিৎসকরা।

পুলিশি হামলার প্রতিবাদে বিএনপির পক্ষ থেকে দলীয় কার্যালয়ে তাৎক্ষণিক প্রেস ব্রিফিংয়ে তীব্র নিন্দা জানায় বিএনপি। বিক্ষুব্ধ কর্মীরা একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করেন।

বিএনপির নেতাকর্মীরা অভিযোগ করে বলেন, বুধবার সকাল ১১টায় মহানগর ও জেলা বিএনপির যৌথ উদ্যোগে কেন্দ্র ঘোষিত মানববন্ধন কর্মসূচি শুরুর আগে খুলনা সদর থানার একজন কর্মকর্তা এসে অনুমতি না থাকায় কর্মসূচি পালন করা যাবে না বলে হুমকি দেন। এ নিয়ে উপস্থিত নেতাকর্মীদের সঙ্গে বাকবিতণ্ডার এক পর্যায়ে কর্মসূচি শুরু করে বিএনপি। জেলা বিএনপির আহ্বায়ক আমির এজাজ খানের সভাপতিত্বে কর্মসূচি শুরু হয়।

জেলা বিএনপির সদস্য সচিব মনিরুর হাসান বাপ্পীর পরিচালনায় মহানগর বিএনপির সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক ফখরুল আলম বক্তব্য শুরু করামাত্র খুলনা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হাসান আল মামুনের নেতৃত্বে বিপুলসংখ্যক পুলিশ সদস্য এসে মানববন্ধন কর্মসূচিতে লাঠিচার্জ করে। লাঠিচার্জে ফখরুল আলম ও জেলা ছাত্রদলের সভাপতি আব্দুল মান্নান মিস্ত্রি গুরুতর আহত হন।

আহত অন্যরা হলেন—আমির এজাজ খান, শফিকুল আলম তুহিন, মনিরুল হাসান বাপ্পী, আবু মুসা গাজী, হেমায়েত হোসেন, মিসেস সেতারা, নিঘাত সীমা, মামসুন নাহার লিপি, আমিন আহমেদ, ফিরোজ খান, খান জিয়াউর রহমান জীবনসহ আরও অনেকে।

এক পর্যায়ে বিএনপির বিক্ষুব্ধ কর্মীরা পুলিশকে লক্ষ্য করে ইটপাটকেল নিক্ষেপ করে। এ সময় কে ডি ঘোষ রোড, হেলাতলা ও বড়বাজার এলাকা রণক্ষেত্রে পরিণত হয়। মুহূর্তেই ফাঁকা হয়ে যায় রাস্তাঘাট। ব্যবসায়ীরা আতঙ্কে দোকানপাট বন্ধ করে দেন।

ঘটনার প্রতিবাদ জানিয়ে দলীয় কার্যালয়ে প্রেস ব্রিফিংয়ে সাংবাকিদের ঘটনা সম্পর্কে অবহিত করেন মহানগর বিএনপির সদস্য সচিব শফিকুল আলম তুহিন। অপরদিকে বিএনপি ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা তাৎক্ষণিকভাবে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করেন।

তবে খুলনা সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হাসান আল মামুন বাংলানিউজকে বলেন, হামলার কোনো ঘটনা ঘটেনি। মানববন্ধন কর্মসূচির কোনো অনুমতি ছিল না।

বাংলাদেশ সময়: ১৫৪৫ ঘণ্টা, জানুয়ারি ৫ , ২০২২
এমআরএম/এমজেএফ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa