ঢাকা, শনিবার, ৭ কার্তিক ১৪২৮, ২৩ অক্টোবর ২০২১, ১৫ রবিউল আউয়াল ১৪৪৩

প্রবাসে বাংলাদেশ

যুক্তরাষ্ট্রে থাকা যুদ্ধাপরাধীদের তালিকা আসছে আন্তর্জাতিক ট্রাইব্যুনালে

সুকুমার সরকার, এডিশনাল আউটপুট এডিটর | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৬০৪ ঘণ্টা, জানুয়ারি ১৭, ২০১২
যুক্তরাষ্ট্রে থাকা যুদ্ধাপরাধীদের তালিকা আসছে আন্তর্জাতিক ট্রাইব্যুনালে

ঢাকা : যুক্তরাষ্ট্রের বিভিন্নস্থানে ঘাপটি মেরে থাকা একাত্তরের চিহ্নিত ঘাতকদের তালিকা বাংলাদেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাহারা খাতুন এবং আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতে হস্তান্তর করা হচ্ছে। ঢাকায় প্রাপ্ত খবরে জানা গিয়েছে, ১৫ জানুয়ারি সন্ধ্যায় (বাংলাদেশ সময় সোমবার সকাল) যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের সংবাদ সম্মেলন থেকে এ দাবি জানানো হয়।



দেশবাসীকে প্রদত্ত ম্যান্ডেট অনুযায়ী একাত্তরের ঘাতকদের বিচার শুরু করায়  প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি অভিনন্দন জানানো হয়। নিউইয়র্ক সিটির জ্যাকসন হাইটসে পালকি পার্টি সেন্টারে একাত্তরের ঘাতকদের বিচার দ্রুত সম্পন্নের দাবিতে এ সংবাদ সম্মেলন করা হয় ।

এ সময় গোলাম আজমের ফাঁসি দাবিও করা হয়। যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আকতার হোসেন, ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক আব্দুস সামাদ আজাদ, সহ-সভাপতি মাহবুবুর রহমান এবং যুক্তরাষ্ট্র মুক্তিযোদ্ধা সংসদের কমান্ডার নূরন্নবী সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাব দেন।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য উপস্থাপন করেন সহ-সভাপতি শামসুদ্দিন আজাদ। সংবাদ সম্মেলনে  উল্লেখ করা হয়, ঢাকায় বিচার শুরু হওয়ার পরই তালিকাভুক্ত কয়েকজন যুদ্ধাপরাধী পালিয়ে নিউইয়র্কে গিয়েছে।

এছাড়া, আগে থেকেই কয়েকজন আলবদর এবং চিহ্নিত রাজাকার নিউইয়র্কে বসবাস করে বাংলাদেশের স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্ব বিরোধী তৎপরতায় লিপ্ত রয়েছে।

প্রশ্নের জবাবে নেতৃবৃন্দ বলেন, একাত্তরের ঘাতকদের বিচার ঠেকানোর জন্যে যুক্তরাষ্ট্রে বিপুল অর্থ ব্যয়ে লবিস্ট ফার্ম ভাড়া করা হয়েছে। ওইসব লবিস্ট ফার্মের তৎপরতায় যুক্তরাষ্ট্র কংগ্রেস অথবা স্টেট ডিপার্টমেন্ট অথবা আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থাগুলো যাতে বিভ্রান্ত না হয় সেজন্যে যথাযথ তৎপরতা চালানো হচ্ছে।


শাসকদলের লোকজন হয়েও কেন একাত্তরের বিচার ত্বরান্বিত করার দাবি জানাচ্ছেন- এ প্রশ্নের জবাবে আকতার হোসেন এবং ফারুক আহমেদ বলেন, প্রবাসের জনমত সুসংগঠিত করার প্রয়োজন রয়েছে।

একাত্তরের চেতনায় উজ্জীবিত প্রবাসীরা বিএনপি-জামাত জোটের অপপ্রচারে বিভ্রান্ত হতে পারেন। সেজন্যে আমরা বিভিন্ন কর্মসূচির অংশ হিসেবেই এ সংবাদ সম্মেলন করছি। মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার  নূরন্নবী  এ প্রসঙ্গে আরো বলেন, ই-মেইলে আমরা আন্তর্জাতিক মহলকে একাত্তরের ঘাতকদের স্বরূপ অবহিত করছি।

এজন্যে আমাদের নিয়োজিত লোকজন সার্বক্ষণিকভাবে সোচ্চার রয়েছেন। একাত্তরের চিহ্নিত যুদ্ধাপরাধীদের  অপকর্মের অনেক ডক্যুমেন্টও তার কাছে রয়েছে বলে জানান কমান্ডার নূরন্নবী।

সংবাদ সম্মেলনে যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগের সর্বস্তরের নেতা-কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন। সংবাদ সম্মেলনের পর একইস্থানে ‘বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস’ উপলক্ষে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

বাংলাদেশ সময়: ১৫৫৫ ঘণ্টা, জানুয়ারি ১৭, ২০১১

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।
Alexa