ঢাকা, সোমবার, ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ২০ মে ২০২৪, ১১ জিলকদ ১৪৪৫

শিল্প-সাহিত্য

‘সাদা-কালো’র রঙিন ভাস্বর আবু তাহের

শিল্প-সাহিত্য ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ১৬৫০ ঘণ্টা, অক্টোবর ২৮, ২০১৬
‘সাদা-কালো’র রঙিন ভাস্বর আবু তাহের

জীবনও আলোকসংবেদী কোনো তল, যার উপর আলো ফেলে দেখতে হয় জীবনের আয়না। আতশি কাচের মতো লেন্সের ঘুর্ণন জীবনের স্পষ্ট বিন্দুগুলো তুলে আনে আয়নাছবিতে, সেটা হয়ে ওঠে জীবনালেখ্য।

  একজন আবু তাহের খোকন কালো ‘স্বচ্ছ’ চৌকো ঘরে রঙিন চোখ রেখে দেখেছেন জীবনের মৌলিকতা।

ছবিগ্রন্থ ‘সাদা-কালো’ আন্তর্জাতিক পুরস্কারপ্রাপ্ত আলোকচিত্রী তাহেরের সেই আয়নাছবি, যেখানে প্রতিবিম্বিত হয়েছে শৈশবের রঙিন জীবন থেকে লাল, নীল, সবুজ ছেঁকে তোলা বর্ণহীন, প্রতিফলনহীন জীবন।

যে জীবনকে আলোকচিত্রী বলছেন, ‘আমাদের দেশে এমন অগুনতি শিশু আছে, জীবন যাদের ধুলোমলিন, অন্ধকারে আচ্ছন্ন। সাদাকালো। সুবিধাবঞ্চিত সেই ছেলেমেয়েদের জীবনের আকাশে সাতটি রঙের ঝলমলানি নেই। জীবনযাপনের পথ তাদের কাঁটায় ভরা, রুক্ষ, ধূসর। ’

কেন ‘সাদা-কালো’ তা স্পষ্ট আবু তাহের খোকনের বক্তব্যে, ছবির ভাষায়।

শৈশব, হাসি, খেলা, শ্রম, গরম, খরা, শীত, বন্যা, পাহাড় ধস, মৈত্রী, মাদক, আন্দোলনের অবুঝ পুতুল, আঁধার জীবনে শিক্ষার আলো ও দেশের জন্য ভালোবাসা সিরিজে ৬৫টি অনবদ্য আলোকচিত্র সন্নিবেশিত হয়েছে গ্রন্থ ‘সাদা-কালো’য়।

সম্প্রতি যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কে মোড়ক উন্মোচন হওয়া এ ছবিগ্রন্থের বেশ কয়েকটি ছবি আমেরিকা, লন্ডন, চীন, জাপানে পুরস্কারপ্রাপ্ত।

গ্রন্থটিতে ১৪টি সিরিজে মোট ৬৫টি আলোকচিত্র জায়গা পেয়েছে। শৈশব সিরিজের প্রথম ছবিটিই জানিয়ে দেয় সুবিধাবঞ্চিত, অবহেলিত, দরিদ্র শিশুদের বঞ্চিত জীবনের কথা। আকাশ ছোঁয়ার স্বপ্নে বিভোর থাকে তারাও। কিন্তু তাদের স্বপ্ন বাঁচে আকাশ আর মাটির মাঝের ‘শূন্যে’।

হাসি সিরিজে তাহের দেখিয়েছেন হাসি কত অকৃত্রিম হতে পারে। স্নেহ, মমতা, বঞ্চনা, কষ্ট যতোই নির্মম হোক হাসি হতে পারে নির্মল, অকৃত্রিম, নির্ভেজাল। এই হাসিই যেনো তাদের দুঃখ জয়ের শক্তি।

‘সমান্তরাল। ক্র্যাচের কষ্ট ও গতির ছন্দ’ ছবিটি প্রতিনিধিত্ব করতে পারে ‘খেলা’ সিরিজের ছবিগুলোর। দুরন্ত শৈশবের মতো খেলাও মানে না কোনো বাধা। জীবনের মৌলিক চাহিদার মতো। আবর্জনার ভাগাড় কিংবা ব্যস্ত হাইওয়ে আর একপায়ে ভর থাকা সেখানে কোনো বিষয় নয়।

শিশুশ্রমকে বুড়ো আঙুল দেখানোর জন্য শ্রম সিরিজের লিড ছবিটিই যথেষ্ট। আর ‘ছন্দপতন’ ছবিটি সাদা-কালো জীবনের পরিণতি।

বন্যা ও পাহাড় ধসে স্বপ্নের অপমৃত্যু সিরিজের ছবিগুলো নদীমাতৃক বাংলাদেশের বিপরীত দুই চিত্র। প্রাকৃতিক বিপর্যয়ও যমদূত হয়ে নেমে আসে সেই অসহায়ের উপর। ভাগ্যকে তখন বিড়ম্বিত বলাও যেনো হয়ে ওঠে নতুন বিড়ম্বনা।

মৈত্রী সিরিজের ছবিগুলো অদ্ভুত ধরনের আবেগি। যাযাবর বেদে সম্প্রদায়ের শিশুদের সঙ্গে পালিত বানরের মেলবন্ধন ছোটাতে পারে না কোনো ভয়াবহ প্রাকৃতিক দুর্যোগও।

মাদক আর আন্দোলনের অবাক পুতুল সিরিজের ছবিগুলোর সঙ্গে জড়িয়ে আছে দীর্ঘ গল্প। সমাজের একশ্রেণীর মানুষ বঞ্চিত শিশুদের ব্যবহার করে নিজের জুতা কিংবা টুথব্রাশের মতো। যাকে ইচ্ছে হলেই ছুড়ে ফেলা যায়, ইচ্ছেমতো পেষণ করা যায়।

এভাবে রঙিন এ পৃথিবীতে শিশুদের সাদা-কালো জীবন নিজের ক্যামেরার ক্যানভাসে উদ্ভাসিত করেছেন খ্যাতিমান আলোকচিত্রী আবু তাহের খোকন।

সমাজের বিত্তবানরা যাতে এসব সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের পাশে দাঁড়াতে পারেন, সেজন্যই ‘সাদাকালো’ প্রকাশের এ উদ্যোগ।

আবু তাহের খোকন দৈনিক বাংলাদেশ প্রতিদিন-এর প্রধান আলোকচিত্রী। প্রায় ৩০ বছর তিনি দেশের প্রথম সারির বিভিন্ন গণমাধ্যমে কাজ করছেন। ১৯৯৪ সাল থেকে পরপর তিনবার এসিসিইউ জাপান অ্যাওয়ার্ড, ইউনাইটেড নেশন অ্যাওয়ার্ডসহ ২০টির মতো আন্তর্জাতিক পুরস্কার পেয়েছেন। ১৯৯৩ সালে ‘চাইল্ড অ্যান্ড বাংলাদেশ’ শীর্ষক একক প্রদর্শনীও করেন বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমিতে।

ছবিগ্রন্থটি প্রকাশ করেছেন জয়িতা প্রকাশনীর ইয়াসিন কবির জয়। সম্পাদনা করেছেন নিজাম চৌধুরী। মূল্য রাখা হয়েছে ৩০০ টাকা।

বাংলাদেশ সময়: ১৬১৭ ঘণ্টা, অক্টোবর ২৮, ২০১৬
এএ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।