ঢাকা, মঙ্গলবার, ২ বৈশাখ ১৪৩১, ১৬ এপ্রিল ২০২৪, ০৬ শাওয়াল ১৪৪৫

প্রবাসে বাংলাদেশ

ভিয়েনা জাতিসংঘ সদর দফতরে একুশে পালিত

সিনিয়র স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ০৬৩৪ ঘণ্টা, ফেব্রুয়ারি ২৩, ২০১৭
ভিয়েনা জাতিসংঘ সদর দফতরে একুশে পালিত ভিয়েনা জাতিসংঘ সদর দফতরে একুশে পালিত/ছবি: বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

ঢাকা: একুশে ফেব্রুয়ারি মহান শহীদ ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস যথাযোগ্য মর্যাদা ও ভাবগাম্ভীর্যের সঙ্গে অস্ট্রিয়ার রাজধানী ভিয়েনার জাতিসংঘ সদর দফতরে পালিত হয়েছে।

স্থানীয় সময় মঙ্গলবার (২১ ফেব্রুয়ারি) দুপুর সাড়ে ১২টায় অনুষ্ঠান শুরু হয়ে তিন ঘণ্টা চলে।

এবারই প্রথম ভিয়েনা জাতিসংঘ সদর দফতরে দিবসটি পালিত হয়।

ভিয়েনার বাংলাদেশ দূতাবাস ও স্থায়ী মিশনের আয়োজনে অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন অস্ট্রিয়ায় নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মো. আবু জাফর। উপস্থাপনা করেন দূতাবাসের প্রথম সচিব মালিহা শাহজাহান।

 
অনুষ্ঠানে ভিয়েনা জাতিসংঘ সদর দফতরের বিভিন্ন সংস্থা ও আন্তর্জাতিক সংস্থার উচ্চপদস্থ প্রতিনিধি, জাতিসংঘে নিযুক্ত ৫০টি দেশের স্থায়ী প্রতিনিধিসহ চার শতাধিক অতিথি উপস্থিত ছিলেন।
 
সর্বইউরোপিয়ান আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও অস্ট্রিয়া প্রবাসী মানবাধিকার কর্মী-লেখক-সাংবাদিক এম নজরুল ইসলাম, মুক্তিযোদ্ধা সংসদ অস্ট্রিয়া ইউনিট কমান্ডের কমান্ডার বায়েজিদ মীর,  অস্ট্রিয়া আওয়ামী লীগের সভাপতি খন্দকার হাফিজুর রহমান নাসিম, সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম কবির, শাহ মো. ফরহাদ, আকতার হোসেন, রুহী দাস সাহা, এমরান হোসেন, বখতিয়ার রানা, রবিন মো. আলী, মোশারফ হোসেন আজাদ, সিরাজ চৌধুরী, নয়ন হোসেন, ইয়াসিম মিয়া বাবু, সাইদ শেখ, সামছুল হুদা চৌধুরীসহ শতাধিক প্রবাসী বাংলাদেশিও অনুষ্ঠানে অংশ নেন।
শুরুতে অস্থায়ী শহীদ মিনারের বেদিতে পুস্পস্তবক অর্পণের মাধ্যমে ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করেন জাতিসংঘের বিভিন্ন সংস্থার প্রতিনিধিরা।
প্রবাসী বাংলাদেশি নারী-পুরুষ ও শিশুরা বাংলা বর্ণমালা হাতে প্রভাত ফেরির মাধ্যমে অস্থায়ী শহীদ মিনারে পুস্পস্তবক অর্পণ করেন।
 
বিশ্ব সংস্থার ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা মাতৃভাষা, সংস্কৃতি ও বৈচিত্র্যের ঐক্যকে বাঁচাতে বিশ্বের সব  ভাষার সংরক্ষণ ও সুরক্ষা এবং বহুভাষিক শিক্ষা এগিয়ে নেওয়াকে টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের অন্যতম বাহন হিসেবে গ্রহণের প্রত্যয় ব্যক্ত করেন।
 
রাষ্ট্রদূত আবু জাফর বায়ান্নর ভাষা আন্দোলন ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের সংক্ষিপ্ত ইতিবৃত্ত তুলে ধরেন। শেষে বাংলাদেশের ঐতিহ্যবাহী খাবার দিয়ে সবাইকে আপ্যায়িত করা হয়।
 
বাংলাদেশ সময়: ১২৩০ ঘণ্টা, ফেব্রুয়ারি ২৩, ২০১৭
এসএস/এএসআর

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।